হিলি স্থলবন্দর ও ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট পরিদর্শনে ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার

দিনাজপুর প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩:৩০ | প্রকাশিত : ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩:২৫

দিনাজপুরে হিলি স্থলবন্দর, ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট এবং ভারতীয় হিলি ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস পরিদর্শন করেছেন ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার মনোজ কুমার। সেখানে তিনি বাংলা হিলি স্থলবন্দর ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

দিনাজপুর হিলি স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানিকারক এসোয়েশনের সভাপতি ও হাকিমপুর উপজেলা চেয়ারম্যান মো. হারুনুর রশিদ হারুন বলেন, “গতকাল ভারতীয় সরকারী হাইকমিশনার মনোজ কুমার বিকাল ৪টায় রাজশাহী থেকে দিনাজপুরের হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট পরিদর্শনে আসেন। রাত সাড়ে ৯ টা পর্যন্ত পরিদর্শন ও আলোচনা সভা চলে।

তাকে দিনাজপুর হিলি ইমিগ্রেশন, কাস্টমস, হাকিমপুর উপজেলা প্রশাসন, হিলি পোর্ট লিংক লিমিটেড ও বিভিন্ন সংস্থার পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়।

ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে নিয়ে হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। তিনি বাংলাদেশে অবস্থানরত কাস্টমস পুলিশ ও বিজিবি সদস্যদের কাছে তাদের বিভিন্ন সমস্যার বিষয় কথা শোনেন।

সহকারী হাইকমিশনার হিলি স্থলবন্দর চেকপোস্ট গেটের শূন্যরেখায় গিয়ে বিজিবি এবং বিএসএফের কার্যক্রম পরিদর্শন এবং কর্মকর্তাদের সঙ্গে স্থলবন্দরের চলমান বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। পরে তিনি সীমান্ত দিয়ে ভারতের অভ্যন্তরে প্রবেশ করেন। সেখানে ভারতের হিলি ইমিগ্রেশন, কাস্টমসের বিভিন্ন অবকাঠামো ও কার্যক্রম পরিদর্শন এবং কর্মকর্তাদের সঙ্গে ঘণ্টাব্যাপী আলোচনা করেন। ভারতীয় সীমান্তের বিএসএফ সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা ও শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে তিনি পুনরায় বাংলাদেশে হিলি স্থলবন্দরে ফিরে আসেন।

পরে জেলার হাকিমপুর উপজেলার হিলি ডাকবাংলোয় হিলি-তুরা করিডোর কমিটির সঙ্গে তিনি বৈঠক করেন। বৈঠকে তিনি করিডোর বাস্তবায়নে বাধ্যতামূলকভাবে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন। এসময় হাকিমপুর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান উপজেলা চেয়ারম্যান হারুন উর রশিদ হারুন এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিত রায়।

এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় হিলি স্থলবন্দরের পানামা পোর্ট লিংক ও হিলি কাস্টমস বিভাগ পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনে শেষে কাস্টমস কর্মকর্তা, বন্দরের আমদানি রফতানিকারকদের সঙ্গে পৃথক বৈঠক করেন। বৈঠকের শুরুতে ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনারকে সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। বৈঠকে দুই দেশের আমদানি-রফতানি কাজে সুবিধা অসুবিধার বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হয়ছে। এছাড়া ভিসা জটিলতা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

আলোচনাকালে তিনি বলেছেন, “এই হিলি স্থলবন্দর দিয়ে কীভাবে আমদানি-রফতানি কার্যক্রম আরও গতিশীল করা যায় সে বিষয়টি গুরুত্ব দেওয়া হবে। তিনি বলেছেন যাত্রী পারাপার বাড়ানো এবং ব্যবসায়ীসহ ভারত গমনে ভিসা জটিলতা দ্রুত নিরসনে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে আমার এই সফর ভূমিকা রাখবে। হিলি স্থলবন্দরে বিদ্যমান যেসব সুযোগ-সুবিধা রয়েছে, এগুলোর উন্নয়ন ঘটিয়ে দুই দেশই যেন উপকৃত হয় সেজন্য এই পরিদর্শন। তিনি বলেন, “নিজে এসে না দেখলে বোঝা যাবে না সমস্যা কী রয়েছে। এখানে যেসব সমস্যা রয়েছে সেগুলো সমাধান করে স্থলবন্দরের কার্যক্রম আরও গতিশীল করা হবে।”

ভিসা জটিলতা নিরসনে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলে আশ্বাস দেন তিনি।

(ঢাকাটাইমস/২৭ফেব্রুয়ারি/এফএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :