বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম সংক্ষিপ্ত করতে পোস্ট, শিক্ষার্থীকে পরীক্ষায় মানা

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোপালগঞ্জ
 | প্রকাশিত : ০১ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৯:০১

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের শিক্ষার্থী কবির আল গালিবকে মাস্টার্সের চূড়ান্ত পরীক্ষা থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের দাবি নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. মো. নূরউদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে এ নির্দেশ দেয়া হয়েছে (যার স্মারক নং- বশেমুরবিপ্রবি/র/জ.প্র/৪১/১২৬২(০৮), তাং-০১ ডিসেম্বর ২০১৯)।

অফিস আদেশে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের শিক্ষার্থী কবির আল গালিব (আইডি নং-২০১৩১২০৩০৭৩)-এর দাবি নামা সম্বলিত স্ট্যাটাসটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত শৃঙ্খলা বিধির ৫ (ক) নং ধারা ভঙ্গ করার শামিল এবং বিষয়টি অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিধায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি-শৃঙ্খলা ও সুষ্ঠু পরিবশ বজায় রাখতে শৃঙ্খলা বোর্ডের সুপারিশ অনুযায়ী তাকে চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ থেকে বিরত থাকতে বলা হলো। 

জানা গেছে, সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিনের পদত্যাগের একদফা আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা রাখেন কবির আল গালিব। উপাচার্য বিরোধী পদত্যাগ আন্দোলনের প্রতিটি কর্মসূচিতেই গালিব ছিলেন সম্মুখভাবে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে খোন্দকার নাসিরউদ্দিন পদত্যাগ করেন। এরপর ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পান অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান। অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান দায়িত্ব গ্রহণের পর শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন দাবি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি পেশ করেন। ওইসব দাবির মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম সংক্ষিপ্ত করে ‘বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়’ রাখার দাবি করা হয়। কিন্তু, বিষয়টি স্পর্শকাতর হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তা অগ্রাহ্য করে। পরে কবির আল গালিব তা নিয়ে ফেইসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে তাদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। একই সাথে শিক্ষার্থীরা তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বহিষ্কারের দাবি তোলেন। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাকে বহিষ্কার না করে তার পরীক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা করে। এ নিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ আরো বাড়ে। শিক্ষার্থীরা পুনরায় গালিবকে স্থায়ী বহিষ্কারের জন্য ভারপ্রাপ্ত অধ্যাপক ড. মো. শাহজানের কাছে আবেদন করেন।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন সম্পর্কে ফেইসবুকে স্টাটাস নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন গত ১৪ নভেম্বর একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি দেয়। তাতে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম সংক্ষিপ্ত করা নিয়ে প্রশাসনের কাছে করা শিক্ষার্থীদের করা দাবির সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন একমত নয়। তাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম সঠিক রেখে কোন কিছু প্রচার ও প্রকাশ করার অনুরোধ জানানো হয়।

এ বিষয়ে কবির আল গালিবের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। 

ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান জানিয়েছেন, কবির আল গালিব একটি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন। কিন্তু, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠায় তাকে সাময়িকভাবে পরীক্ষা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। অভিযোগটি স্পর্শকাতর হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. মো. নূরউদ্দিন আহমেদকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির রিপোর্ট পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঢাকাটাইমস/০১ডিসেম্বর/ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :