জেগে উঠেছে ইন্দোনেশিয়ার সক্রিয় আগ্নেয়গিরি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ১১ আগস্ট ২০২০, ১২:০৮ | প্রকাশিত : ১১ আগস্ট ২০২০, ১১:০৮

দ্বীপরাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়ার একাধিক সক্রিয় আগ্নেয়গিরির মধ্যে ভয়ঙ্কর মাউন্ট সিনাবাং জেগে উঠেছে। ধোঁয়া ও ছাই-গ্যাসে ঢেকে গেছে গ্রামের পর গ্রাম। এক কিলোমিটারের বেশি ওপরে উঠেছে ধোঁয়া। খবর ডয়চে ভেলে।

এর আগে ২০১৬ সালেও একবার ফুঁসে উঠেছিল সিনাবাং আগ্নেয়গিরি। আবার বিস্ফোরিত হয়েছে এটি। বিকট বিস্ফোরণে কেঁপে উঠেছে উত্তর সুমাত্রার একাধিক গ্রাম। কালো ধোঁয়া আর ছাইয়ের স্তর বাতাসে ছড়িয়ে পড়েছে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে।

দ্বীপরাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়ার একাধিক সক্রিয় আগ্নেয়গিরির মধ্যে ভয়ঙ্কর এই মাউন্ট সিনাবাং। উত্তর সুমাত্রার কারো উপত্যকায় লেক টোবা থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরত্বে রয়েছে এই আগ্নেয়গিরি। ৮ হাজার ৭০ ফুট উচ্চতার এই আগ্নেয়গিরির সংলগ্ন এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

ইন্দোনেশিয়ার ভলক্যানোলজি অ্যান্ড জিওলজিক্যাল হ্যাজার্ড মিটিগেশন সেন্টারের অফিসার আরমান পুটেরা বলেছেন, কিছুদিন আগেই এই আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখ ফের জেগে উঠতে শুরু করেছিল। রাতের দিকে ধোঁয়া বের হতে দেখা যাচ্ছিল। আগ্নেয়গিরির সংলগ্ন গ্রামগুলিতে সতর্কতা জারি করা হয়েছিল। সোমবার ভোরে বিকট বিস্ফোরণ শোনা যায়। কেঁপে ওঠে মাটি। আতঙ্কে সকলে বাইরে আসে। এরপর লাগাতার বিস্ফোরণ হয়ে চলেছে। জ্বালামুখ থেকে ঘন কালো ধোঁয়া, ছাইয়ের স্তর বেরিয়ে গ্রাম ঢেকে ফেলেছে। তবে এখনও অবধি হতাহতের কোনো খবর মেলেনি।

নামানতেরান গ্রামের বাসিন্দা রেনকানা সিটেপু বলেন, 'আবার জেগেছে মাউন্ট সিনাবাং। সারা আকাশ কালো হয়ে গেছে। মাত্র ২০ মিনিটেই সব গ্রাম ধোঁয়ায় ঢেকে গেছে। রাস্তায় পুরু হয়ে জমেছে ছাইয়ের স্তূপ। গ্রাম থেকে লোকজনকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।'

১৯১২ সালে প্রথম ফুঁসে ওঠে সিনাবাং। এরপরে সুপ্ত হয়েই ছিল এই আগ্নেয়গিরি। ২০১০ সালের আগস্টে ভয়ঙ্কর তাণ্ডব শুরু করে সিনাবাং। লাগাতার বিস্ফোরণ, প্রবল বেগে লাভাস্রোত, ধোঁয়া বেরিয়ে আসে আগ্নেয়গিরির মুখ থেকে। বাতাসে দেড় কিলোমিটার অবধি ছড়িয়ে পড়ে গ্যাস-ছাইয়ের স্তর। সেসময় ৬ হাজার গ্রামবাসীকে সরিয়ে নিয়ে যেতে হয় নিরাপদ স্থানে।

ওই বছরেরই সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে ফের বিস্ফোরণ ঘটয় সিনাবাং। প্রায় ৩০ হাজার মানুষকে সরিয়ে নিয়ে যেতে হয় গ্রাম থেকে। ২০১৩-১৪ সালে ফের অগ্ন্যুৎপাত ঘটায় মাউন্ট সিনাবাং। ২০১৬ সালে আরও ভয়ঙ্কর বিস্ফোরণ হয়। নিহত হন সাত জন। প্রায় ১৮ হাজার গ্রামবাসীকে কয়েক সপ্তাহের জন্য ত্রাণ শিবিরে রাখতে হয়।

ঢাকা টাইমস/১১আগস্ট/একে

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :