ভ্রমণ গন্তব্য বন্ধ, নদী আর খাল পাড়েই ভরসা

কাজী রফিক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০২ আগস্ট ২০২০, ১৫:৪৭

একদিকে করোনাভাইরাসের কারণে আরোপিত স্বাস্থ্যবিধি। অন্যদিকে কোরবানির ঈদের ছুটিতে ভ্রমণ পিপাসু মন। এই দুটোকে সমন্বয় করা কঠিন। কিন্তু তাই বলে যে ভ্রমণ থেকে থাকবে, তাও নয়। তাই যে যার মতো রাজধানীর ভ্রমণ গন্তব্যগুলোতে বেড়াচ্ছেন মানুষ। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন এটা বলা যাবে না। তবে বেশির ভাগ মানুষের মুখে মাস্ক রয়েছে। গতকাল ঈদের দিন এবং আজ পরের দিন রাজধানী ঘুরে এমনটাই দেখা গেছে। ঘোরাফেরা করছেন পার্ক, নদীর পাড় সহ নানা জায়গায়। এসময় বেশির ভাগ নগরবাসীকেই স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা করতে দেখা যাচ্ছেনা। বেশির ভাগ মানুষের মুখ নেই মাস্ক, নেই সামাজিক দূরত্ব।

নগরের আক

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে রাজধানীর আকর্ষণীয় ভ্রমণ গন্তব্যগুলো বহুদিন ধরেই বন্ধ। বন্ধ রয়েছে চিড়িয়াখানা, বোর্টানিক্যাল গার্ডেন, শিশু পার্ক, শিশু মেলা, লালবাগ কেল্লা, জাদুঘর, রমনা পার্ক, বলধা গার্ডেন, সোহরওয়ার্দী উদ্যান।

তাই মানুষ তার আশেপাশের মাঠঘাট, ফাঁকা প্রান্তর, নদী এবং কৃত্রিম স্থাপনাকেই ভ্রমণগন্তব্য বানিয়ে ঘুরছেন। এর মধ্যে আছে বুড়িগঙ্গা নদী, হাতিরঝিল, দিয়া বাড়ি, বসুন্ধরা রিভার ভিউ সারি ঘাট, পোস্তগোলা ও বাবু বাজার ব্রিজ। তবে গত বছরের তুলনায় এসব জায়গায় ভ্রমণ পিঁপাসুদের আনা গোনা কম। যদিও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকার কারণে ওই বন্ধ টিএসসি। কিন্তু তারপরও ঈদের দিন বিকাল থেকে টিএসসি, ফুলার রোড, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, দোয়েল চত্বরে আড্ডা ছিল মানুষের।

এছাড়াও, বিকেল হতেই রাজধানীর চন্দ্রিমা উদ্যান, সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় ঈদ আড্ডা জমে। এদের মধ্যে তরুণদের সংখ্যাই বেশি। যদিও বয়সী ও শিশুরাও ছিল।

করোনা ভাইরাসের মধ্যেই জনসমাগমে ছিল না কোনো সামাজিক দূরত্ব। একইভাবে নাগরিকদের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার প্রবণতা দেখা গেছে একেবারেই কম। বিশেষ করে তরুণদের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার প্রবণতা ছিল না বললেই চলে। তাদের ভাষ্য, গরম মাস্ক পরতে ভালো লাগে না।

হাতিরঝিল এলাকায় বন্ধুদের সঙ্গে বেড়াতে আসা রাকিব হোসেনের মুখে ছিল না। কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সব সময় তো পরি। আর আজকে অনেক গরম। অসহ্য লাগতেছে, তাই খুলে পকেটে রাখছি।’

এমন অজুহাত দেখালেন সানজিদা আক্তার নামের আরেক তরুণী। তিনি বলেন, ‘গরম লাগতেছিল, তাই খুলে রাখছিলাম। এখনি পরতাম।‘

এদিকে অনেকেই ঈদের বিকেলে কাটাচ্ছেন ঢাকার চারপাশের নদীর পাড়গুলোতে। বুড়িগঙ্গা নদীর বসিলা, কেরানীগঞ্জ এলাকায় আশপাশের এলাকার মানুষের ভিড় দেখা গেছে। তুরাগ নদের ঢাকা উদ্যান, গাবতলী, মিরপুর, টঙ্গী এলাকায় মুক্ত বাতাসের খোঁজে অনেকেই এসেছেন স্বপরিবারে। কেউবা এসেছেন বন্ধুদের সঙ্গে। একই চিত্র দেখা গেছে বালু নদীর তেরমুখ ব্রিজ সহ আশপাশের এলাকায়। এসব নদীর তীরে আড্ডা, তীরের রেস্তোরাঁ ও খাবার দোকানে ভিড় করেন নগরবাসী। কেউ কেউ ঈদের আনন্দ খুঁজেছেন নৌকা, ট্রলার আর স্পিড বোর্ডে করে নদীতে ঘুরে।

তুরাগ তীরে সপরিবারে বেড়াতে আসা রেজাউল করিম ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘গত চার মাস আমি ছাড়া বাসার কেউ বাইরে আসিনি। রোজার ঈদেও সবাই ঘরে ছিল। আর কত বলেন? তাই একটু বাইরে নিয়ে আসছি। আমরা স্বাস্থ্যবিধিটা মানার চেষ্টা করছি। কিন্তু বাকিরা তো মানছে না। বেশির ভাগ মানুষের মুখেই মাস্ক নেই। ঝুঁকি তো একটা রয়েই যায়।‘

ঢাকাটাইমস/২আগস্ট/কারই/ এজেড

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :