হার্ট ব্লক থেকে বাঁচতে রক্তনালি পরিষ্কার রাখতে যা খাবেন

স্বাস্থ্য ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১২:১৭ | প্রকাশিত : ২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১১:১৯

সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ করতে চাইলে শরীরের রক্ত বিশুদ্ধ রাখা জরুরি। পরিশোধিত তথা অক্সিজেন-সমৃদ্ধ রক্ত দেহের বিভিন্ন অংশে সরবরাহ করে ধমনী। প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের দেহে গড়ে ৪.৫ থেকে ৫.৫ লিটার রক্ত থাকে। দেহের নানা অংশে অক্সিজেন বহন করে নিয়ে যাওয়া, দেহের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা এবং জীবাণুর সংক্রমণ ও রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করার মতো কাজ করে রক্ত। ফলে যথাযথভাবে রক্ত চলাচলের গুরুত্ব অপরিসীম।

আমাদের শরীর থেকে টক্সিন অপসারণের জন্য প্রয়োজন এমন সব খাবার খাওয়া, যা রক্তকে বিশুদ্ধ রাখতে সহায়তা করে ও বিষাক্ত উপাদান শরীর থেকে বের করে দেয়। রক্ত পরিষ্কারের সঙ্গে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার একটা যোগসূত্র রয়েছে। আমাদের হাতের কাছেই রয়েছে এমন সব খাবার, যা নিয়মিত খেলে রক্ত ভালো থাকবে।

কাঁচা রসুন

রক্ত পরিষ্কারক হিসেবে বিশেষভাবে পরিচিত কাঁচা রসুন। এর মধ্যকার সালফার রক্ত থেকে টক্সিন বের করে দেয়। শক্তিশালী অ্যান্টি-মাইক্রোবায়াল হিসেবে কাজ করে বলে রসুন রক্ত পরিষ্কার রাখে ও রক্ত থেকে ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাস দূর করে। রক্ত থেকে ধাতব টক্সিন দূর করতে রসুন কার্যকরী ভূমিকা রাখে। প্রতিদিন রসুন খেলে ফ্রি রেডিক্যালসের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে মুক্ত থাকা যায়।

কাজুবাদাম-আখরোট

কাজুবাদাম এবং আখরোট খেলে রক্ত চলাচল বেগবান হয়। ভিটামিন এ, বি, সি ও ভিটামিন ই সমৃদ্ধ বাদাম এবং ম্যাগনেশিয়াম সমৃদ্ধ বাদাম খেতে হবে। বাদাম ধমনীতে প্রদাহ এবং পঁচনজনিত ক্ষয়রোধ করে রক্ত চলাচল বাড়ায়।

সাইট্রাস ফল

কমলা, লেবু এবং জাম্বুরারে আছে ভিটামিন সি এবং সুগার ও প্রদাহ কমাতে সহায়ক। ফলে রক্ত চলাচল বাড়ে। সাইট্রাস (লেবুজাতীয়) ফলে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ফ্ল্যাভনয়েড। এই ফল এক বাটি করে নিয়মিত খেলে ধমনীর পথ পরিষ্কার থাকে। দেহের ওজনও কমবে।

বেরি

নিয়মিত বেরি খেলে রক্তচাপ ও রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে থাকে। যা আপনার ধমনীকে পরিষ্কার ও স্বাস্থ্যসম্মত রাখবে।

ফ্যাটি ফিশ

ওমেগা-থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিডের উৎস। স্যামন, ম্যাক্রেল ও সার্ডিনের মতো মাছে আছে প্রদাহ-বিরোধী অসম্পৃক্ত চর্বি যা ভাস্কুলার প্রদাহ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

শণ বীজ

শণ বীজে রয়েছে ফাইবার, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান। যা ধমনীর পথ পরিষ্কারে সাহায্য করে।

নিম

নিম রক্তকে পরিশোধনে সাহায্য করে। এটি অ্যান্টিভাইরাল, অ্যান্টিসেপটিক, অ্যান্টিফাঙ্গাল ও প্রদাহরোধী উপাদান। এক কাপ হালকা গরম পানির মধ্যে এক ফোঁটা নিমের তেল দিন। প্রতিদিন পান করুন।

গাজর

গাজরের মধ্যে রয়েছে গ্লুটাথাইয়োনি। রক্ত পরিশোধন করতে সাহায্য করে এটি। এটির উপকার ভালোভাবে পেতে গাজর কাঁচা খেতে পারেন।

হলুদ

হলুদ রক্তের নালি পরিষ্কার করে এবং রক্ত সঞ্চালনে সাহায্য করে। এ জন্য নিয়মিত হলুদ দুধ খেতে পারেন।

আপেল

আপেলের মধ্যে রয়েছে আঁশ। এর মধ্যে রয়েছে ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস। আপেল রক্তকে পরিশোধিত করে এবং শরীর সতেজ রাখে।

গ্রিন টি

দুধ চা না খেয়ে বরং গ্রিন টি খান। যা আরো বেশি স্বাস্থ্যকর এবং দেহের কার্যক্রমতে উদ্দীপিত করে। গ্রিন টি রক্তের শিরা-উপশিরাগুলোকে প্রশস্ত করে যার ফলে রক্ত প্রবাহের গতিও বাড়ে।

পানি

দেহকে সচল রাখতে পর্যাপ্ত পরিমাণে পান করতে হবে। পানি আমাদের দেহ থেকে ট্রক্সিন বা বিষ বের করে দিতে সহায়ক। আর দেহকে যে কোনো প্রাকৃতিক বিপর্যয় এড়িয়ে রক্তচলাচল স্বাভাবিক রাখতে সহায়তা করে।

আপেল সিডার ভিনেগার

স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য আপেল সিডার ভিনেগার গ্রহণ করা হয়। কিন্তু অনেকেই জানেন না রক্ত পরিষ্কার করতেও আপেল সিডার ভিনেগার খুব ভালো ভূমিকা রাখে। কাঁচা আপেল সিডার ভিনেগারে রয়েছে প্রাকৃতিক অ্যান্টিসেপটিক উপাদান, যা ইনফেকশন হতে দেয় না। লিভারকে টক্সিনমুক্ত রাখতে একগ্লাস পানিতে এক-দুই টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে পান করুন।

(ঢাকাটাইমস/২৬জানুয়ারি/আরজেড/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :