হার্ট সুরক্ষায় আতা!

ফিচার প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ জানুয়ারি ২০২০, ১৪:১৬

বিশিষ্ট পুষ্টি বিশেষজ্ঞ রুজুতা দিয়েকর জানিয়েছেন সুমিষ্ট ফল আতার গুণাগুণ। ফলটি পটাশিয়াম ম্যাগনেশিয়ামে ভরপুর। ডায়াবেটিকদের জন্যেও এটি ভালো এতে গ্লাইসেমিকের মাত্রা মাত্র ৫৪। তাই নিশ্চিন্তে এই ফল খেতে পারেন সুগারের রোগীরা। এছাড়া অম্বল কমানো ও সুগার নিয়ন্ত্রণেও কাজ করে আতা।

বাচ্চার কিসে পুষ্টি হবে, এই ভেবে হয়রান? সহজ সমাধান আতা। ভিটামিন সি, এ, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়ামে সমৃদ্ধ এই ফল একসঙ্গে মগজ, দৃষ্টিশক্তি দুটোই ধারালো করে। শুধু বাচ্চা কেন? বড়রাও এই ফল নিয়মিত খেতে পারেন। এমনকি ডায়াবেটিসের রোগীদের জন্য এই ফল উপকারী।

ডায়াবেটিকদের জন্য

পুষ্টিবিদ রুজুতা বলেছেন, এতে গ্লাইসেমিকের মাত্রা মাত্র ৫৪। তাই নিশ্চিন্তে এই ফল খেতে পারেন সুগারের রোগীরা।

হৃদরোগীদের ক্ষেত্রে

এর মধ্যে থাকা ভিটামিন সি, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম হৃদয়ের যত্ন নেয়। তাই হৃদরোগেও আতা খাওয়া যায়।

হজমশক্তি বাড়ায়

যাদের ওবেসিটি আছে তারা অনেকেই আতা ফল এড়িয়ে চলেন। এটা একদম ভুল। বরং এর মধ্যে থাকা ভিটামিন বি কমপ্লেক্স হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। এতে অম্বল কমে। দ্রুত হজম হয়। এছাড়া ওজন কমাতেও সাহায্য করে।

 নারীদের PCOD কমায়

যেসব মহিলা PCOD-তে ভোগেন তাঁদের কাছে অমৃত ফল আতা। পাশাপাশি রাগ-বিরক্তি-ক্লান্তি কমায়। গর্ভধারণের সমস্যা মেটায় আতা।  দৃষ্টিশক্তি বাড়াতেও কার্যকর ভূমিকা পালন করে এই আতা ফল।

ঢাকাটাইমস/১৮জানুয়ারি/এসএস
 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :