শুক্রাণুর কর্মক্ষমতা বাড়ায় ডার্ক চকলেট!

ফিচার ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৮:৫৬ | প্রকাশিত : ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৮:৫৩

ডার্ক চকলেট ভালোবাসেন না, এরকম মানুষ কমই দেখা যায়। ডার্ক চকলেটের রয়েছে জাদুকরী গুণ যা সবাইকে আকর্ষণ করে। এক টুকরো চকলেট মুখে দিলেই আমরা বেশ ফুরফুরে বোধ করি৷ উপহার হিসাবেও ডার্ক চকোলেট দারুণ প্রিয়। আপাতদৃষ্টিতে দেখলে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট এবং পলিফেনলে ভরপুর ডার্ক চকোলেট খেলে শরীরের উপকারেই তো লাগার কথা। এ ছাড়া বহু গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে পুরুষের বন্ধ্যাত্ব দূর করতে, উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে, ডায়াবেটিস প্রতিরোধে, হার্টের স্বাস্থ্য ভাল থাকতে, মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা ঠিক রাখতেও ডার্ক চকলেটের ভূমিকা রয়েছে।

ভালো মানের কালো বা ডার্ক চকলেটে রয়েছে প্রচুর পুষ্টি উপাদান। ৭০-৮৫ ভাগ কোকোয়াসমৃদ্ধ চকলেটকেই বলে ডার্ক চকলেট। এতে আছে আঁশ, লোহা, ম্যাগনেশিয়াম, কপার, ম্যাংগানিজ, পটাশিয়াম, ফসফরাস, জিঙ্ক ও সেলেনিয়াম। দিনে অল্প পরিমাণ ডার্ক চকলেট খেলেও ৫০ ভাগ পর্যন্ত হৃদ্রোগে মৃত্যুর ঝুঁকি কমে যায়। নিয়মিত চকলেট খেলে ইনসুলিনের কার্যকারিতা বাড়ে। ফলে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও কমে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ও শারীরিক প্রদাহ রোধেও ডার্ক চকলেট সহায়তা করে।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, শুক্রাণুর কর্মক্ষমতা বাড়ায় ডার্ক চকলেট! ডার্ক চকলেটে রয়েছে অ্যামিনো অ্যাসিড, এল-আর্জিনিন এইচসিএল যা শুক্রাণুর সংখ্যা বাড়ায়। এ ছাড়া পুরুষের বন্ধ্যাত্ব দূর করতে ডার্ক চকলেট বিশেষ ভূমিকা রাখে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ডার্ক চকলেটে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা যৌন উদ্দিপনা বৃদ্ধিতে ভুমিকা রাখে।

ডার্ক চকলেট ওজন কমাতে সাহায্য করে।খাবার খাওয়ার ২০ মিনিট আগে ডার্ক চকলেট খাবেন। এতে করে মস্তিস্ক থেকে এক ধরণের হরমোন নিঃসৃত হয়। এই নিঃসৃত হরমোন খুদার পরিমাণ কমিয়ে দেয়। ফলে খাওয়ায়র পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে আসে এবং ওজন হ্রাস পায় দ্রুত।

বিষণ্নতা দূর ও মানসিক প্রশান্তিতে ডার্ক চকলেট বেশ উপকারি। ডার্ক চকলেটে থাকে ট্রিপটোফেন। এই ট্রিপটোফেন বিষণ্নতা রোধ করতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। ডার্ক চকলেট মস্তিষ্কে ডোপামিন ক্ষরণ বাড়িয়ে শরীরে আনন্দের এক অনুভূতি তৈরি করে থাকে।

ডার্ক চকলেট এনে দেয় ত্বকের উজ্জ্বলতা। গবেষকদের মতে, ডার্ক চকলেটে রয়েছে আয়রন, কপার, ম্যাগনেসিয়ামসহ আরও অনেক উপাদান যা আমাদের দেহে কোলাজেন তৈরি করে। কোলাজেন হল এক ধরনের প্রোটিন যা আমাদের দেহের ত্বক আরও মলিন করে তোলে।

নানা রোগ প্রতিরোধে সহায়ক ডার্ক চকলেট। এটি আমাদের দেহের রোগ সৃষ্টিকারী কণাগুলো ধ্বংস করে এবং আমাদের দেহকে ক্যান্সারসহ নানা রোগ থেকে রক্ষা করে।

আমাদের শরীরে ক্ষতিকর কোলেস্টেরলকে কমিয়ে দিয়ে উপকারি কোলেস্টেরল বাড়িয়ে দেয় ডার্ক চকলেট। ডার্ক চকলেটে রয়েছে কাজুবাদাম। এছাড়া এটি তৈরি হয় নির্ভেজাল প্রাকৃতিক সুইটনার কোকো দিয়ে। কোকোতে থাকে কোকোয়া বাটার যা আমাদের দেহের ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কমিয়ে দেয় এবং দেহের উপকারি কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়।

সাম্প্রতিক গবেষণা জানাচ্ছে, ডায়াবেটিস ধরা পড়লেই চকলেট খাওয়া বন্ধ করার প্রয়োজন নেই। ডায়াবেটিকরা অনায়াসেই খেতে পারেন ডার্ক চকলেট । ডার্ক চকোলেট রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। তাই ডায়াবেটিসের ঝুঁকি এড়াতে নিয়ম করে ডার্ক চকলেট খাওয়া যেতে পারে। এ ছাড়াও ডার্ক চকলেটের গুণ অনেক। তবে এ ক্ষেত্রে অন্তত পক্ষে ৭০ শতাংশ ডার্ক চকোলেট খাওয়াই বিধেয় বলে জানাচ্ছেন পুষ্টিবিদেরা।

ডার্ক চকলেট ব্লাড প্রেশার বা রক্তচাপ কমায়। পাশাপাশি ডার্ক চকলেট গর্ভবতী মহিলাদের মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। সব সময় ভালো মানের ডার্ক চকলেট দেখে কেনার চেষ্টা করুন। ডার্ক চকলেটে স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারি কিন্তু তাই বলে এটি ইচ্ছেমতো খাওয়া যাবে না। কোন খাবারই অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া উচিত নয়। তাই স্বাস্থ্য সচেতনার কথা চিন্তা করে ডার্ক চকলেট খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে কিন্তু তা হবে পরিমাণমতো।

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, যে সবপুরুষ নিয়মিত সামান্য পরিমাণে হলেও ডার্ক চকলেট খান, তাদের যৌন ক্ষমতা অন্যদের চেয়ে বেশি। বন্ধ্যাত্বের ঝুঁকি কমাতে, শুক্রাণুর সংখ্যা আর কর্মক্ষমতা বাড়াতে নিয়মিত খান ডার্ক চকলেট।

ডার্ক চকলেটের মূল উপাদান হলো কোকো পাউডার। কোকো বীজ থেকে তৈরি হয় কোকো পাউডার। কোকো বীজ শুকিয়ে তাকে ফারমেনটেশন করে তারপর বীজগুলো রোস্ট করে গুঁড়া করতে হয় যা, কোকো পাউডার নাম পরিচিত। কোকো গাছের বীজের তীব্র তেতো স্বাদ রয়েছে। পাউডারে যেসব পুষ্টি উপাদান থাকে সেগুলো হলো – ক্যালোরি: ৪৯, কার্বোহাইড্রেট: ১২ গ্রাম, ফাইবার: ৭ গ্রাম, প্রোটিন: ৪ গ্রাম, ফ্যাট: ৩ গ্রাম।

বাজারে অনেক ধরনের ডার্ক চকোলেট পাওয়া যায়৷ ১০০ গ্রাম একটি চকোলেট বারে ৭০ শতাংশ বা তার বেশি পরিমাণে কোকো থাকলে সেটি ডার্ক চকলেট। তবে বাজারজাত চকোলেট শরীরের জন্য ভাল হয় না, অনেক ক্ষেত্রেই। তাই দোকান থেকে না কিনে, বাড়িতেই বানিয়ে ফেলুন চকোলেট। এর গুণমান যেমন ভাল হবে, তেমন অফুরান আনন্দ দিতে পারবেন সেই বিশেষ মানুষটিকে। জেনে নিন বাড়িতে তৈরি ডার্ক চকোলেটের সহজ রেসিপি

উপকরণ (৪ জনের পরিমাণের)

কোকো পাউডার: ৫ টেবিল চামচ

গুঁড়া দুধ: ৩-৪ টেবিল চামচ

ময়দা: পরিমাণ মতো

মাখন: ১০০ গ্রাম

চিনি: ২/৩ কাপ

ভ্যানিলা এসেন্স: পরিমাণ মতো

প্রণালী

মিক্সার গ্রাইন্ডারে কোকো পাউডার ও মাখন একসঙ্গে মিশিয়ে নিন ভাল করে। চুলায় একটি পাত্র বসিয়ে এক চতুর্থাংশ পানি দিয়ে, অন্য একটি তুলনামূলক ছোট পাত্রে মিশ্রণটি ঢেলে বসিয়ে দিন। মাঝারি আঁচে, মিশ্রণটি অনবরত নাড়াচাড়া করতে থাকুন। খেয়াল রাখতে হবে, তা পোড়া না লেগে যায়। কিছুক্ষণ গরম করার পর মিশ্রণটি ফের মিক্সার গ্রাইন্ডারে পেস্ট করে নিন। এবার সেই মিশ্রণটি অন্য পাত্রে ঢেলে ভাল করে চিনি মিশিয়ে নিন। এরপর সামান্য ময়দা ও গুঁড়া দুধ মিশিয়ে একটা ঘন ব্যাটার তৈরি করে ফের মিক্সার গ্রাইন্ডারে পেস্ট করে নিন। কিছুক্ষণ বাইরে রেখে, চকোলেট মোল্ডে ঢেলে ফ্রিজে রাখুন। এই মিশ্রণের মধ্যে চাইলে ড্রাই ফ্রুটসও দিতে পারেন, তাহলে তৈরি হবে ফ্রুট অ্যান্ড নাট চকোলেট। ফ্রিজ থেকে বের করে সুন্দর করে সাজিয়ে উপহার দিন ডার্ক চকোলেট।

(ঢাকাটাইমস/১ ফেব্রুয়ারি/আরজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :