উপজেলা নির্বাচন

ময়মনসিংহে চলছে সমঝোতার আলাপ

ব্যুরো প্রধান, ময়মনসিংহ
 | প্রকাশিত : ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৭:১৮

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দিনক্ষণ এখনো ঠিক হয়নি । তবে ময়মনসিংহ সদরে যারা প্রার্থী হবেন বা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তারা তাদের প্রচারণা চালাচ্ছেন নানা কৌশলে। চলছে ঘরোয়া মিটিং। একই সঙ্গে চলছে সমঝোতার আলাপ। নিজ গ্রুপে বা সর্ব গ্রুপে চলছে আগাম সংলাপ।

ইতিমধ্যে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের জেলা নেতারা সদর উপজেলার চেয়ারম্যান পদে দলের মনোনয়নের জন্য কেন্দ্রে পাঠাতে চারজনের একটি তালিকা করেছে।

ইসির ঘোষণা অনুযায়ী দেশে এবার প্রথম ধাপে আগামী ৮ অথবা ৯ মার্চ নির্বাচন। এই সময়ে ময়মনসিংহের কোনো উপজেলার নির্বাচন হবে কি না এখনো নিশ্চিত নয়। তবে এরই মধ্যে প্রার্থী ও ভোটারদের মাঝে উৎসাহের কমতি নেই।

বিএনপির ২০-দলীয় জোট ও ঐক্যফ্রন্ট এই নির্বাচনে অংশ নেবে না জানিয়ে দিয়েছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তবে স্থানীয়ভাবে প্রার্থী হতে পারেন এমন কেউ এখনো সামনে আসেননি।

অন্যদিকে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বেশ সরব। ময়মনসিংহ সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ডজন খানেক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে শোনা যাচ্ছে। প্রত্যেক উপজেলা থেকে তৃণমূলের সমর্থনের ভিত্তিতে তিনজনের নাম জেলা থেকে কেন্দ্রে পাঠানো হবে।

সদর উপজেলা পরিষদের প্রার্থী মনোনয়নের জন্য চারজনের তালিকা তৈরি হয়েছে। তাদের মধ্য থেকে কাকে মনোনয়ন দিলে গতবার হাতছাড়া হওয়া চেয়ারম্যান পদটি পুনরুদ্ধার সম্ভব, এমন হিসাব-নিকাশ চলছে তৃণমূলে।

কেন্দ্রের নির্দেশে গত ৩০ জানুয়ারি নগরীর হোটেল আমির ইন্টারন্যাশনালে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় তৃণমূল নেতারা হ্যাঁ-না ভোটে চারজনের নাম চূড়ান্ত করেন। দু-এক দিনের মধ্যে এই তালিকা কেন্দ্রে পাঠানো হবে বলে জানা গেছে।

তালিকার এক নম্বরে রয়েছেন সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আশরাফ হোসাইন। এরপর ক্রমানুসারে রয়েছেন চর ঈশ্বরদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামী লীগ সহসভাপতি মোর্শেদুল আলম জাহাঙ্গীর, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আবু সাঈদ দীন ফখরুল ও জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক রেজাউল হাসান বাবু।

আশরাফ হোসাইন উপজেলা নির্বাচনে ভোটবলয় চরাঞ্চলে ব্যাপক জনপ্রিয়। তৃণমূলে আলোচনায় রয়েছেন মোর্শেদুল আলম জাহাঙ্গীর। চরাঞ্চলের ভোট ব্যাংক নির্দেশক হয়ে আবু সাঈদ। রেজাউল হাসান বাবুরও জনপ্রিয়তা রয়েছে তৃণমূলে।

এ ছাড়া নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারেন এমন গুঞ্জন আছে মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হোসাইন জাহাঙ্গীর বাবু, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মমতাজ উদ্দিন মন্তা ও সদস্য আরজুনা কবির, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এইচ এম ফারুক ও মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক শাহীনুর রহমানকে নিয়ে।

অন্যদিকে ভাইস চেয়ারম্যান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থিতা উন্মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। তারপরও বেশ কজন দরখাস্ত করেন প্রার্থিতা নিধারণের জন্য। পরে তাদের বক্তব্য শোনেন নেতারা। সেখানে ভাইস চেয়ারম্যান পদে দোয়া চান জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের যুগ্ম আহ্বায়ক ও সদর উপজেলা যুবলীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান শাহীন, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট ময়মনসিংহ জেলা শাখার সহ-সাংগঠনিক  সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সিদ্দা, সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করা হুমায়ন কবির ও সাবেক ছাত্রনেতা আকুয়া চৌরঙ্গী মোড়ের আবু কায়সার।

সভায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সমর্থন ও দোয়া চান চরাঞ্চলের বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুল হক মন্ডলের মেয়ে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড সদস্য আফরোজ হক কলিসহ আরও দুজন।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সালাম সরকারের সভাপতিত্ব সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান।

সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক মন্ডলের সঞ্চালনায় বর্ধিত সভায় বক্তব্য দেন মহানগর সভাপতি এহতেশামুল আলম, সাধারণ সম্পাদক মোহিত উর রহমান শান্ত, জেলা মটর মালিক সমিতির সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মমতাজ উদ্দিন মন্তা, দপ্তর সম্পাদক আবু সাঈদ দীন মো. ফখরুল, মহানগরের সহ-সভাপতি অধ্যাপক গোলাম ফেরদৌস জিল্লু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হোসাইন জাহাঙ্গীর বাবু, জেলা যুবলীগ আহবায়ক অ্যাডভোকেট আজহারুল ইসলাম।

(ঢাকাটাইমস/২ফেব্রুয়ারি/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :