নড়াইলে ইজিবাইক চালক হত্যা মামলায় ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

নড়াইল প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ১৩ জুন ২০২৪, ১২:৪৬ | প্রকাশিত : ১৩ জুন ২০২৪, ১১:৫৩

নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার মাকড়াইল গ্রামের ইজিবাইক চালক পলাশ মোল্যাকে (২৫) অপহরণ করে হত্যাকাণ্ডের মামলায় তিনজনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে প্রত্যেককে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

বুধবার জেলা ও দায়রা জজ আলমাচ হোসেন মৃধা এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- নড়াইলের মাকড়াইল গ্রামের আবুল খায়ের মোল্যার ছেলে আনারুল মোল্যা, পাশের মরিচপাশা গ্রামের মোক্তার সরদারের ছেলে জিনারুল ইসলাম তারা মিয়া এবং আড়পাড়া গ্রামের আবুকার শিকদারের ছেলে নাজমুল শিকদার।

রায় ঘোষণার সময় জিনারুল ইসলাম তারা মিয়া আদালতে উপস্থিত থাকলেও অপর দুই আসামি আনারুল ও নাজমুল অনুপস্থিত ছিলেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৮ সালের ২৩ জুন সকাল ৭টার দিকে নড়াইলের মাকড়াইল গ্রামের আব্দুস সালাম মোল্যার ছেলে পলাশ মোল্যাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় আনারুল, জিনারুল এবং নাজমুল। তারা ৪০ হাজার টাকায় ইজিবাইক কিনে দেওয়ার প্রলোভনে পলাশকে অপহরণ করেন। ২৬ জুন মাগুরা সদর উপজেলার আমুড়িয়া-বাহারবাগ গ্রামের মধ্যবর্তী ধানখোলা মাঠের পাটখেত থেকে অজ্ঞাত হিসেবে একটি মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মরদেহটি মাগুরা পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের পর পলাশের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। বিভিন্ন জায়গায় খবর নিয়েও তার সন্ধান পায়নি পরিবার। এ ঘটনায় লোহাগড়া থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়।

এরপর ৮ জুলাই পুলিশ কর্তৃক উপস্থাপনকৃত মরদেহের ছবি, পরিহিত পোশাক এবং অন্যান্য আলামত দেখে পরিবার জানতে পারে অজ্ঞাত মরদেহটি পলাশ মোল্যার। শ্বাসরোধে হত্যার পর পলাশের মরদেহ কাদামাটি দিয়ে ঢেকে আলামত নষ্টের অপচেষ্টা চালায় হত্যাকারীরা।

এ ঘটনায় নিহত পলাশের ভাই আহাদ আলী বাদী হয়ে লোহাগড়া থানায় অপহরণ ও হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত তিনজনকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট এমদাদুল ইসলাম ইমদাদ বলেন, ৩০২ ধারায় হত্যাকাণ্ডের অপরাধ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় তাদের প্রত্যেককে মৃত্যুদণ্ড এবং এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া ২০১ ধারায় আলামত নষ্টের অপরাধ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় প্রত্যেককে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

অন্যদিকে ৩৬৪ ধারায় অপহরণের অপরাধ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় তাদের প্রত্যেককে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

(ঢাকা টাইমস/১৩জুন/প্রতিনিধি/এসএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

বাংলাদেশ এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :