‘সরকারি-বেসরকারি প্রচেষ্টায় এই দুঃসময় আমরা অতিক্রম করবো’

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৯ জুলাই ২০২০, ২১:১৮

করোনাভাইরাসের দুঃসময় সরকারি ও বেসরকারি প্রচেষ্টায় অতিক্রম করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ্ মো. ইমদাদুল হক।

বৃহস্পতিবার নগর ভবনে অতি দরিদ্রদের মাঝে নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে নগরের অতি দরিদ্রদের মধ্যে সাজেদা ফাউন্ডেশন কর্তৃক নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান কার্যক্রম সত্যিকার অর্থে একটি মানবিক ও মহতি উদ্যোগ। আমি বিশ্বাস করি, সরকারি-বেসরকারি প্রচেষ্টায় করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের এই দুঃসময় আমরা অতিক্রম করতে সক্ষম হবো।’

ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী বলেন, ‘বিদ্যমান করোনা পরিস্থিতিতে সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছে শহরের অতি দরিদ্র জনগণ। কিন্তু দরিদ্র জনগণের দুর্ভোগ লাঘব করার জন্য ইতিমধ্যেই সরকার যথাসম্ভব সবধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। তারপরও সরকারের একার পক্ষে এ ধরনের পরিস্থিতি সামাল দেয়া বেশ কষ্টসাধ্য। তাই অতি দরিদ্র জনগোষ্ঠীর দুর্ভোগ লাগবে সাজেদা ফাউন্ডেশন ও কনসার্ন ওয়ার্ল্ডওয়াইড বাংলাদেশ এর মতো সংস্থাগুলো এগিয়ে এসেছে, যা প্রশংসনীয় ও সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য।’

দেশের অর্থনীতি স্থিতিশীলতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে সারা পৃথিবীর অর্থনীতি আজ বিপর্যস্ত। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যুগোপযোগী সিদ্ধান্তের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতি স্থিতিশীলতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আশা করছি, অদূর ভবিষ্যতে দেশের অর্থনীতি পুনরায় গতিশীলতা ফিরে পাবে।’

ওয়ার্ল্ডওয়াইড-বাংলাদেশ এর হেড অফ আরবান প্রোগ্রাম জাকির আহমেদ খান বলেন, ‘দেশের এই সংকটকালে সুবিধা বঞ্চিতদের জন্য এই জরুরি সহায়তা প্রদান করতে পেরে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত। আশা করি এই উদ্যোগ কোভিড-১৯ এ ক্ষতিগ্রস্ত অতি দরিদ্র পরিবারগুলোকে করোনা মোকাবিলায় সহায়তা করবে।’

আইরিশ এইড এর আর্থিক সহায়তায় কানসার্ন ওয়ার্ল্ডওয়াইড-বাংলাদেশ, সাজেদা ফাউন্ডেশন, সীপ ও নারী মৈত্রী যৌথভাবে পথশিশু, সুবিধাবঞ্চিত বস্তিবাসী, আদিবাসীদের জীবনমান উন্নয়নে ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে 'ইম্প্রভিং দ্যা লাইভস অব আরবান এক্সট্রিম পুওর (আইএলইউইপি)’ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে আসছে। নগরের চিহ্নিত অতি দরিদ্র মানুষদের করোনা মহামারির তীব্র প্রভাব মোকাবেলা করতে এই কর্মসূচিকে নতুনভাবে পুনর্বিন্যাস করে কর্মসূচির আওতায় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এলাকার পাঁচ হাজার ২০০ অতি দরিদ্র পরিবারের প্রত্যেককে নগদ তিন হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। পুরোপুরি অনুদান হিসেবে প্রদান করা এই অর্থ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের এলাকায় তিন হাজার ৫০০ অতি দরিদ্র পরিবারের মাঝে প্রদান করা হবে।

ডিজিটাল পেমেন্ট প্ল্যাটফর্ম নগদ এর মাধ্যমে অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতি দরিদ্র পাঁচটি পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণের মাধ্যমে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে এ সময় ডিএসসিসি'র প্রধান বস্তি উন্নয়ন কর্মকর্তা এ.কে.এম লুৎফুর রহমান সিদ্দীক, সাজেদা ফাউন্ডেশনসহ সংশ্লিষ্ট অংশীজন সংস্থাসমূহের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

(ঢাকাটাইমস/০৯জুলাই/কারই/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :