তিনি ছিলেন এবং আছেন

বিভুরঞ্জন সরকার
 | প্রকাশিত : ১৫ আগস্ট ২০২২, ১১:২২

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করে ঘাতকেরা ভেবেছিল, ইতিহাসের শেষ অধ্যায় বুঝি তারা রচনা করে ফেলেছে। বঙ্গবন্ধু মানে যদিও বাংলাদেশ, তবুও এটাই ঠিক যে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা মানে বাংলাদেশের সমাপ্তি নয়। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে তাই বাংলাদেশকে যেমন শেষ করা যায়নি, তেমনি তাঁর নাম ইতিহাস থেকে মুছে ফেলার ষড়যন্ত্রও সফল হয়নি। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে অবহেলা-অযতেœ তাঁর লাশ কবর দেওয়া হয়েছিল টুঙ্গিপাড়ার নিভৃত পল্লিতে এটা ভেবে যে, ওই অজপাড়াগাঁয়ে গিয়ে কেউ তাঁর কবরে ফুল দেবে না, স্মরণ করবে না। কিন্তু ওদের ওই দুরাশা সফল হয়নি। টুঙ্গিপাড়ার মাটি শয্যা নিয়েও বঙ্গবন্ধু আজ বাঙালির হৃদয়জুড়ে আসন পেতে আছেন। শুধু তাঁর মৃত্যুর দিন ১৫ আগস্টে নয়, বছরের প্রতিটি দিন দেশের প্রতিটি প্রান্ত থেকে ছুটে যান অসংখ্য মানুষ তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে। তিনি জীবিত থাকতেও যেমন মানুষের ভালোবাসা পেয়েছেন, মৃত্যুর পরও তেমনই। তাই এটা বলাই যায় যে, তিনি ছিলেন এবং তিনি আছেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বিবিসির জরিপে যখন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি হিসেবে নির্বাচিত করে সেটা ঘোষণা দেওয়া হয়, তখন কারো কারো মধ্যে যে বিস্ময় দেখা দেয়নি, তা নয়। রাজনীতি-সাহিত্য-শিল্প-অর্থনীতি-বিজ্ঞান-সমাজ-সংস্কৃতি-শিক্ষা-সংস্কারের শত শত বছরের ইতিহাসে সব বাঙালিকে ছাড়িয়ে শেখ মুজিব কীভাবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে সক্ষম হলেন তার উত্তর অত্যন্ত সহজ – তিনি বাঙালির ইতিহাসে প্রথম স্বাধীন জাতিরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা, জনক। শেখ মুজিব একদিকে যেমন ইতিহাসের নায়ক, আবার অন্যদিকে তিনি ইতিহাস-স্রষ্টাও। পুঁথিগতবিদ্যায়-বুদ্ধিমত্তায়-সৃজনশীলতায়- তাঁর চেয়ে সেরা বাঙালি হয়তো আরো এক বা একাধিক পাওয়া যাবে কিন্তু শেখ মুজিবের মতো অসম সাহসী, দূরদর্শী এবং তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে পারদর্শী রাজনৈতিক নেতা বাঙালিদের মধ্যে আর খুব বেশি নেই। তিনি জীবনের পাঠশালা থেকে শিক্ষা নিয়ে ক্রমাগত নিজেকে অতিক্রম করেছেন, অতিক্রম করেছেন তাঁদের, যাঁদের কাছ থেকে তিনি রাজনীতির অআকখ শিখেছিলেন।

সবচেয়ে বড় কথা শেখ মুজিব ওপর থেকে চাপিয়ে দেওয়া নেতা ছিলেন না। তিনি ধীরে ধীরে উপরে উঠেছেন। কারো তৈরি করা সিঁড়ি দিয়ে নয়, নিজে সিঁড়ি তৈরি করেছেন, তারপর ধাপে ধাপে উপরে উঠেছেন। মানুষের মধ্যে থেকে, মানুষকে সঙ্গে নিয়ে তিনি রাজনীতির ইমারত গড়ে তুলেছিলেন বলে তিনি মানুষকে ভালোবাসতেন, মানুষকে বিশ্বাস করতেন। আর তাই তার সবলতা যেমন মানুষকে ভালোবাসা তেমনি দুর্বলতাও মানুষকে ভালোবাসা।

এ তথ্য আমাদের অজানা নয় যে, শেখ মুজিব ছিলেন গ্রামের ছেলে। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার মতো অজপাড়া গাঁয়ের কাদাপানিতে তাঁর বেড়ে ওঠা। নিজে একেবারে দরিদ্র পরিবারের সন্তান না হলেও তিনি তৎকালীন গ্রামীণ দারিদ্র্য দেখেছেন খুব কাছে থেকেই। মানুষের অভাব-দারিদ্র্য তিনি সইতে পারতেন না। বালকবেলাতেই নিজেদের গোলার ধান চুপিসারে বিলিয়ে দিতেন গরিবদের। গায়ের চাদরও খুলে দিয়েছেন শীতে কষ্টপাওয়া গ্রামীণ মানুষকে। থাকা এবং না-থাকার বিষয়টি তাঁকে ছোট বেলা থেকেই ভাবিত ও তাড়িত করেছে। তার মধ্যে একটি সহজাত নেতৃত্ব গুণ ছিল। সবার মধ্যে থাকে তিনি সবার থেকে একটু আলাদা থাকতেন। ফুটবল খেলতেন, তবে শুধু খেলোয়াড় ছিলেন না, ছিলেন ক্যাপ্টেন। তিনি বাল্যকাল থেকে যেমন হিন্দু-মুসলমান ভেদাভেদ মানতেন না, অসাম্প্রদায়িক চেতনার পক্ষে ছিলেন, তেমনি একশ্রেণির হিন্দুর অহমিকা, দম্ভ, গরিবের প্রতি জুলুমবাজিরও বিরুদ্ধে ছিলেন।

তিনি তাঁর জীবনঅভিজ্ঞতা থেকে একটি রাজনৈতিক পথ বা আদর্শ বেছে নিয়েছিলেন, আর সেটা হলো ‘গরিবের মুখে হাসি ফোটানো‘। তিনি এই আদর্শ কখনো ত্যাগ করেননি। গরিবের পক্ষ তিনি কখনো ত্যাগ করেননি। ত্যাগ করার কথা ভাবেনও নি। গরিব মুসলমান তার ভাগ্য ফেরানোর আশা নিয়ে পাকিস্তান চেয়েছেন, সামনের কাতারপ থেকে পাকিস্তান আন্দোলনে শরিক থেকেছেন। আবার পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পরপরই যখন তিনি পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠীর বাঙালির স্বার্থবিরোধী মনোভাব বুঝতে পারলেন, অমনি গরিব বাঙালির পক্ষেই অবস্থান বেছে নিলেন। শুরু হলো তার বিরুদ্ধে শাসকগোষ্ঠীর জেল-জুলুম।

‘কারাগারের রোজনামচা’য় তিনি নিজেই লিখছেন : পাকিস্তান কায়েম হওয়ার পরেই ১৯৪৮-এ যখন আমাকে বাংলা ভাষা আন্দোলনের সময় গ্রেপ্তার করলো, আবার ১৯৪৯ সালে গ্রেপ্তার করে ১৯৫২ সালে ছাড়লো, তখন আমার মা আমাকে জিজ্ঞাসা করলো, ‘বাবা, তুইতো পাকিস্তান পাকিস্তান করে চিৎকার করেছিস, কত টাকা নিয়ে খরচ করেছিস – এদেশের মানুষ তো তোর কাছ থেকেই পাকিস্তানের নাম শুনেছিল, আজ তোকেই সেই পাকিস্তানের জেলে কেন নেয়?’(পৃষ্ঠা ৭৯) সহজ-সরল মায়ের এই প্রশ্নের সঠিক জবাব তিনি দিতে পারেননি অথবা দেননি। তার গরিবমুখি, বাঙালিমুখি অবস্থানের কারণেই যে তাকে শাসকদের রোষানলে পড়তে হয়েছিল, এটা এখন সবারই জানা।

একাধিকবার তাঁকে ফাঁসির মঞ্চের মুখোমুখি করা হলেও তিনি আপোস করেন নি। নিজের সাহস তিনি বাঙালি জাতির মধ্যে সংক্রমিত করতে সক্ষম হয়েছিলেন। তার ডাকে বাঙালি অকাতরে বুকের রক্ত ঢেলে দিয়েছে। মরণকে বরণ করেছে হাসি মুখে। তাই ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ তার জীবনের সেরা ভাষণে শেখ মুজিব অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে পেরেছিলেন, ‘ আমরা যখন মরতে শিখেছি, তখন কেউ আমাদের দাবায়ে রাখতে পারবা না। বাঙালিকে আসলেই আর কেউ ‘দাবায়ে’ রাখতে পারেনি। পাকিস্তানের শাসন-শোষণের জিঞ্জির ভেঙ্গে বাঙালি স্বাধীনতার রক্ত পতাকা ছিনিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে।

যুদ্ধবিধ্বস্ত স্বাধীন বাংলাদেশে গরিবের পক্ষের রাজনৈতিক ধারার অনুকূলেই তার অবস্থান নিশ্চিত করে বলেছিলেন, ‘পৃথিবী আজ দুই ভাগে বিভক্ত – শোষক এবং শোষিত। আমি শোষিতের পক্ষে।‘ বঙ্গবন্ধু বিশ্ব রাজনীতিতে তার অবস্থান ঘোষণা করেছিলেন এই বলে, ‘আমাদের পরিষ্কার কথা – আফ্রিকা হোক, ল্যাটিন আমেরিকা হোক, আরবদেশ হোক, যেখানে মানুষ শোষিত, যেখানে মানুষ নির্যাতিত, যেখানে মানুষ দুঃখী, যেখানে মানুষ সাম্রাজ্যবাদীদের দ্বারা নির্যাতিত, আমরা বাংলার মানুষ দুঃখী মানুষের সঙ্গে আছি এবং থাকবো‘ কিন্তু নানা বাস্তব কারণেই তিনি এই রাজনীতিকে সফল পরিণতি দিতে পারেননি। বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে নয়, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতিতেও বিভিন্ন শক্তির কাছে বিষফোঁড়ার মতো অস্বস্তিকর ছিলেন। তাকে হত্যা করার জন্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া অশুভ গাঁটবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিল ।

এক জীবনে একজন মানুষ একসঙ্গে বহু ইতিহাস রচনা করতে পারেন না। টুঙ্গিপাড়ার শেখ মুজিবুর রহমান, অনেকের মুজিব ভাই, মওলানা ভাসানীর মজিবর, কারোবা শেখ সাহেব, ১৯৬৯-এ এসে বঙ্গবন্ধু এবং সবশেষ একাত্তরের যুদ্ধ জয়ের পর জাতির পিতা । বেঁচে থাকলে হয়তো আরও অনেকদূর যেতে পারতেন। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতক দল তাঁকে সপরিবারে নিষ্ঠুর ভাবে হত্যার মধ্য দিয়ে তাঁর জীবনের গতি রোধ করে দেওয়া হয় চিরদিনের মতো।

১৯৭২ সালের ৭ এপ্রিল আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘বাংলাদেশ যেমন লক্ষ লক্ষ শহীদের জন্ম দিয়েছে, তেমনি বেঈমানও রয়েছে। এখানে রাজাকার-আলবদরও হয়েছে। এসব পরগাছার শিকড় তুলে তা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেলতে হবে। তা না হলে স্বাধীনতা বিপন্ন হবে। কেউ কেউ আবার অতি বিপ্লবের নামে তলে তলে ষড়যন্ত্র করছে।‘

বঙ্গবন্ধু শত্রু চিহ্নিত করেছিলেন ঠিকই। ‘পরগাছার শিকড় তুলে আগুনে পুড়িয়ে দেওয়ার কথা বললেও সে লক্ষ্যে খুব বেশিদূর অগ্রসর হতে পারেননি। তিনি ছিলেন অত্যন্ত হৃদয়বান মানুষ। তিনি মানবিক সীমাবদ্ধতার উর্ধ্বেও ছিলেন না । তিনি কখনো প্রতিহিংসার রাজনীতি করেননি। ঘোরতর রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের জন্যও ছিল তাঁর বুক উজাড় করা ভালোবাসা। রাজনীতিতে উদারতা ও কঠোরতার যে সমন্বয় দরকার বঙ্গবন্ধু তা করেন নি। তিনি ছিলেন কেবলই উদার, মানবিক এবং সংবেদনশীল। তাঁকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশে যে হিংসার রাজনীতির শুরু হয়েছে তা আর বন্ধ হচ্ছে না।

বাংলার দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর রাজনৈতিক ব্রত থেকে তিনি বিচ্যুত হননি। সদ্যস্বাধীন দেশে গরিবের হক কেড়ে খাওয়া ‘চাটার দল'-এর বিরুদ্ধে তিনি সোচ্চার ছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ‘স্বাধীনতা অর্জন করা যেমন কষ্টকর, তা রক্ষা করা তা চাইতেও কঠিন। দেশ আজ স্বাধীন হয়েছে। কিন্তু অর্থনৈতিক স্বাধীনতা ছাড়া রাজনৈতিক স্বাধীনতা অর্থহীন।‘

বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের প্রথম কাউন্সিল অধিবেশনে বলেছিলেন, ‘আমাদের নীতি পরিষ্কার। এর মধ্যে কোনো কিন্তু নাই। আওয়ামী লীগ কাউন্সিলই সুপ্রিম বডি। আপনাদের সিদ্ধান্ত সরকারকে মানতে হবে। এটা আওয়ামী লীগের সরকার। সরকারের আওয়ামী লীগ নয়। আমার অনুরোধ, নির্দেশ, আবেদন- কাজ করতে হবে। দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়ে তুলতে হবে। ক্ষমতা দখলের জন্য আওয়ামী লীগ সংগ্রাম করেনি। তাই সবাইকে লোভের উর্ধ্বে, স্বার্থের উর্ধ্বে উঠতে হবে।‘

বঙ্গবন্ধুর অনুসারীরা সবাই কি লোভের উর্ধ্বে, স্বার্থের উর্ধ্বে উঠতে পেরেছেন? আজ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আছে। মানুষ কি সরকার এবং আওয়ামী লিগকে আলাদা করে চিনতে পারছে। আওয়ামী লীগ নামের ইতিহাস সৃষ্টিকারী দলটি কি এখন সরকারের মধ্যে হারিয়ে যায়নি? বঙ্গবন্ধু বিভিন্ন সময় যেসব বক্তব্য দিয়েছেন সেসব মনে-মননে ধারণ না করে কেবল আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে তাকে স্মরণ করা আসলে তাঁর প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা নিবেদন নয়। ঠুনকো আবেগ দিয়ে নয়, বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা জানাতে হবে তাঁর নীতি-আদর্শের যথাযথ বাস্তবায়নের মধ্য দিয়েই।

লেখক: জৌষ্ঠ সাংবাদিক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক

সংবাদটি শেয়ার করুন

মতামত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :