ভ্যাকসিনেশন প্রক্রিয়া শ্লথ হলে হার্ড ইমিউনিটি অর্জন কঠিন হবে

ডা. নুসরাত সুলতানা
 | প্রকাশিত : ০৪ আগস্ট ২০২১, ১৫:৩৫

বিশ্বজুড়ে কোভিড-১৯ বিরোধী ভ্যাকসিনের প্রয়োগ বৃদ্ধি পাওয়ায় সাধারণ মানুষের মনে কিছু যৌক্তিক প্রশ্ন আসে। এই প্যান্ডেমিকের শেষ কোথায়? আমরা কি হার্ড ইমিউনিটি শিগগিরই অর্জন করে ফেলব?

প্যান্ডেমিকের প্রথম বছর ধারণা করা হয়েছিল যে ৬০-৭০ শতাংশ মানুষ টিকা গ্রহণ বা কোভিডে আক্রান্ত হলে হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করা সম্ভব। দ্বিতীয় বছরেই এই ধারণা পরিবর্তিত হয়। ভ্যাকসিন গ্রহণে দ্বিধা, নতুন নতুন ভ্যারিয়েন্টের আবির্ভাব এবং শিশুদের টিকা প্রয়োগে বিলম্বের কারণে হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করা কঠিন হয়ে পড়েছে। বিশেষজ্ঞরা হার্ড ইমিউনিটির প্রত্যাশার চেয়েও নিউ নরমাল জীবনে অভ্যস্ত হওয়াকে অধিকতর প্রাধান্য দিচ্ছেন।

হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করা কঠিন কেন:

কোনো একটি নির্দিষ্ট স্থানে যদি ৮০ শতাংশ মানুষ একটি নির্দিষ্ট সংক্রামক রোগের বিরুদ্ধে টিকা প্রদান বা উক্ত রোগে আক্রান্ত হওয়ার মাধ্যমে ইমিউনিটি বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অর্জন করে তাহলে বাকি ২০ শতাংশ মানুষ (যাদের কখনো উক্ত সংক্রামক রোগটি হয়নি) ও উক্ত সংক্রামক রোগের জীবাণুর মাঝে এই ৮০ শতাংশ মানুষ বাধা হিসেবে কাজ করে রোগটির ট্রান্সমিশন চেইন ভেঙে দেয়। একেই হার্ড ইমিউনিটি বলে। কোভিড-১৯ বিরোধী প্রতিটি টিকার ক্ষেত্রেই টিকা গ্রহণের পরও মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে, একে বলা হয় Breakthrough infection. ফলে কোভিড-১৯ এর ট্রান্সমিশন চেইন ভাঙ্গা অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তবে আশার কথা, টিকা গ্রহণ করার পর আক্রান্তের হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ও মারাত্মক কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা কমে যায়।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে, এমনকি একই দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে টিকা বন্টন সমভাবে হচ্ছে না। বিষয়টি ব্যাখ্যা করা যায় এভাবে: ধরা যাক, ঢাকা শহরে ৮০ শতাংশ মানুষকে কোভিড-১৯ বিরোধী টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে। কিন্তু চট্টগ্রামে টিকার কভারেজ মাত্র ১০ শতাংশ। এক্ষেত্রে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় Population mixing এর কারণে ঢাকা শহরে হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করা সম্ভব হবে না। হার্ড ইমিউনিটি অর্জনের জন্য দ্রুতগতিতে সমভাবে টিকা বন্টন অন্যতম শর্ত। এছাড়াও শিশুদেরকে টিকা কার্যক্রমের বাইরে রাখা হলে হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করার নিশ্চয়তা থাকছে না।

ভ্যাকসিনেশন প্রক্রিয়া শ্লথ হলে এবং অসমভাবে বন্টিত হলে সিলেকশন প্রেশারের কারণে নতুন নতুন স্ট্রেইনের আবির্ভাব ঘটবে যা পুরাতন ভ্যারিয়েন্টের চেয়েও অধিক সংক্রামক হতে পারে। ফলে হার্ড ইমিউনিটি অর্জন করা সম্ভব হবে না।

অনেক সময় ভ্যাকসিন গ্রহণকারীদের মাঝে মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলায় ঢিলেমি দেখা দেয়। তারা হয়তো বা মারাত্মক কোভিডে আক্রন্ত হবেন না, কিন্তু বাহক হিসেবে অন্যদের আক্রান্ত করতে পারেন। এক্ষেত্রে কোভিড-১৯ এর ট্রান্সমিশন চেইন ভাঙ্গা কঠিন হয়ে পড়ে।

মোদ্দা কথা, টিকা গ্রহণের মাধ্যমে পুনঃসংক্রমণ ঠেকানো সম্ভব না হলেও মানুষ মারাত্মক কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা এবং হস্পিটালাইজেশন দুটোই কমে যাবে। ফলে স্বল্পতম সময়ের মধ্যে ব্যাপক সংখ্যক মানুষকে টিকাদান কার্যক্রমের আওতায় নিয়ে আসতে হবে।

হার্ড ইমিউনিটির আশা করার পরিবর্তে মানুষকে নিউ নরমাল জীবনে অভ্যস্ত হতে সচেষ্ট হতে হবে। অর্থাৎ মানুষকে মাস্ক পরিধান, সাবান দিয়ে হাত ধোয়া ও অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণকে জীবনের অংশ হিসেবে মেনে নিতে হবে।

এভাবেই কোভিড-১৯ একদিন মানুষের সম্মিলিত ও সমন্বিত প্রচেষ্টার কাছে পরাভূত হবে। আল্লাহ আমাদের সহায় হোন।

লেখক: সহকারী অধ্যাপক, ভাইরোলজি বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ

ঢাকাটাইমস/৪ আগস্ট/এসকেএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফেসবুক কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :