একাধিক বিয়ে বাবুলের, ধারণা মিতুর বাবার

আশিক আহমেদ, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৩ মে ২০২১, ১১:০৯

স্ত্রী মিতু হত্যার পাঁচ বছর পর গ্রেপ্তার হওয়া পুলিশের সাবেক এসপি বাবুল আক্তার একাধিক বিয়ে করেছেন। তবে তার এসব বিয়ের বিষয়ে তেমন একটা জানা যায় না। বিয়ে ছাড়াও একাধিক নারীর সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কের কথাও জানা যায় বাবুল আক্তারের।

পাঁচ বছর আগে চট্টগ্রামে প্রকাশ্যে গুলি করে ও কুপিয়ে নির্মম হত্যার শিকার মাহমুদা খানম মিতুর বাবা পুলিশের সাবেক পরিদর্শক মোশাররফ হোসেন জামাতা বাবুল আক্তারের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করেছেন।

ঢাকাটাইমসকে তিনি বলেন, আমরা জানতে পেরেছি বাবুল আক্তার একাধিক বিয়ে করেছেন। তবে বিস্তারিত বলতে পারবো না কখন কোথায় কাকে সে বিয়ে করেছে।

মোশাররফ হোসেন বলেন, আমার মেয়ে খুনের পর বাবুলের সঙ্গে আমাদের চার বছর ধরে কোনও যোগাযোগ নেই। সে এমনকি আমাদের নাতি-নাতনিদের সঙ্গেও আমাদের কথা বলতে দিতো না।

কী কারণে বাবুল আক্তার মাহমুদা খানম মিতুকে খুনের পরিকল্পনা করতে পারেন সে বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মোশাররফ হোসেন বলেন, আমি শুনেছি পরকীয়ার কারণেই বাবুল আক্তার আমার মেয়েকে খুন করেছে।

এদিকে পাঁচ বছর আগে চট্টগ্রামে মাহমুদা খানম মিতু হত্যার দায়ে করা নতুন মামলায় স্বামী বাবুল আকতারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। বিয়ে বহির্ভূত সম্পর্কের জেরে মিতুকে হত্যার অভিযোগ তুলে বাবুল আক্তারের বিরুদ্ধে পাঁচলাইশ থানায় মামলাটি করেন মিতুর বাবা মোশাররফ হোসেন। মামলায় বাবুলসহ আটজনকে আসামি করা হয়েছে।

স্ত্রী মিতু হত্যায় মামলার বাদী ছিলেন স্বামী বাবুল আক্তার। তদন্তে তার বিরুদ্ধেই হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার সংশ্লিষ্টতা পাওয়ার পর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মঙ্গলবার তাকে হেফাজতে নেয় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

বুধবার সকালে ঢাকায় পিবিআইয়ের প্রধান কার্যালয়ে এ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে পিবিআই। সংস্থার প্রধান বনজ কুমার মজুমদার বলেন, পুরনো মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন আজই (বুধবার) আদালতে জমা দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে বন্দরনগরী চট্টগ্রামের জিইসি মোড়ে ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় সড়কে খুন হন মাহমুদা খানম মিতু। তার স্বামী সেসময়ের চট্টগ্রামের পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আক্তার পদোন্নতি পেয়ে পুলিশ সদরদপ্তরে যোগ দিতে ওইসময় ঢাকায় ছিলেন। তার ঠিক আগেই চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশে ছিলেন তিনি।

(ঢাকাটাইমস/১২মে/এএ/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিশেষ প্রতিবেদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :