মৃত্যু থেকে ফিরে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করেছি: কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ মে ২০১৯, ১৩:২৩

গুরুতর অসুস্থতার পর সুস্থ হয়ে আড়াই মাস পর নিজ দপ্তরে কাজে যোগ দিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসে জীবনের দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করেছি। শারীরিক ও মানসিকভাবে আল্লাহর রহমতে সুস্থ আছি।’

রবিবার সকালে সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে তিনি এসব কথা বলেন।

এর আগে সকাল ১০টার দিকে প্রায় আড়াই মাস পর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সচিবালয়ে তার অফিসে যান। এ সময় মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাকে স্বাগত জানান। মন্ত্রণালয়ে এসেই প্রকল্প কর্মকর্তা ও বিভাগীয় প্রধানদের সঙ্গে বৈঠক করেন মন্ত্রী। এছাড়া দীর্ঘদিনের যেসব ফাইল জমা হয়েছিল সেসবে সই করেন তিনি।

কাদের বলেন, ‘সোমবার দলের কেন্দ্রীয় অফিসে যাবো। ধীরে সুস্থে কাজ করতে হবে। দেড় মাস পর পুরো উদ্যোগে কাজ করতে পারবো। দলের কাউন্সিল যথাসময়ে হবে।’

গত ৩ মার্চ সকালে বুকের ব্যথা নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) ভর্তি হন ওবায়দুল কাদের। পরে উপমহাদেশের বিখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. দেবী শেঠির পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য ৪ মার্চ তাকে সিঙ্গাপুর নেয়া হয়। ওই রাতেই মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ডা. ফিলিপ কোহ’র নেতৃত্বে ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসায় একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। ২০ মার্চ ওই হাসপাতালে তার বাইপাস সার্জারি করেন মেডিকেল বোর্ডের সিনিয়র সদস্য কার্ডিওথোরাসিক সার্জন ডা. সিবাস্টিন কুমার সামি। শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে গত ২৬ মার্চ ওবায়দুল কাদেরকে হাসপাতালের আইসিইউ থেকে কেবিনে নেয়া হয়।

বাইপাস সার্জারির পর সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতাল থেকে ওবায়দুল কাদের গত ৫ এপ্রিল ছাড়পত্র পান। তিনি হাসপাতালের কাছেই একটি ভাড়া বাসায় ছিলেন। সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা শেষে গত বুধবার দুই মাস ১১ দিন পর দেশে ফেরেন ওবায়দুল কাদের। ওইদিন সন্ধ্যা ৬টার দিকে তাকে বহনকারী বিজি-০৮৫ ফ্লাইটটি হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

দীর্ঘদিন পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সেতুমন্ত্রী কথা বলেন ঈদযাত্রা নিয়ে। বলেন, ‘যানজট নিরসন, মেগা প্রকল্পের বাস্তবায়ন এগুলো এখন আমার প্রধান চ্যালেঞ্জ। দলীয় বিষয়ে পার্টি অফিসে কথা বলবো। সড়ক ব্যবস্থা আগের চেয়ে ভালো। এবার ঈদযাত্রায় কোনো ভোগান্তি হবে না। আশা করছি, এবার ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক হবে।’

প্রধানমন্ত্রীসহ দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও দেশবাসীকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন,‘চিকিৎসা নিয়ে দেশের মানুষ উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন এবং আমার চিকিৎসার আপডেট সাংবাদিকরা যেভাবে করেছেন কোনো দেশের সাংবাদিকরা এমনটা করে বলে জানা নেই। বাংলাদেশেও অতীতে এমনটা দেখিনি।’

কাদের বলেন, ‘আগামী ১৬ জুলাই সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকরা চেকআপের জন্য ডেট দিয়েছে। আমাকে যেতে হবে। ভারী কাজে বা অতিরিক্ত পরিশ্রম না করতে বারবার বলে দিয়েছে।সতর্ক অবস্থায় থাকতে হবে। আশা করি এক দেড় মাস পর আগের মতো স্বাভাবিকভাবে সব কাজ করতে পারবো। কিন্তু এখন সকাল-বিকাল বাইরে গিয়ে, রাস্তায় গিয়ে রোদ, বৃষ্টি ঝড়ের মধ্যে গিয়ে কাজ করেছি সেটা আমি একটু চিন্তাভাবনা করে করতে হবে।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আমার মনে হয় আমার এখানে টিমওয়ার্ক আছে।দলের একটা টিমওয়ার্ক আছে। তাই আমি প্রত্যক্ষভাবে সক্রিয় না হয়েও কোনো কাজের অগ্রগতি থেমে থাকবে না। ঈদকে সামনে রেখে যাত্রা পথের প্রস্তুতি ভালো। আপনারা জানেন গাজীপুরের রোড দিয়ে ঢাকার বাইরে যেতে যানজট হয়।ঢাকা চট্টগ্রাম সড়কে তিনটি ব্রিজের জন্য যানজট হয়। সেখানেও সমস্যা সমাধান হয়ে গেছে।২৫ তারিখ মেঘনা-গোমতি সেতুর উদ্বোধন হবে। আমি মনে করি মানুষের যাত্রাটা স্বস্তিদায়ক হবে।’

(ঢাকাটাইমস/১৯মে/বিইউ/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :