বৃহত্তর যশোরের উন্নয়নে যেদিকে নজর দিতে হবে

​শাহিন রেজা
| আপডেট : ২২ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:১৭ | প্রকাশিত : ২২ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:১৪

দেশের দক্ষিণাঞ্চলের জেলা যশোর অবিভক্ত বাংলার প্রথম জেলা। মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মভূমি যশোর নকশী কাঁথা, খেজুরের রস, গুড় ও পাটালির জন্য বিখ্যাত। ১৭৮১ সালে প্রতিষ্ঠিত যশোর জেলার পুরাতন বিবরণ রয়েছে টলেমির মানচিত্রে এছাড়াও মহাভারত পুরান ও বেদে'তে এ অঞ্চলের কথা উল্লেখ রয়েছে। এসব কিছুর মাধ্যমে বোঝা যায় যশোর একটি অতি প্রাচীন জনপদ। বর্তমান বিভাগীয় শহর খুলনা বৃটিশ আমলে যশোর জেলার একটি মহাকুমা ছিলো। প্রাচীন সময় থেকেই শিক্ষা সংস্কৃতিতে যশোরের নাম সুপরিচিত ছিল দেশ-বিদেশের মানুষের কাছে। উপমহাদেশে প্রথম যে চারটি স্কুল প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল তার মধ্যে যশোর জেলা স্কুল একটি।

এখানে রয়েছে শতাব্দীর প্রাচীন পৌরসভা। স্বাধীনতা যুদ্ধের গৌরবান্বিত ইতিহাস রয়েছে বৃহত্তম যশোরের। প্রথম শত্রুমুক্ত জেলা যশোর। এছাড়াও বৃহত্তর যশোরে দুই জন বীরশ্রেষ্ঠের জন্মস্থান। বৈদেশিক বাণিজ্য বিশেষ অবদান রাখছে জেলাটির। জেলার বেনাপোল স্থল বন্দর দিয়ে ভারতের সাথে পণ্য আমদানি রপ্তানির করা হয়। যশোরের গদখালি কে বলা হয় ফুলের রাজধানী। কপোতাক্ষ নদের জন্য বিখ্যাত এ জেলাতে কবি, সাহিত্যিক, রাজনৈতিক নেতা, সুধিজন সবই আছে। কিন্তু নানা কারনে এ জেলার কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন হয়নি!

কোন অঞ্চলের সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড চর্চায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অবদান অনেক বেশি থাকে কারন সংস্কৃতি ও মুক্তবুদ্ধি চর্চার কেন্দ্র বিন্দু ধরা হয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে কিন্তু দুঃখ জনক হলেও সত্য কয়েক বছর আগে এখানে বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে! বৃহত্তর প্রাচীন একটি জেলা শহরে নবীন বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ! এই ব্যাপারটা ভাবতে বেশ আশাহত করে আমাদের। রাজধানী শহর ঢাকা থেকে রেল যোগাযোগও খুব বেশি উন্নত না। ঢাকা থেকে যশোর হয়ে খুলনার মধ্যে মাত্র দুইটি ট্রেন চলাচল করে। যশোরে বিমান প্রশিক্ষণ একাডেমি থাকলেও বিমানবন্দর আন্তর্জাতিক মানের নয়।

বৃহত্তর যশোরে জাতীয় ক্রিকেট দলের দুই জনপ্রিয় খেলোয়ার সাকিব আল হাসান ও মাশরাফি বিন মুর্তজা'র বাড়ী, চলচিত্র জগতের সুচন্দা, ববিতা, চম্পা, রিয়াজ সঙ্গীতাঙ্গনের মনির খান প্রনব ঘোষ বৃহত্তর যশোরের মানুষ। যশোরের উদীচীর কথা সারা দেশের মানুষ জানে। দেশের বৃহত্তম সিনেমা হল এই যশোরেরই 'মনিহার' সিনেমা হল। ফলে সংস্কৃতি চর্চা ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে যশোর যে কোন অঞ্চলের থেকে এগিয়ে রয়েছে। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন কি হয়েছে যশোরে? ইতিহাস ঐতিহ্যে ভরপুর এ জেলা নিয়ে কেন সুষ্ঠু পরিকল্পনা নিতে পারছিনা আমরা?

প্রথম ডিজিটাল জেলা, আইটি পার্ক প্রতিষ্টিত হলেও খুলনা বিভাগের একমাত্র বিমানবন্দর এখনো আন্তর্জাতিক মানের হয়নি। শুধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কেন এখানে প্রতিষ্ঠিত হলো? কেন এখানে সাধারণত বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়নি? যশোরকে বলা হয় ক্রিকেট ও সংস্কৃতি চর্চার উর্বর ভূমি কিন্তু এখানে নেই কোন আন্তর্জাতিক মানের স্টেডিয়াম ও সিনেপ্লেক্স।

যশোরের বিখ্যাত মনিহার সিনেমা হল তার জৌলুশ হারিয়েছে ইতোমধ্যে! বৃহত্তর যশোরের মহেশপুর উপজেলায় রয়েছে এশিয়ার বৃহত্তম কৃষি খামার। দেশের বিভিন্ন স্থানে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্টিত হলেও কেন এখানে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে না? মাইকেল মধুসূদন দত্ত ও লালন শাহের নামে সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয় কবে হবে? কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি করতে দেশের বিভিন্ন স্থানে ইপিজেড তৈরি করা হলেও যশোরের এখনো পর্যন্ত ইপিজেড তৈরি হয়নি। কোন অঞ্চলের উন্নয়ন করতে হলে একটা পরিকল্পনা নিয়ে এগোতে হয়। তবে কি আমাদের পরিকল্পনার অভাব রয়েছে?!

যখন যে সরকার ক্ষমতায় এসেছে এই বৃহত্তর যশোরের মানুষ তাদের ভোট দিয়েছে। কিন্তু মন্ত্রী পরিষদের এ অঞ্চলের সংসদ সদস্যদের সংখ্যা খুবই কম। বর্তমানে জাতীয় নেতাও নেই এখানে তেমন! ফলে উন্নয়নে খুব বেশি এগোতে পারছে না যশোর। সারা দেশে সরকার উন্নয়ন কর্মকান্ড চালাচ্ছে। বৃহত্তর যশোরের দিকে সরকার একটু সুনজর দিবে আমরা এমনটা প্রত্যাশা করি।

যশোরে ইপিজেড তৈরি কথা চিন্তা করছে সরকার এটি দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। এর ফলে অনেক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে। মহেশপুরে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি করে কৃষি ক্ষেত্রে নতুন নতুন গবেষণার দ্বার উন্মোচন করতে হবে যার মাধ্যমে কৃষি সেক্টরের উন্নয়ন করা সম্ভব হবে। মধুসূদন দত্ত ও লালন শাহের নামে যশোর ও ঝিনাইদহে দুইটি সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি করা সময়ের দাবি। যশোর মেডিকেল কলেজ কে বিশ্ববিদ্যালয়ে রুপান্তর এবং একটি সাধারন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে হবে যশোরে।

যশোর অঞ্চলে সাংস্কৃতিক চর্চা ত্বরান্বিত করতে সিনেপ্লেক্স, নাট্যমঞ্চ ও ফিল্ম সিটি তৈরি করতে হবে। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে নাটক ও নাট্যতত্ত্ব, সংগীত, নৃত্য বিভাগ খুলতে হবে। এছাড়া ইসলামীক জ্ঞান চর্চায় বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে আধুনিক ইসলামিক ইনস্টিটিউট চালু করতে হবে। এর ফলে সঠিক ধর্মের চর্চা ও সাংস্কৃতিক বিকাশ ঘটবে যার মাধ্যমে উগ্র জঙ্গিবাদ নির্মূল করা যাবে এবং অসাম্প্রদায়িক চেতনার নাগরিক তৈরি করা সম্ভব হবে।

যশোরে আন্তর্জাতিক মানের স্টেডিয়াম ও বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানের বিমানবন্দরে রুপান্তর করতে হবে। ফলে দেশ বিদেশের মানুষ সহজেই এ অঞ্চলে আসতে পারবে। এই বিমানবন্দর ব্যবহার করে সুন্দরবন ও বাগেরহাটের ষাটগম্বুজ মসজিদে বিদেশি পর্যটকদের আনাগোনা বৃদ্ধি করা সম্ভব হবে। যশোর পৌরসভাকে সিটি কর্পোরেশনে রূপান্তর, বিভিন্ন গবেষণা ইনন্টিটিউট তৈরি, গ্যাস সরবরাহ, ঢাকা টু যশোর হয়ে খুলনা এবং বেনাপলের মধ্যে রেলের সংখ্যা বৃদ্ধি, শিল্পকারখানা তৈরি করে বৃহত্তর যশোরের উন্নয়ন সম্ভব।

এছাড়া অতিদ্রুত পদ্মা সেতুর কাজ শেষ করে সড়ক ও রেল পথে যশোরের সাথে রাজধানী শহরের যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত করতে হবে। যশোরের সাথে পার্শ্ববর্তী জেলা ও অন্যান্য বিভাগীয় শহরের রেল ও সড়ক পথের যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নয়ন করতে হবে। সরকারী ও বেসরকারী বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করে পরিকল্পিত উন্নয়ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে যশোরকে একটি আধুনিক এবং শিক্ষা ও সংস্কৃতি বান্ধব শহরে পরিণত করা সম্ভব।

লেখক: সাবেক শিক্ষার্থী, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

সংবাদটি শেয়ার করুন

পাঠকের অভিমত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :