ডিএসসিসিতে জমাই পড়েনি ‘টাকা দিয়ে মশা মারা’র আবেদন

কাজী রফিক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৪ জুলাই ২০২০, ১১:৪৬

নির্দিষ্ট পরিমাণ ফি প্রদান করে মশা মারার কার্যক্রমে সাড়া পড়েনি ঢাকা দক্ষিণ নগরবাসীর। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) পহেলা জুলাই অনলাইনে আবেদন করে নির্দিষ্ট ফি দিয়ে মশক নিধনের ওই কার্যক্রম চালুর ১৩ দিনে একটি আবেদনও জমা পড়েনি।

ওই কার্যক্রমের ক্ষেত্রে জমির পরিমাণ ও ভবনের উচ্চতার ভিত্তিতে ফি নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। বলা হয়, নাগরিকদের আবেদনের তিন দিনের মধ্যে এই সেবা দেওয়া হবে। কিন্তু কার্যক্রমটি শুরুর প্রায় দুই সপ্তাহ পরেও টাকা খরচা করে মশা নিধনে কোনো আবেদন জমা পরেনি।

ডিএসসিসির সহকারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মীর মোস্তাফিজুর রহমান ঢাকা টাইমসকে জানান, নগরকে মশকমুক্ত রাখতে ওয়ার্ডভিত্তিক সিটি করপোরেশনের রুটিন কার্যক্রম চলমান রয়েছে। পাশাপাশি মশক নিধনে বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘করপোরেশনের আওতাভুক্ত অভিজাত এলাকার এ্যাপার্টমেন্টগুলো ব্যক্তিগত জনবলের সংকট রয়েছে। এসব অ্যাপার্টমেন্ট মালিকরা যদি মশক নিধনের ক্ষেত্রে সিটি কপোরেশনের সেবা নিতে চান, সে ক্ষেত্রে অনলাইন আবেদনের ভিত্তিতে তারা যেন সেবা নিতে পারেন, তাই কার্যক্রমটা চালু করা হয়েছিল।

এখনো কোনো আবেদন জমা না পড়ার বিষয়ে মীর মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘এটি আমাদের মাননীয় মেয়রের একটি বিশেষ উদ্যোগ ছিল। আমাদের রুটিন কাজের পাশাপাশি কেউ যদি এ সেবাটা নিতে চায়।’

‘ঢাকা শহরের অনেক অভিজাত এলাকায় অনেক অ্যাপার্টমেন্ট আছে। কেউ যদি মনে করে তার লোক নেই, তিনি এ সার্ভিসটা নিতে পারে। এ চিন্তাকে সামনে রেখে আমরা এ সেবাটা চালু করেছি। তবে এখন পর্যন্ত আমরা কোনো আবেদন পাইনি।’

পহেলা জুলাই ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস অনলাইনের মাধ্যমে এই সেবা উদ্বোধন করেন। সেসময় তিনি বলেছিলেন, ‘কারও বাসাবাড়িতে বা বেজমেন্টে মশার লার্ভা বা লার্ভার বিস্তারক্ষেত্র রয়েছে কি না, সেটা আমাদের পক্ষে জানা সম্ভব নয়৷ এ জন্য অনলাইনে আবেদনের ভিত্তিতে মশার প্রজননস্থলে কীটনাশক ছিটানোর উদ্যোগ নিয়েছি। আশা করি, এর মাধ্যমে ঢাকাবাসীকে ডেঙ্গুর প্রকোপ থেকে মুক্তি দিতে পারব।’

তবে মশক নিধন সিটি করপোরেশনের প্রধান কাজের একটি হওয়ায় এক্ষেত্রে টাকা খরচ করে কেন নাগরিক সেবা নিতে হবে সেই প্রশ্নও তুলেছেন অনেকে। যদিও সিটি করপোরেশন আইন, ২০০৯–এর চতুর্থ তফসিলের ২৩ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, করপোরেশন কোনো বিশেষ কাজ করলে এ জন্য ফি নির্ধারণ করতে পারে।

উল্লেখ্য, অনলাইন আবেদনে মশক নিধনের সেবা পেতে তিন কাঠা পর্যন্ত এক ইউনিট বাড়ির ক্ষেত্রে (৫ তলা পর্যন্ত) ২ হাজার টাকা। ৩ থেকে ৫ কাঠা পর্যন্ত ফ্ল্যাট বাড়ির (প্রতি ফ্লোর) ২ হাজার ৫০০ টাকা। ৫ থেকে ১০ কাঠা পর্যন্ত অ্যাপার্টমেন্ট ১০ তলা পর্যন্ত (প্রতি ফ্লোর) ৩ হাজার ৫০০ টাকা। অ্যাপার্টমেন্ট ১০ তলার ওপরে বেজমেন্টসহ ৫ হাজার টাকা এবং বাণিজ্যিক ভবনের ক্ষেত্রে ৮ হাজার টাকা ফি নির্ধারণ করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন।

(ঢাকাটাইমস/১৪জুলাই/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :