ডায়াবেটিস থাকলে যে ফলগুলো খাওয়ার ব্যাপারে সতর্ক হতেই হবে

ঢাকা টাইমস ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ২১ জানুয়ারি ২০২৪, ১৭:৫৫

সারা বিশ্বে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা ক্রমেই বেড়েই চলেছে। ত্রুটিপূর্ণ খাদ্যাভ্যাস, মানসিক চাপ, বংশগত ধারা ইত্যাদি কারণে বহু মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। ডায়াবেটিস হলে অগ্ন্যাশয় যথেষ্ট ইনসুলিন তৈরি করতে পারে না, শরীরে উৎপন্ন ইনসুলিন ব্যবহারে ব্যর্থ হয়। রক্তে চিনি বা শর্করার উপস্থিতিজনিত অসামঞ্জস্য দেখা দেয়।

ইনসুলিনের ঘাটতিই হলো ডায়াবেটিস রোগের মূল কথা। টাইপ-২ বহুমূত্র রোগের পেছনে থাকে মূলত ইনসুলিন রেজিস্ট্যান্স। টাইপ-২ রোগীর শরীরে যে ইনসুলিন উৎপন্ন হয়, একে ব্যবহার করতে পারে না। চিকিৎসকদের পরামর্শ হচ্ছে, টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে জীবনধারায় আগে থেকেই পরিবর্তন আনতে হবে।

সুষম ও পরিমিত খাদ্যাভ্যাস, নিয়মিত ব্যায়াম, ওজন হ্রাস ইত্যাদির মাধ্যমে ঝুঁকি অনেকটাই কমিয়ে আনা যায়। খাদ্যাভ্যাসে ফল থাকার গুরুত্ব সাম্প্রতিক গবেষণার মাধ্যমে জানতে পেরেছেন গবেষকেরা।

ফলে রয়েছে ভিটামিন, অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট, ফাইবারেরে মতো স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী নানা উপাদান। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো থেকে পেটের যত্ন নেওয়া— সবেতেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ফল। তবে ডায়াবেটিস রোগীর ক্ষেত্রে ফল খাওয়াতেও সতর্কতা মেনে চলা জরুরি। রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়লে সব ফল খাওয়া যায় না। কারণ, ফলে ফ্রুক্টোজের পরিমাণ কম নয়। যা শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে।

যে সব খাবারের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জি.আই) উপরের দিকে, ডায়াবেটিস হলে সে সব খেতে বারণ করেন চিকিৎসকরা। কিছু ফলের জি.আই অনেক বেশি। তাই ডায়াবেটিস থাকলে সেই ফলগুলো একেবারে খাওয়া যাবে না। কয়েকটি ফলে জি.আই কম। সেগুলো কিন্তু নির্দ্বিধায় খেতে পারেন ডায়াবেটিস রোগীরা।

ডায়াবেটিস থাকলে ফল খাওয়ার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন। ফল খাওয়ার পাশাপাশি কতটা পরিমাণে খাচ্ছেন, সেটাও কিন্তু খুব গুরুত্বপূর্ণ। তবে গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম বলে একসঙ্গে অনেক বেশি পরিমাণে খেয়ে নিলেও চলবে না।

চিকিৎসকদের মতে, ডায়াবেটিস থাকলে প্রতিদিন ১০০-১৫০ গ্রাম ফলের বেশি খাওয়া ঠিক হবে না। জি.আই বেশি হোক বা না হোক, ফল খেলে কম করে খাওয়াই ভালো। কয়েকটি ফল রয়েছে, যেগুলো ডায়াবেটিস রোগীরা খেতে পারেন। আবার কিছু ফল রয়েছে ডায়াবেটিকস রোগীদের জন্য বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে।

আবার এমন কিছু ফল আছে যেগুলো ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে শর্করার মাত্রা অত্যধিক পরিমাণে বাড়িয়ে দেয়। তাই জেনে নিন ডায়াবেটিস রোগীদের কোন কোন ফল খাওয়ার আগে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।

আনারস

মিষ্টি-রসালো আনারস দেখলে কার না জিভে পানি আসে! তবে আপনি হয়তো জানেন না, আনারসে চিনির পরিমাণ উচ্চ থাকে! ডায়াবেটিস রোগীরা অতিরিক্ত আনারস খেলে তা ব্লাড সুগার লেভেলের ওপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। তাই আনারস বেশি না খাওয়াই ভালো।

কলা

কলার পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আমরা সবাই অবগত। তবে কলাতে কার্বোহাইড্রেট বেশি থাকে এবং কার্বোহাইড্রেট রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে তুলতে পারে। তাই ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে এই ফলটি খুব একটা উপকারী নয়। তবে মাঝেমধ্যে এক-আধটা কলা খাওয়া যেতেই পারে। কলায় প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, ভিটামিন এবং খনিজ রয়েছে।

কিশমিশ

অনেকেই হাতের কাছে কিশমিশ পেলে কয়েকটি খেয়ে ফেলেন। ভীষণ মিষ্টি স্বাদের শুকনো এই ফলটি আঙুরের আরেকটি রূপ। মায়ো ক্লিনিকের মতে, এক কাপ পরিমাণ কিশমিশে রয়েছে প্রায় ১০০ গ্রাম পরিমাণ চিনি ও ১৫ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট। বোঝাই যাচ্ছে, ডায়াবেটিস রোগীদের কিশমিশ থেকে দূরে থাকা খুবই জরুরি।

তরমুজ

তরমুজে ফাইবার এবং ক্যালোরি কম থাকে। এতে জিআই ভ্যালু হলো ৭২ এবং হাফ কাপ তরমুজে প্রায় পাঁচ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট থাকতে পারে। তাই তরমুজ ডায়াবেটিস রোগীদের বেশি না খাওয়াই ভালো।

আঙুর

আঙুরে ফাইবার, ভিটামিন এবং অন্যান্য পুষ্টিকর উপাদান থাকলেও এতে শর্করার পরিমাণও বেশ ভালোই থাকে। ৮৫ গ্রাম আঙুরে প্রায় ১৫ গ্রাম পর্যন্ত কার্বোহাইড্রেট থাকতে পারে। তাই ডায়াবেটিস রোগীদের এটি এড়িয়ে চলাই ভালো।

সবেদা

বাদামী রঙের ফল এবং দানাদার স্বাদ যুক্ত সবেদা প্রাকৃতিক মিষ্টিতে ভরপুর। প্রতি ১০০ গ্রাম সবেদায় প্রায় ৭ গ্রাম শর্করা থাকতে পারে। এতে কার্বোহাইড্রেট এবং শর্করাও উচ্চ পরিমাণে থাকে। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য এটি ক্ষতিকারক হতে পারে।

আম

আম ফলের রাজা। আমকে চোখের সামনে দেখলে লোভ সামলানো মুশকিল। তবে মনে রাখতে হবে, আমেও কিন্তু চিনির পরিমাণ উচ্চ থাকে। ১০০ গ্রাম আমে প্রায় ১৪ গ্রাম চিনি থাকে, যা রক্তে শর্করার ভারসাম্যকে আরও খারাপ করতে পারে। তাই ডায়াবেটিস রোগীদের এই ফল এড়িয়ে চলাই ভালো।

ডায়াবেটিস দূরে রাখে যেসব ফল

শীতকালে বাজারে খুব সহজেই কমলালেবু পাওয়া যায়। প্রতিদিন কমলালেবু খেলে যেমন রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে, তেমনই ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে কমলালেবু।

প্রতিদিন একটি করে আপেল খেলে অনেক রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব। অনেক রোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে আপেল। রক্তে শর্করার মাত্রাও নিয়ন্ত্রণে রাখে আপেল। এমনটাই মত বিশেষজ্ঞদের। বিভিন্ন কারণে তাই স্বাস্থ্যের উপকারে রোজকার তালিকায় আপেল রাখার পরামর্শ তাদের।

অনেকেই ব্রেকফাস্টে বেরি খেয়ে থাকেন। ওটস কিংবা কর্ন ফ্লেকসের সঙ্গে নিয়মিত বেরি খেলে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে বলে মত বিশেষজ্ঞদের। এছাড়াও নিয়মিত বেরি খেলে ঘুমও ভালো হয়।

ডায়াবেটিস রোগীদের একটি বড় সমস্যা হলো কোষ্ঠকাঠিন্য। পেয়ারার মধ্যে প্রচুর ফাইবার থাকে। এই ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য কম করতে সাহা‌য্য করে। পাশাপাশি রোগীকে টাইপ-২ ডায়াবেটিসের হাত থেকে রক্ষা করে।

পেঁপের মধ্যে থাকে প্রচুর পরিমাণে প্রাকৃতিক অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য এটি খুবই উপকারী। রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বেড়ে গেলে রোগীর হার্ট, নার্ভের সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। নিয়মিত পেঁপে খেলে তা কিছুটা রুখে দেওয়া যায়।

ডায়াবেটিসে জাম বিশেষ উপকারী। জামের মধ্যে থাকা একটি বিশেষ উপাদান খাবারের স্টার্চকে ভেঙে দেয়। ফলে রক্তে সুগারের মাত্রা ঠিক থাকে। সুগার রোগীদের ঘনঘন প্রস্রাব ও তৃষ্ণার প্রবণতা অনেকটাই কমিয়ে দেয়।

(ঢাকাটাইমস/২১জানুয়ারি/এজে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :