সত্যিই ফিরে আসছেন প্রিয় সম্পাদক?

ইব্রাহিম খলিল
| আপডেট : ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ১১:১৩ | প্রকাশিত : ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ১১:০৩
আরিফুর রহমান দোলন

২০১৩ সালের অক্টোবরের কথা। ঢাকাটাইমস অনলাইন নিউজ পোর্টালের সংবাদকর্মী হিসেবে নিয়োগ সূত্রে প্রথম দেখা সম্পাদক আরিফুর রহমান দোলনের সঙ্গে। সাক্ষাতে জানলাম তিনি প্রথম আলোর সেই জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক বাংলা ভাইয়ের আবিষ্কারকর্তা আরিফুর রহমান দোলন।

তিনিও জানলেন আমিও প্রথম আলোর একজন সংবাদকর্মী ছিলাম। ব্যস, আন্তরিকতটা যেন বেড়েই গেল। স্নেহ, ভালোবাসা সবকিছু উজাড় করে দিয়ে বলতে শুরু করলেন মনের কথা। বলেই দিলেন ঢাকাটাইমসের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রতিবেদক হিসেবে নিয়োগ পাকা।

শুরু হলো কাজের দিকনির্দেশনা। সবকিছু অবাক হয়ে শুনছিলাম। গিলছিলাম। মনে হচ্ছে নতুন কিছু শিখছি। খাচ্ছি। মনভরা প্রেরণা আর বুকভরা আশা নিয়ে চট্টগ্রামে ফিরেই কাজ শুরু করলাম। সবমিলিয়ে মনে হয়েছিল সাংবাদিকতা জীবনে নতুন এক অভিভাবক পেলাম।

এমনটা মনে হওয়ার আরও কারণ ছিল। প্রথম আলো ছেড়ে তখন আমি দুঃসময় অতিক্রম করছিলাম। যদিও খুব কম সময়ে চট্টগ্রামের একটি পত্রিকায় প্রতিবেদক হিসেবে কাজ শুরু করেছিলাম। আর তাতে যে মজুরি পেতাম তা কোনোমতেই বেতন বলা চলে না।

এই দুঃসময়ে ঢাকাটাইমস অনলাইন নিউজ পোর্টালে চট্টগ্রাম জেলা প্রতিবেদক হিসেবে নিয়োগ পাওয়া ছিল ঐশ্বরিক প্রদত্ত। ওই সময় মনজুড়ে বসেছিলেন প্রিয় সম্পাদক আরিফুর রহমান দোলন। কিন্তু বছর দুয়েক পর ধীরে ধীরে শূন্যতা অনুভব করা শুরু করলাম। সম্পাদক আরিফুর রহমান দোলন তখন পুরো দস্তুর রাজনীতিবিদ।

আলফাডাঙ্গা, বোয়ালমারী, মধুখালীতে (ফরিদপুর-১) আওয়ামী লীগের একজন কর্মী হিসেবে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন তিনি। ফোনেও তেমন পাচ্ছিলাম না। মিস করতে থাকলাম। ভাবতে থাকলাম প্রিয় অভিভাবক সম্পাদক আরিফুর রহমান দোলনকে কি সত্যিই হারালাম।

সেটা আরও সত্যি হয়ে উঠল যখন বাংলাদেশ কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি এবং ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য হলেন তিনি। এরমধ্যে দুইবার অফিসে গিয়েও দেখা পেলাম না প্রিয় সম্পাদকের।

গুলশানের অফিসে দুইবার গেলেও রাজনৈতিক কাজে এতটাই ব্যস্ত ছিলেন যে কথা বলার সুযোগ পাননি। হতাশ হলাম। চট্টগ্রামে ফিরে এলাম প্রিয়জনকে না পাওয়ার নীল বেদনা নিয়ে। পরে ঢাকাটাইমসের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধানের পদ থেকে ইস্তফা নিয়ে ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে চট্টগ্রাম জেলা থেকে স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে যোগ দিলাম দৈনিক মানবজমিনে। যা বলার জন্য ফোন দিলেও হয়তো ব্যস্ততার কারণে ফোন ধরার সুযোগ পাননি প্রিয় অভিভাবক আরিফুর রহমান দোলন। শেষে মনকে সান্ত্বনা দিলেও আজ পর্যন্ত ভুলতে পারিনি দুঃসময়ের প্রিয় অভিভাবক ঢাকাটাইমস সম্পাদককে। তাই প্রতিদিন অন্তত একবার হলেও খুলে দেখি নিউজ পোর্টাল ঢাকাটাইমস। খুঁজে ফিরি প্রিয় সম্পাদককে। লেখা দেখলে হামলে পড়ি কিছু শিখতে।

বুধবার রাতে পোর্টালটি খুলে দেখতেই মতামত বিভাগে চোখে পড়ল সাংবাদিক হাবিবুল্লাহ ফাহাদ ও রেজাউল করিম ভাইয়ের লেখা। সেখানে খবর পাই প্রিয় স¤পাদক আরিফুর রহমান দোলন কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে নতুন করে সহ-সভাপতি না হওয়ার সিদ্ধান্তের খবর।

মনযোগ দিয়ে পড়ে জানলাম, কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে থাকতে ইচ্ছুকদের কাছে সিভি (জীবনবৃত্তান্ত) চেয়েছিলেন নতুন সভাপতি-সাধারণ স¤পাদক। আরিফুর রহমান দোলন তাতে আগ্রহ দেখাননি। আর এই সিদ্ধান্তে মনে হয়েছে প্রিয় সম্পাদককে ফিরে পাচ্ছি আমরা।

তবুও প্রশ্ন, সত্যিই কি ফিরে আসছেন প্রিয় সম্পাদক আরিফুর রহমান দোলন। বিশ্বাস করতে পারছি না। কারণ রাজনীতি এমন এক নেশা, যার ছোঁয়া মাদকের চেয়েও ভয়ঙ্কর। সামান্য পাড়া-মহল্লার নেতা তকমা ফেলে আসা যেখানে কঠিন, সেখানে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব কিভাবে ছাড়বেন তিনি।

তাহলে আমাদের প্রিয় অভিভাবক কি বুঝতে পেরেছেন ঘুণে ধরা রাজনীতিতে একজন রাজনীতিবিদ যা করতে পারেন, একজন সাংবাদিক তা করতে পারেন না। একজন রাজনীতিবিদের চেয়েও একজন সাংবাদিক মানুষের কাছে অনেক বেশি সমাদৃত।

প্রিয় অভিভাবক আপনি প্রথম আলো, বাংলাদেশ প্রতিদিন, আমাদের সময় পত্রিকার গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেছেন। অনুসন্ধানী অনেক প্রতিবেদনের জন্য পুরস্কার পেয়েছেন। বাংলা ভাইয়ের আবিষ্কার কর্তা হিসেবে আপনি সারাদেশে সমাদৃত। এরপরও ঢাকাটাইমস ও এই সময়ের সম্পাদক হিসেবে আপনি তার চেয়ে ঢের বেশি জনপ্রিয়।

রাজনীতিবিদ হিসেবে আপনি নতুন জগত সৃষ্টি করতেই পারেন। কিন্তু একজন সংবাদকর্মী হিসেবে আমাদের চাওয়া উপেক্ষিত হোক আপনার কাছে আমরা তা চাই না। এই চাওয়া যদি দোষেরও হয়ে থাকে, হোক! তারপরও আমরা আপনাকে একজন সম্পাদক, অভিভাবক হিসেবে পেতে চাই।

আমরা চাই ঘুণে ধরা রাজনীতির শেকল ভেঙে চুরমার হয়ে যাক আপনার হাতেই। যেভাবে বাংলা ভাইয়ের দুর্গ ভেঙে দিয়েছেন আপনি। আপনি শত সহস্র বছর বেঁচে থাকুন আমাদের মাঝে, এই শুভকামনা।

লেখক: সংবাদকর্মী।

[email protected]

সংবাদটি শেয়ার করুন

মতামত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :