ছেলেকে আনতে চৌদ্দশ কিলোমিটার স্কুটার চালালেন মা!

ঢাকাটাইমস ডেস্ক
| আপডেট : ১০ এপ্রিল ২০২০, ১৪:০৭ | প্রকাশিত : ১০ এপ্রিল ২০২০, ১২:৪৩

করোনায় প্রতিবেশী দেশ ভারতের লকডাউন চলাকালে ছেলেকে উদ্ধার করতে এক হাজার ৪০০ কিলোমিটার স্কুটি চালিয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন এক মা। অন্ধপ্রদেশের ওই নারীকে নিয়ে খবর প্রকাশ করেছে ভারতের বিভিন্ন গণমাধ্যম।

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ভারতে লোকজনের ঘরের বাইরে যাওয়ায় রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। তাই বলে সন্তান বিপদে আছে জেনে মা-তো চুপচাপ বসে থাকতে পারেন না। তাই তিন দিন স্কুটি চালিয়ে এক হাজার ৪০০ কিলোমিটার সড়ক-মহাসড়ক পেরিয়ে আরেক রাজ্যে আটকে পড়া ছেলেকে উদ্ধার করেন।

হিন্দুস্থান টাইমসের খবর বলা হয়েছে, কারণ জানিয়ে স্থানীয় পুলিশের অনুমতি নিয়ে তেলেঙ্গানা রাজ্য থেকে গত সোমবার যাত্রা শুরু করেন মা রাজিয়া বেগম (৪৮)। উদ্দেশে পার্শ্ববর্তী রাজ্য অন্ধ্রপ্রদেশে আটকে পড়া ছেলেকে বাড়ি নিয়ে আসা। এজন্য তাকে পাড়ি দিতে হয়েছে এক হাজার চারশ কিলোমিটার পথ। আর তা সফলভাবে শেষে করে গত বুধবার ছেলেকে নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন রাজিয়া।

এ বিষয়ে রাজিয়া বেগম গণমাধ্যমকে বলেন, দুইচাকার যান স্কুটি চালিয়ে এতো রাস্তা পাড়ি দেওয়া একজন নারীর পক্ষে ছিল খুবই কঠিন কাজ। তবে ছেলেকে ঘরে আনার দৃঢ়প্রতিজ্ঞা আমার সব ভয়কে দূরে ঠেলে দিয়েছিল। যাত্রা পথে আমি এমন সময় পার করেছি যখন দেখেছি রাতের আঁধারে কোথাও কেউ নেই। চারিদিকে শুধু সুনসান নীরবতা।

জানা যায়, রাজিয়া বেগম হায়দ্রাবাদ থেকে দুইশ’ কিলোমিটার দূরে নিজামাবাদ সরকারি স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা। ১৫ বছর আগে তিনি তার স্বামী হারান। তার দুই সন্তানের একজন প্রকৌশলী গ্রাজুয়েট, অন্যজন ১৯ বছর বয়সী নাজিমুদ্দিন। যার কিনা চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন।

বন্ধুকে রেখে আসতে গত ১২ মার্চ নাজিমুদ্দিন তেলেঙ্গানার নিলোরের রাহামাতাবাদে যান। কিন্তু এর মধ্যে ভারতজুড়ে লকডাউন ঘোষণায় তিনি সেখানে আটকা পড়েন। আর ছোট ছেলেকে ফিরিয়ে আনতে পুলিশের ভয়ে বড় ছেলেকে পাঠাননি রাজিয়া বেগম। সেখানে কীভাবে পৌঁছানো যায় সে পরিকল্পনায় প্রথমে গাড়ির কথা মাথায় এলেও, পরে তা ঝেরে ফেলে দুই চাকার স্কুটিতেই ভরসা খুঁজে পান। সেই যানে চেপেই ছেলেকে নিয়ে আসেন তিনি।

(ঢাকাটাইমস/ ১০ এপ্রিল/ এইচএফ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :