ইরানের তেল বিক্রিকে আরও কঠোরভাবে সীমাবদ্ধ করার প্রতিশ্রুতি যুক্তরাষ্ট্রের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫:২৩

ইরানের বিরুদ্ধে নতুন দফা নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা করেছে বাইডেন প্রশাসন। ইরানের তেল এবং পেট্রোকেমিক্যাল রপ্তানিকে ‘কঠোরভাবে সীমাবদ্ধ’ করার প্রয়াসে ‘নিয়মিত ভিত্তিতে’ আর্থিক জরিমানা আরোপ করার অঙ্গীকার করেছে যুক্তরাষ্ট্র। খবর আল-জাজিরার।

বৃহস্পতিবার ঘোষিত পদক্ষেপগুলি মূলত চীন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, হংকং এবং ভারত ভিত্তিক বেশ কয়েকটি সংস্থাকে উদ্দেশ করে নেওয়া হয়েছে। এই সংস্থাগুলির ‍বিরুদ্ধে ইরানের পেট্রোলিয়াম এবং পেট্রোকেমিক্যাল পণ্য বিক্রির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ এনেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসনও স্পষ্টভাবে নিষেধাজ্ঞাগুলিকে ২০১৫ সালের ইরান পারমাণবিক চুক্তি পুনরুজ্জীবিত করতে ব্যর্থতার সঙ্গে যুক্ত করেছে যা আনুষ্ঠানিকভাবে জয়েন্ট কমপ্রিহেনসিভ প্ল্যান অব অ্যাকশন (জেসিপিওএ) নামে পরিচিত।

ট্রেজারি বিভাগের কর্মকর্তা ব্রায়ান নেলসন এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র ইরানের অবৈধ তেল ও পেট্রোকেমিক্যাল বিক্রি কঠোরভাবে সীমিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। যতদিন ইরান যৌথ সমন্বিত কর্ম পরিকল্পনার পূর্ণ বাস্তবায়নে পারস্পরিক প্রত্যাবর্তন প্রত্যাখ্যান করবে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইরানের পেট্রোলিয়াম এবং পেট্রোকেমিক্যাল পণ্য বিক্রয়ের ওপর তার নিষেধাজ্ঞাগুলি কার্যকর করতে থাকবে।’

প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৮ সালে পারমাণবিক চুক্তি প্রত্যাহার করার পর থেকে ইরানের অর্থনীতির বিভিন্ন খাত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর নিষেধাজ্ঞার মধ্যে রয়েছে।

জবাবে, চুক্তিতে নির্ধারিত সীমা অতিক্রম করে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণসহ পারমাণবিক কর্মসূচিকে এগিয়ে নিয়ে চলেছে ইরান।

বাইডেন চুক্তিতে প্রত্যাবর্তন চাইছেন। তিনি বুঝতে পেরেছেন, ইরানের অর্থনীতির বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার বিনিময়ে তারা পারমাণবিক কর্মসূচি পিছিয়ে দিয়েছে। তবে চুক্তিটি পুনরুজ্জীবিত করার কূটনৈতিক প্রচেষ্টা স্থবির হয়ে পড়েছে।

বৃহস্পতিবার বাইডেন প্রশাসন বলেছে, ইরান চুক্তিতে ফিরে না আসা পর্যন্ত তারা কঠোরভাবে নিষেধাজ্ঞা প্রয়োগ করতে থাকবে।

মার্কিন ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘ইরান যেহেতু জেসিপিওএ লঙ্ঘন করে তার পারমাণবিক কর্মসূচীকে ত্বরান্বিত করে চলেছে, আমরা জেসিপিওএ-এর অধীনে অপসারণ করা কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণে ইরানের পেট্রোলিয়াম এবং পেট্রোকেমিক্যাল বিক্রয়ের ওপর আমাদের নিষেধাজ্ঞার প্রয়োগকে ত্বরান্বিত করব।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘ইরানের তেল এবং পেট্রোকেমিক্যাল রপ্তানিকে কঠোরভাবে সীমিত করার লক্ষ্যে এই প্রয়োগকারী পদক্ষেপগুলি নিয়মিতভাবে চলতে থাকবে।’

যদিও মার্কিন কর্মকর্তারা বলছেন, ইরান চুক্তিতে ফিরে যেতে চায় কিনা তা সিদ্ধান্ত নিতে হবে। তেহরান বলছে, ওয়াশিংটনের স্থায়ী নিষেধাজ্ঞার ত্রাণ দিতে অনিচ্ছুকতা হল জেসিপিওএ-তে প্রত্যাবর্তন প্রতিরোধের প্রধান বাধা।

গত সপ্তাহে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের এক বক্তৃতায় বাইডেন বলেছিলেন, ওয়াশিংটন চুক্তিতে ফিরে যেতে প্রস্তুত। তবে তিনি জোর দিয়ে আরও বলেছিলেন, তার প্রশাসন তেহরানকে পারমাণবিক অস্ত্র অর্জনের অনুমতি দেবে না। ইরান এমনটি চাওয়ার কথা অস্বীকার করেছে।

(ঢাকাটাইমস/৩০সেপ্টেম্বর/এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :