রাজমিস্ত্রী কাজের আড়ালে চুরি, দেখে ফেলায় বৃদ্ধাকে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৬ এপ্রিল ২০২১, ১৬:২১

ঢাকা জেলার সাভার উপজেলার ক্লুলেস চাঞ্চল্যকর ফাতিমা হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করেছে র‌্যাব। এ সময় হত্যার সঙ্গে জড়িত দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা পেশায় রাজমিস্ত্রী হলেও এর আড়ালে চুরি করে বেড়াতেন তারা।

শুক্রবার দুপুরে র‌্যাব-৪ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। হত্যায় অভিযুক্তরা হলেন নওগাঁ জেলার রবিউল মির্জা ও গাইবান্ধা জেলার কামরুল ইসলাম।

র‌্যাব জানিয়েছে, চলতি বছরের গত ৭ এপ্রিল সাভার উপজেলার বিরুলিয়ায় এলাকার বাসিন্দা বৃদ্ধা ফাতেমা বেগমকে নিজ বাসায় হত্যা করে পালিয়ে যায় অজ্ঞাতরা। হত্যার দুই দিন পর নিহতের ছেলে বাসায় এসে বাথরুমের পাশ থেকে তার মায়ের গলিত লাশ দেখতে পান। পরে সাভার থানার পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। এই ঘটনায় সাভার মডেল থানায় অজ্ঞাতনামা উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের ছেলে। পরে পুলিশের পাশাপাশি ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটনে ছায়া তদন্তে নামে র‌্যাব। এরই ধারাবাহিকতায় গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত সাভার থানার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত রবিউল মির্জা ও কামরুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এ সময় তাদের কাছ থেকে নিহতের একটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা হত্যার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।

গ্রেপ্তারকৃতরা র‌্যাবকে জানিয়েছেন, ঘটনার দিন তারা ফাতিমা বেগমের বাসার পাশের বাসায় রাজমিস্ত্রির কাজ করছিলেন। দুপুর বেলা ফাতেমা বেগমকে গোসলখানায় যেতে দেখে চুরির উদ্দেশ্যে ওই বাসায় প্রবেশ করেন। বৃদ্ধা ফাতিমা বেগম বিষয়টি দেখার পর চুরিতে বাধা দেন। এসময় হত্যাকারীরা তাকে আঘাত দিয়ে অজ্ঞান করে ফেলেন। পরবর্তীতে ঘটনাটি জানাজানি হয়ে যাওয়ার ভয়ে তারা বৃদ্ধাকে বাথরুমেই হত্যা করার পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী ঘাতক রবিউল বৃদ্ধার ঘর থেকে একটি কোদাল নিয়ে এসে এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে বাথরুমের পাশে ফেলে রাখেন। হত্যার পরে সন্দেহ এড়াতে আবার কাজ শুরু করেন হত্যাকারীরা।

র‌্যাব আরো জানিয়েছে, ঘাতক রবিউল নিহত ওই বৃদ্ধার বাসা নির্মাণের সময় রাজমিস্ত্রি হিসেবে কাজ করেছিলো। সে সূত্রে বৃদ্ধার সঙ্গে তাদের একটি পূর্ব পরিচিতি ছিলো। গ্রেপ্তারের পর হত্যা মামলার আসামি হিসেবে সাভার থানায় তাদের হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

(ঢাকাটাইমস/১৬ এপ্রিল/এআর/ইএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অপরাধ ও দুর্নীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :