ভালোবাসা দিবস কোন দেশে কোন দিন, কী রকম?

ফিচার ডেস্ক ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৩ জুন ২০২২, ১৫:৪৮ | প্রকাশিত : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১১:১২
১৪ নয়, ২৪ ফেব্রুয়ারি ভালবাসা দিবস উদ্‌যাপিত হয় রোমানিয়ায়

এই বাংলায় ভালোবাসার জন্য ছিল এক অনন্য দিন, পহেলা ফাল্গুন। এদিনে বসন্ত বরণের মাধ্যমে হৃদয়কে রাঙিয়ে নিত তরুণ-তরুণী, যুবক-যুবতীরা। আজও নেয়, আজও ফাল্গুন আসে হৃদয়ে বসন্তের দোলা দিতে। এটাই বাঙালির ঐতিহ্য। কিন্তু বিশ্বায়নের হাত ধরে ১৪ ফেব্রুয়ারির ভ্যালেন্টাইনসকেই ভালোবাসার দিবস হিসেবে ভাবতে শিখেছে বাংলার মানুষ। যে বিশ্বায়নের যাঁতায় আমাদের ফাল্গুনি এতিহ্য খাটো হচ্ছে সেই বিশ্বের সব দেশে ভালোবাসার উদ্‌যাপন কিন্তু একরকম নয়। আবার ১৪ ফেব্রুযারিও নয়, অন্য কোনো দিন বা মাসে।

জানুন কোন দেশে কীভাবে উদ্‌যাপিত হয় ১৪ ফেব্রুযারি, ভালোবাসা দিবসই বা কোন দিন-

দক্ষিণ কোরিয়া

১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসার জন্য বিশেষ দিন নয়, দেশটিতে ভালবাসা উদ্‌যাপন হয় প্রত্যেক মাসের ১৪ তারিখে। গোলাপ দিবস পালন করা হয় মে মাসে, চুম্বন দিবস জুনে এবং আলিঙ্গন দিবস এপ্রিলে।

ঘানা

ঘানায় ১৪ ফ্রেব্রুয়ারি হল জাতীয় চকোলেট দিবস। দেশটির পর্যটন বাড়ানোর জন্য এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল।

আর্জেন্টিনা

আর্জেন্টাইনরাও আমাদের মতো ভালবাসা উদ্‌যাপন করে। কিন্তু তা ফেব্রুয়ারি নয়, জুলাই মাসে। কাছের মানুষকে চকোলেট বা অন্য কোনো উপহার দেওয়ার রীতি রয়েছে এ দেশেও।

বুলগেরিয়া বুলগেরিয়ায় যারা ওয়াইন তৈরি করে, তাদের নামে উৎসর্গ করা হয়েছে ১৪ ফেব্রুয়ারিকে। তবে এদিন যুগলে বসে ওয়াইন খাওয়ার রীতি রয়েছে সেদেশে।

ডেনমার্ক

কিছুটা অভিনব কায়দায় ভালোবাসার উদ্‌যাপন করে ডেনিশরা। এদিনে ভালোবাসার মানুষকে হাতে তৈরি কার্ড দেওয়া হয়। তবে যে সে কার্ড নয়। সাদা ফুল শুকিয়ে তা কাগজে ফুটিয়ে তোলা হয়। হিন্দুদের সরস্বতীর ফুল যখন ছাত্রছাত্রীরা বইরের পাতার ফাঁকে রেখে দিত এবং তার একটা স্পষ্ট ছাপ বইয়ে পড়ত, কিছুটা তেমনই পদ্ধতিতে এই সাদা ফুলগুলো ফুটিয়ে তোলা হয় কার্ডে। এর নাম স্নোড্রপ।

রোমানিয়া

রোমানিয়ায় ভালাবাসা উদ্‌যাপন করা হয় ২৪ ফেব্রুয়ারি, ১৪ তারিখ নয়। ওই দিন বিভিন্ন যুগল বাগদান পর্ব সেরে ফেলেন। সৌভাগ্যের আশায় এ দিনে সাধারণত বরফে মুখ ধুয়ে নেন তারা।

জাপান

স্কুলজীবনে অনেক সাহস নিয়ে কাউকে উপহার দেওয়া, এরপর অপরজন তা নির্মমভাবে ফিরিয়ে দেওয়া- এরকম অভিজ্ঞতা অনেকেরই রয়েছে। এ ব্যাপারটা জাপানে অন্যভাবে ঘটে। ১৪ ফেব্রুয়ারি কোনো উপহার দিতেই পারেন পছন্দের মানুষকে। তিনি ফিরিয়ে দিতে চাইলে তাকে ১৪ মার্চ অবধি অপেক্ষা করতে হবে। সে দিন ‘হোয়াইট ডে’ পালন করা হয়।

ফ্রান্স

ফ্রান্সে ছোট একটি গ্রাম রয়েছে ভ্যালেনটাইন নামে। ১৪ ফেব্রুয়ারি সে গ্রাম সেজে ওঠে দারুণভাবে। প্রত্যেকটি বাড়ি গ্রিটিংস কার্ড, ভালোবাসার বার্তা, প্রেমের প্রস্তাব লেখা চিরকুটে সাজিয়ে তোলা হয়। লতা-পাতা ফুলও থাকে সেই ভেতর সজ্জায়। বাড়ির বাগানও সাজানো হয় এভাবে।

(ঢাকাটাইমস/১৪ফেব্রুয়ারি/এফএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :