ডা. বুলবুল হত্যার দেড় মাসেও প্রধান হোতা অধরা!

আবদুল হামিদ, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৪ মে ২০২২, ২০:২৬ | প্রকাশিত : ১৪ মে ২০২২, ০৮:০২

ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে চিকিৎসক বুলবুল আহমেদের নিহত হওয়ার এক মাস ১৬ দিন পার হয়ে গেলেও প্রধান হোতা রিপন এখনো ধরা-ছোঁয়ার বাইরে। তবে মামলার তদন্ত কর্মকর্তারা বলছেন, খুব শিগগির তাকে গ্রেপ্তার করা হবে।

এই মামলায় গ্রেপ্তার চারজনকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসে রিপনের নাম। ছিনতাই চক্রটির প্রধান রিপনই ডা. বুলবুলকে ছুরি মারেন বলে জানান তারা।

বুলবুল হত্যাচক্রের প্রধান রিপন এখনো ধরা না পড়ায় এই মামলার তদন্ত ও বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কার কথা জানান বুলবুলের স্ত্রী শাম্মী আক্তার।

গত ২৭ মার্চ ভোরে কাজীপাড়া মেট্রোরেলের সাত নম্বর স্টেশনের নিচে ২৭৮ নম্বর পিলারের কাছে ডা. বুলবুলকে ছুরিকাঘাত করে মোবাইল ফোন নিয়ে চলে যায় দুর্বৃত্তরা। এতে মারা যান বুলবুল। ওই দিনই তার স্ত্রী শাম্মী আক্তার বাদী হয়ে মিরপুর মডেল থানায় অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করছে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) মিরপুর বিভাগ।

ডিবির এক কর্মকর্তা জানান, বুলবুল হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পাঁচজন ছিনতাইকারী জড়িত বলে শনাক্ত হয়েছে। সিসিটিভির ফুটেজ দেখে ইতিমধ্যে চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনার মূল হোতাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

জানা গেছে, বুলবুল হত্যার ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এখনো হাতে পায়নি ডিবি। ডিবির মিরপুর বিভাগের ডিসি মানস কুমার পোদ্দার ঢাকাটাইমসকে বলেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে বিষয়টি আরও পরিষ্কার হবে।

এই মামলায় গত ৩০ মার্চ যে চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তাদের রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে চক্রের প্রধান রিপনের নাম বেরিয়ে আসে বলে জানান মানস কুমার পোদ্দার। ঢাকাটাইমসকে তিনি বলেন, এই ছিনতাই চক্রের প্রধান রিপনই চিকিৎসক বুলবুলকে ছুরি মারে।

প্রধান হোতা রিপন ধরা না পড়ায় বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে ডা. বুলবুলের স্ত্রী শাম্মী আক্তার ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডের এত দিন পার হয়ে গেলেও প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। এখন সুষ্ঠু বিচার নিয়ে আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে।’ তবে ডিবির তদন্তের ওপর আস্থা আছে বলে জানান তিনি।

প্রথম থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বুলবুল হত্যার ঘটনাকে ছিনতাইকারীর কাজ বলে ধারণা করে আসছে। তবে বুলবুলের স্ত্রী শাম্মী আক্তার অভিযোগ করে আসছেন, এটা পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। তার স্বামী যে ঠিকাদারির কাজ করেন তার সঙ্গে এর যোগসূত্র রয়েছে। ঠিকাদারির কাজেই ২৭ মার্চ ভোরে নোয়াখালী উদ্দেশে রওনা হয়েছিলেন বুলবুল।

গ্রেপ্তার চারজনের জিজ্ঞাসাবাদের বরাতে এক তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, ছিনতাইকারীরা ওই দিন ভোরে ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে মেট্রোরেল স্টেশনের নিচে অবস্থান নেয়। বুলবুলের রিকশা থামিয়ে তাকে সবকিছু দিতে বলে তারা। এতে বাদানুবাদ হলে ওই চিকিৎসককে ছুরি মারে রিপন। পরে মানুষজন চলে আসায় সটকে পড়ে তারা।

খুব শিগগির অন্য আসামিকে গ্রেপ্তার করে মামালার তদন্তকাজ শেষ করতে পারবেন বলে জানান ডিসি মানস কুমার পোদ্দার। গ্রেপ্তার চারজন রিমান্ড শেষে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। বর্তমানে তারা জেলহাজতে রয়েছেন।

রংপুর শহরের কোতোয়ালি ভগিবালাপাড়া গ্রামের আব্দুস সামাদ ও বুলবুলি সামাদ দম্পতির দুই ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে সবার বড় ছিলেন বুলবুল। ২০০৮ সালে দিনাজপুরের মেয়ে শাম্মী আক্তারের সঙ্গে বিয়ে হয় তার। তাদের কোল জুড়ে আসে মেয়ে আয়ন ও ছেলে সামী। পরিবার নিয়ে পশ্চিম শেওড়াপাড়া আনন্দবাজার এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন ডা. বুলবুল। ডা. বুলবুলকে হারিয়ে তার পরিবার এখনো শোকগ্রস্ত। গত ঈদে কোনো আনন্দ ছিল না শাম্মী ও বুলবুলের বাড়িতে। ২০০৮ সালে বিয়ে হওয়ার পর থেকে কোনো ঈদ একা করেননি শাম্মী। এবার তাই করতে হলো।

শাম্মী আক্তার বলেন, ‘ওর (বুলবুল) একটা ভালো অভ্যাস ছিল, সে তার সব ব্যস্ততার মধ্যেও পরিবারের সাথে ঈদ করতে রংপুর শহরের কোতোয়ালি ভগিবালাপাড়া গ্রামের বাড়িতে আসতেন। এই সময় গ্রামের সবার খোঁজখবর নিতেন। এছাড়া গ্রামে ঈদের ছুটিতে এসে অনেকেরই ফ্রি চিকিৎসা দিতেন। এবার গ্রামে ছিল শোকের আবহ।’ ডা. বুলবুল গত ২৭ মার্চ ভোরে নোয়াখালী যাওয়ার জন্য রাজধানীর শেওড়াপাড়ার বাসা থেকে বেরিয়ে রিকশায় করে যাচ্ছিলেন মিরপুর বাসস্ট্যান্ডে। কিন্তু কাজীপাড়া মেট্রোরেলের সাত নম্বর স্টেশনের নিচে ২৭৮ নম্বর পিলারের কাছে পৌঁছালে তার গতিরোধ করে কয়েকজন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি। তাকে ছুরিকাঘাত করে মোবাইল ফোন নিয়ে চলে যায় তারা।

(ঢাকাটাইমস/১৪মে/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিশেষ প্রতিবেদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :