শেয়ারবাজারে বড় দরপতন

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ২১:৫৯ | প্রকাশিত : ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ১৯:১৫

বাজারে টানা দরপতনের মধ্যে পুঁজিবাজার ‘ঠিকই আছে’ অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের এমন বক্তব্যের পর বড় দরপতন হয়েছে। মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের  লেনদেন ৩০০ কোটি টাকার নিচে নেমে এসেছে। বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দরই পড়ে গেছে। এর প্রতিবাদে দুপুরে বিক্ষোভ করেছেন ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা।

ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই ও সিএসই) লেনদেন অংশ নেয়া ৭৮ শতাংশ করে প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিকে, চলমান বাজার পরিস্থিতি নিয়ে সোমবার পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক ‘জরুরি বৈঠক’ শেষে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, “পুঁজিবাজার ঠিকই আছে, যে ওঠানামা হচ্ছে সেটা স্বাভাবিক।”

শেয়ারবাজারের পরিস্থিতি নিয়ে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের একটি সংগঠন আন্দোলন চালালেও এ বিষয়ে সংবাদপত্রে আসা খবর প্রত্যাখ্যান করেন অর্থমন্ত্রী।

জানা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ২৬০ পয়েন্টে। অপর দুই সূচকের মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১৬ পয়েন্ট ও ডিএসই-৩০ সূচক ২০ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১২১৫ ও ১৮৭২ পয়েন্টে।

ডিএসইতে গতকাল  টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ২৯৮ কোটি ৬২ লাখ টাকার। যা আগের দিন থেকে ৫৩ কোটি টাকা কম। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৩৫১ কোটি টাকার।

এদিন ডিএসইতে ৩৪২টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে ৩৪টির বা ১০ শতাংশের, শেয়ার দর কমেছে ২৬৭টির বা ৭৮ শতাংশের এবং শেয়ার দর অপরিবর্তিত রয়েছে ৪১টির বা ১২ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের।

ডিএসইতে টাকার পরিমাণে সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে ফরচুন সুজের। কোম্পানিটির ৩২ কোটি ৮৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ১৪ কোটি ২৮ লাখ টাকার লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে মুন্নু সিরামিক এবং ১২ কোটি ১৩ লাখ টাকা লেনদেনে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল।

টপটেন লেনদেন উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে - ইউনাইটেড পাওয়ার, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন, মুন্নু জুট স্টাফলার্স, যমুনা ব্যাংক, ন্যাশনাল পলিমার, এস্কয়্যার নিট কম্পোজিট এবং ডরিন পাওয়ার।

তিনি বলেন, ‘আপনারা তো পত্রিকায় লিখতেছেন যে পুঁজিবাজার নাই; বাংলাদেশ নাই। আমরা নাই- এরকম লেখালেখি শুরু করছেন। কোথায় সেরকম ঘটনা ঘটছে? মার্কেট কোথায় ফল করছে?

‘সূচক ৫৯০০ হয়েছিল। এখন ৫৩০০ হয়েছে। পুঁজিবাজারে সূচক এরকম শর্ট টার্ম ওঠানামা করতে পারে।’

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ১৪৯ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৬ হাজার ১২১ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৪১টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ৩৬টির, কমেছে ১৮৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টির দর। সিএসইতে ১২ কোটি ৭১ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

ডিএসইর সামনে বিক্ষোভ

দরপতনের প্রতিবাদে গতকালও মতিঝিলে ডিএসইর সামনে বিক্ষোভ করেছে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা। এ সময় তারা বিএসইসির চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে শ্লোগান দেন।

দুপর ১টায় ৪০/৫০ জন বিনিয়োগকারী বিভিন্ন বোকারেজ হাউজ থেকে ডিএসইর সামনে জড়ো নন। বেলা ২টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত তারা সেখানে বিক্ষোভ করেন।

ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের নেতা মিজানুর রশীদ চৌধুরী বলেন, ‘মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও বিএসইসির চেয়ারম্যান অবৈধভাবে দায়িত্ব পালন করছেন। খারাপ কোম্পানির আইপিও অনুমোদনের মাধ্যমে কমিশন নিচ্ছে।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :