অর্থনীতির সংকটে দ্রব্যমূল্য বাড়া স্বাভাবিক, না খাইয়ে তো রাখিনি: ওবায়দুল কাদের 

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩:৪৪ | প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩:৩৫

দ্রব্যমূল্য বাড়লেও জনগণের ক্রয়ক্ষমতা এখনো আছে। সামনের রমজানেও জিনিসপত্র এভেইলেবল থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, “অর্থনীতিতে যখন সংকট তখন দ্রব্যমূল্য বাড়া স্বাভাবিক। তবে আপনাদের তো না খাইয়ে রাখিনি।”

মঙ্গলবার ২৩ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, “দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির পেছনে চাঁদাবাজির একটা বিষয় অবশ্যই আছে। চাঁদাবাজির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কঠিন বক্তব্য দিয়েছেন এবং এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের নজরদারি বাড়াতে বলেছেন। একটা বিষয় শুরু হলে রাতারাতি বন্ধ হয়ে যাবে এমন নয়। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের পর সবাই নড়েচড়ে বসেছে এবং যার যে দায়িত্ব আছে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী তা পালন করছে। দ্রব্যমূল্য এমন একটা বিষয়, যখন অর্থনীতিতে সংকট তখন দ্রব্যমূল্য বাড়া স্বাভাবিক। অর্থনীতিতে যখন সংকট হবে তখন দ্রব্যমূল্য, বাজার ওঠানামা করে। এটা বাজারের ধর্ম। অপেক্ষা করেন, আপনাদের তো না খাইয়ে রাখিনি, দেশের মানুষ খেতে পাচ্ছে। একটা মানুষও না খেয়ে মরেনি। দেশের মানুষ অনেক ভালো আছে।”

দ্রব্যমূল্যের বৃদ্ধির কারণে আওয়ামী লীগের প্রতি জনগণের নেতিবাচক ধারণা সৃষ্টি হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, “আমাদের দেশের জনগণ প্রমাণ করেছে তারা এতো উসকানি, এতো আন্দোলন যে বাংলাদেশ উত্তাল সাগর হয়ে যাবে, এসবের পর তাদের ঐ পিকনিক পার্টি সমাবেশের নামে সেখানে জনগণ প্রলুব্ধ হয়নি। প্ররোচিতও হয়নি। দেশের জনগণ সারা বিশ্বের খবর রাখে। সারা বিশ্বের সব খবর নিয়ে গ্রামে চায়ের দোকানে রীতিমতো গবেষণা হয়। মানুষ বুঝে এখানে সরকারের দোষ নেই। বিশ্বে যে সংকট দ্রব্যমূল্য নিয়ে, সে দ্রব্যমূল্য বাংলাদেশের একার নয়। সারা দুনিয়াতে জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে। পৃথিবীর একটা দেশ দেখান যেখানে দ্রব্যমূল্য স্বাভাবিক অবস্থায় আছে। তবে আমাদের জনগণের ক্রয়ক্ষমতা এখনো আছে। আমরা আশা করি সামনের রমজানেও জিনিসপত্র এভেইলেবল থাকবে।”

এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন, সুজিত রায় নন্দী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, শিক্ষা ও মানবসম্পদবিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাপা, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আব্দুল আউয়াল শামীম, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/২৭ফেব্রুয়ারি/জেএ/এফএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

রাজনীতি এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :