পঞ্চপল্লীতে নিহতের ঘটনায় তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল, শ্রমিকদের সম্পৃক্ততার প্রমাণ মেলেনি

ফরিদপুর, প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ১৩ মে ২০২৪, ০০:১২ | প্রকাশিত : ১৩ মে ২০২৪, ০০:১১
ছবি: সংগৃহীত।

ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার ডুমাইন ইউনিয়নের পঞ্চপল্লীতে দুই ভাইকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি তদন্ত কার্যক্রম শেষে তাদের প্রতিবেদন দাখিল করেছেন।

ঘটনার ২৪ দিন পর রবিবার জেলা প্রশাসক কামরুল আহসান তালুকদার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মো. সিদ্দিক আলী গত ৭ মে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন।

পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জেলা প্রশাসক কামরুল আহসান তালুকদার বলেন, তদন্ত কমিটি তাদের কার্যক্রম পরিচালনাকালে শতাধিক ব্যক্তির বক্তব্য গ্রহণ করেছেন। তাদের বক্তব্যে এ ঘটনার সঙ্গে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ শতাধিক ব্যক্তি জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জেলা প্রশাসক বলেন, ডুমাইন ইউনিয়নের পঞ্চপল্লীর ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে বেশকিছু বিষয় উঠে এসেছে। তবে যেহেতু এটি আদালতে বিচারাধীন বিষয় তাই এ বিষয়ে আমরা বেশিকিছু বলতে পারছি না।

জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক কামরুল আহসান তালুকদার বলেন, এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জনপ্রতিনিধিসহ অনেকের সম্পৃক্ততা ছিল। এটি বিভিন্ন ভিকটিমদের বক্তব্যে উঠে এসেছে। তবে মন্দিরে অগ্নিসংযোগের বিষয়ে দুই সহোদর জড়িত কি না সে বিষয়ে কারো কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। মন্দিরে কে আগুন দিয়েছে সেটি খুঁজে বের করা সম্ভব হয়নি। দুই সহোদর কিংবা অন্য কোনো শ্রমিক আগুন লাগিয়েছে কিনা সে বিষয়ে প্রত্যক্ষদর্শী কারো কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

জেলা প্রশাসক বলেন, এ ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি অনেকগুলো অবজারভেশন দিয়েছে। এসব স্থানে দুর্ঘটনা প্রতিরোধে যাতে সিসি ক্যামেরা থাকে, অগ্নি নির্বাপক ব্যবস্থা থাকে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ এ ধরনের কোনো উন্নয়ন কর্মকাণ্ড যাতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জানিয়ে বাস্তবায়ন করা হয়। এছাড়া এ ঘটনায় চাঁদাবাজির অভিযোগের বিষয়ে কারো নিকট থেকে কোনো প্রমাণস্বরূপ বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, গত ১৮ এপ্রিল রাতে পঞ্চপল্লী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে সহোদর দুই কিশোর নির্মাণ শ্রমিক আরশাদুল খান (১৯) ও আশরাফুল খানকে (১৫) নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে একটি মন্দিরের প্রতিমার কাপড়ে অগ্নিসংযোগের অভিযোগ তুলে গ্রামবাসীকে উত্তেজিত করে তোলেন জড়িতরা। এ ঘটনায় আরো কয়েকজন শ্রমিক ও পুলিশ আহত হন।

ঘটনার পরে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মো. সিদ্দিক আলীকে প্রধান করে প্রথমে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। পরে তদন্ত কমিটির সদস্য সংখ্যা বাড়িয়ে সাত সদস্যে উন্নীত করা হয়। একইসঙ্গে তদন্ত কমিটির মেয়াদও বাড়ানো হয়।

এদিকে ফরিদপুরের মধুখালীর ডুমাইন ইউনিয়নের পঞ্চপল্লী গ্রামের ঘটনায় তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসব মামলায় ৩১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। একটি মামলা করেন নিহত দুই সহোদরের বাবা মধুখালী উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়নের চোপেরঘাট গ্রামের মো. শাহজাহান খান (৪৬)। মন্দিরে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় দ্বিতীয় মামলাটি করেন মন্দিরের পূজারী কৃষ্ণনগর গ্রামের বাসিন্দা প্রভাষ চন্দ্র মণ্ডলের স্ত্রী তপতী রানী মণ্ডল (৪৭)। এছাড়া পুলিশ সদস্যদের আহত করা, সরকারি কাজে বাধা দেওয়া, সরকারি সম্পত্তির ক্ষতিসাধন করা এবং অগ্নিসংযোগের অভিযোগে তৃতীয় মামলাটির বাদী মধুখালী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শংকর বালা।

মধুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিরাজ হোসেন জানান, এ ঘটনায় তিনটি মামলা করা হয়েছে। এসব মামলায় এখন পর্যন্ত মোট ৩১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/১২মে/প্রতিনিধি/পিএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

সারাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সারাদেশ এর সর্বশেষ

নিজ দপ্তরে বসে মাদক সেবন, রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর দুই সদস্য বরখাস্ত

কুলাউড়ায় খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল

লোহাগাড়ায় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ৩ বসতঘরে ডাকাতি

টাঙ্গাইলে ছিনতাই হওয়া ২০০ বস্তা চাল উদ্ধার, আটক ২

রাজবাড়ির পাংশায় উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে আ.লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ, আহত ৫

গজারিয়ায় দুপক্ষের সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৬ জনসহ আহত ৯

ঝিনাইদহে আর্থিক সহায়তার চেক বিতরণ

নোয়াখালীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আন্তঃকলেজ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন

মন্দিরে খিচুড়ি খেয়ে শিশুর মৃত্যু, বাবুর্চিসহ অসুস্থ আরও ৩৮

মতিউরের প্রথম স্ত্রী লায়লা কানিজেরও খোঁজ নেই, ঈদের পর আসেননি নিজ কার্যালয়ে

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :