লাখো মানুষের শ্রদ্ধায় বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুনুর রশিদ খানের দাফন সম্পন্ন

নরসিংদী প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০১ জুন ২০২৩, ২১:৩২

নরসিংদীর শিবপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন অর রশিদ খানকে বৃহস্পতিবার বিকালে মজলিসপুরস্থ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এর আগে রাজধানী ঢাকার এবারকেয়ার হাসপাতাল থেকে তার লাশ শিবপুরে নিয়ে আসা হলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, মুক্তিযোদ্ধাসহ সর্বস্তরের লোকজন তাকে দেখতে ভীড় জমায়। তার লাশ দেখে অনেকেই কান্নায় ভেঙে পরেন।

মজলিসপুরে জানাজার পূর্বে বক্তব্য দেন- পলাশ থেকে নির্বাচিত এমপি ডা. আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ, শিবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মহসিন নাজির, সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম ভূইয়া রাখিল, মরহুম হারুনুর রশিদ খানের ছেলে আমিনুর রশিদ খান তাপস, মরহুম রবিউল আউয়াল কিরন খানের ছেলে ফজলে রাব্বি খান, তার ভাতিজা অমীত খান প্রমুখ।

এর আগে শিবপুর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য, গত ২৫ ফেব্রুয়ারি সকালে শিবপুরে তার নিজ বাসায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে আহত হয়ে ৪১ দিন পর চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় গত বুধবার (৩১ মে) বিকেল ৫টায় ঢাকার এভারকেয়ার হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন তিনি। এদিকে হারুনুর রশীদ খানের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা শিবপুর বাসস্ট্যান্ড, কলেজগেট বাসস্ট্যান্ড, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ইটাখোলা, কামারটেক, চৈতন্যা, সৃষ্টিঘর এলাকায় বিক্ষোভ করেন। এক পর্যায়ে সৃষ্টিঘর এলাকায় টায়ারে আগুন দিয়ে প্রায় দুই ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে বিক্ষুব্ধ জনতা। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং পরে ভারতের দিল্লিতে চিকিৎসা নেন হারুনুর রশিদ খান। হৃদরোগ ও মূত্রনালিতে সংক্রমণসহ শ্বাসকষ্ট নিয়ে গত ৭ মে তাঁকে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ১৯ মে রাত ১০টার দিকে তাঁর অবস্থার অবনতি হলে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার বিকাল ৫টায় তিনি মারা যান।

উপজেলা চেয়ারম্যানকে গুলির ঘটনার ২৫ ফেব্রুয়ারি রাতেই নরসিংদী জেলা পুলিশ সন্দেহভাজন হিসেবে চারজনকে আটক করে। ঘটনার দুই দিন পর চেয়ারম্যানের ছেলে মো. আমিনুর রশীদ খান তাপস বাদী হয়ে পুটিয়া এলাকার আরিফ সরকারকে প্রধান আসামি করে ছয়জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাতনামা ১০ থেকে ১২ জনকে আসামি করে শিবপুর মডেল থানায় মামলা করেন।

মামলার আসামিরা হলেন- পুটিয়া ইউনিয়নের কামারগাঁওয়ের আরিফ সরকার (৪০), একই এলাকাল ইরান মোল্লা (৩০) ও হুমায়ুন (৩২), পূর্ব সৈয়দনগর গ্রামের মো: মহসীন মিয়া (৪২), মুনসেফেরচর গ্রামের শাকিল (৩৫) ও নরসিংদী শহরের ভেলানগরের গাড়িচালক নূর মোহাম্মদ (৪৮)। তাঁরা স্থানীয় এমপি জহিরুল হক ভূঞা মোহন ও তাঁর ছোট ভাই জেলা যুবলীগের সহসভাপতি জোনায়েদুল হক ভূঞা জুনুর ঘনিষ্ঠ বলে জানিয়েছে বাদীপক্ষ।

মামলার পর পুলিশ এজাহারের ৬ নম্বর আসামি নূর মোহাম্মদ এবং ৪ নম্বর আসামি শাকিলকে গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন নূর মোহাম্মদ। ঘটনার পর থেকে প্রধান আসামি আরিফ সরকার, মহসীন, ইরান মোল্লা ও হুমায়ুন পলাতক রয়েছেন। তারা বর্তমানে দুবাইয়ে অবস্থান করছেন বলে দাবি পুলিশের।

(ঢাকাটাইমস/০১জুন/এসএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশ এর সর্বশেষ

কুমিল্লায় স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যা 

ভারত সীমান্তের ভেতরে পড়ে থাকা কিশোরের গলাকাটা লাশ হস্তান্তর

নগরকান্দায় জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক লায়েকুজ্জামানের স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিল

সোনারগাঁয়ে অবৈধভাবে প্রাকৃতিক গ্যাস সিলিন্ডারে ভরার সময় বিস্ফোরণ, আহত ব্যক্তির মৃত্যু

পরিবেশ, সেতু, বসতবাড়ি ও স্থাপনা রক্ষায় যাদুকাটার ইজারা বন্ধের আবেদন

মিয়ানমার সীমান্তে পূর্বের মতো পরিস্থিতি আর হবে না: প্রত্যাশা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর 

টেনিস বল খেলতে গিয়ে ছাদ থেকে পড়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু

সোনারগাঁ সরকারি কলেজের হিসাব রক্ষকের ওপর সন্ত্রাসী হামলা

অবৈধ মজুতদাররা দেশের শত্রু: খাদ্যমন্ত্রী 

মধুখালীতে অসহায় পরিবারের পাশে স্বপ্নের শহর মধুখালী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :