আপনি কি খুঁতখুঁতে

ফিচার ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ১৯ জানুয়ারি ২০১৯, ১৫:২১

সাফল্যের অন্যতম শর্ত হলো যথাসম্ভব নিখুঁতভাবে কাজ করার চেষ্টা করা। কিন্তু তা যদি বাড়াবাড়ির পর্যায়ে চলে যায় তা হলে? খুঁতবিহীন কাজ করতে গিয়ে কাজটাই শেষমেশ করা হয়ে না ওঠে। ব্যর্থতা তো আসেই, জীবনযাপনও দুরূহ হয়ে পড়ে। এই অভ্যাস থেকেই জন্ম নেয় অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিসঅর্ডার। কাজেই আপনি ঠিক পথে চলেছেন না বাড়াবাড়ি করে ফেলছেন, তা বুঝে নেওয়া বেশ জরুরি।

বাতিকগ্রস্ত হয়ে পড়া বা অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিসঅর্ডারের হাত থেকে বাঁচতে খতিয়ে দেখুন নিজের মধ্যেই কখনো এই অসুখের লক্ষণ প্রকাশ পাচ্ছে না তো? জানেন এমন মানসিক অসুখের প্রাথমিক লক্ষণ কি কি?

বাতিকগ্রস্ত হওয়ার লক্ষণ
কাজ হবে নিখুঁত। সে রান্না হোক কী অফিসের কাজ, বাচ্চা মানুষ করা হোক কী ঘর গোছানো।

অন্যদেরও একইভাবে কাজ করতে হবে। না হলেই মনে হবে তারা অযোগ্য। বেশির ভাগ অশান্তির সূত্রপাত হয় এ নিয়ে।

লক্ষ্যমাত্রা সব স্থির করা আছে। ছেলেমেয়েকে পরীক্ষায় প্রথম হতে হবে, স্ত্রীকে রান্না করতে হবে ঠিক মনের মতো করে, অফিসে বসের চেয়ার পেতে হবে তাড়াতাড়ি ইত্যাদি। চাহিদা পূরণ না হলে রাগ, অশান্তি, হতাশা, অপরাধবোধ দেখা দেয়।

তখন ভালো কাজ করেও সন্তুষ্টি আসে না। কাজ শেষ করার চেয়ে নিখুঁতভাবে করার দিকেই মন বেশি থাকে।
ছোট সমস্যা বড় হয়ে মানসিক অশান্তির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এই লক্ষণগুলোর মধ্যে কয়েকটিও যদি নিজের মধ্যে দেখেন, তা হলে বাড়াবাড়ি হওয়ার আগে, অর্থাৎ অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিসঅর্ডার নামে রোগের কবলে পড়ার আগেই কিছু নিয়ম মেনে চলুন। তাতে সমাধান না হলে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

চিকিৎসকদের মতে, জীবনের সব লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হয় না, এই সত্য মানতে হবে।

(ঢাকাটাইমস/১৯জানুয়ারি/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :