ইরানের হামলার জবাব কীভাবে দেবে ইসরায়েল?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১৬:৪৭ | প্রকাশিত : ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১৬:১৭

দীর্ঘদিনের বৈরিতা সত্ত্বেও প্রথমবারের মতো সরাসরি ইসরায়েলে হামলা চালালো ইরান শনিবার রাতভর ইসরায়েলি ভূখণ্ডে ৩০০টিরও বেশি ড্রোন এবং ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে দেশটি। ইরানের এসব ড্রোন এবং ক্ষেপণাস্ত্রের বেশিরভাগই আটকে দিয়েছে বলে দাবি করে এ হামলার ‘সমুচিত জবাব’ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে ইসরায়েল। আর সেটা হলে পরিস্থিতি আসলেই অনেক গুরুতর হয়ে উঠবে। কিন্তু কীভাবে ইসরায়েল সেই জবাব দিতে পারে? ইসরায়েলের সামরিক বাহিনী এবং যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা হয়তো সেই বিষয়টি নিয়েই এখন আলোচনা করছে।

বিবিসির নিরাপত্তা বিষয়ক সংবাদদাতা ফ্রাঙ্ক গার্ডনারের মতে, সবচেয়ে বেশি সম্ভাবনা রয়েছে, ইরানের যে ঘাটি থেকে হামলা চালানো হয়েছে, সেখানে হামলা করবে ইসরায়েল।

এক সংবাদ সম্মেলনে ইসরায়েল ডিফেন্স ফোর্সের মুখপাত্র ড্যাডিয়েল হাগরি বলেছেন, রাতের দিকে ইরাক এবং ইয়েমেন থেকেও ইসরায়েলে হামলা হয়েছে। সেক্ষেত্রে ইরাক এবং ইয়েমেনেও হামলা চালাতে পারে ইসরায়েল।

কিন্তু ইসরায়েল হয়তো আরও একধাপ বেশি এগোতে পারে বলে মনে করেন গার্ডনার। তিনি বলেন, ইসরাযের হয়তো ইরানের সামরিক ঘাটি এবং বিপ্লবী গার্ড কোরের প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে হামলা চালাতে পারে, যাতে মানুষজন হতাহত হওয়া ছাড়াও অন্যান্য ক্ষয়ক্ষতি হবে।

এদিকে পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভার জরুরি বৈঠক ডেকেছেন ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। এই বৈঠকের পরই সিদ্ধান্ত নেবে ইহুদিবাদী দেশটি।

অন্যদিকে রবিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন নেতানিয়াহু। এই ফোন কলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, আমেরিকা ইরানের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের কোনো পাল্টা আক্রমণকে সমর্থন করবে না।

হোয়াইট হাউসের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ইসরায়েল, যুক্তরাষ্ট্র এবং এই অঞ্চলের অন্যান্য দেশগুলোর যৌথ প্রতিরক্ষামূলক পদক্ষেপের কারণে ইরানের আক্রমণ প্রতিহত করা হয়েছে বলেও নেতানিয়াহুকে জানিয়েছেন বাইডেন।

এই কর্মকর্তার মতে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুকে বলেছেন, ‘আপনি একটি জয় পেয়েছেন, এই জয়টিই নিন।’

তিনি আরও জানান, যুক্তরাষ্ট্র চাইবে যতটা সম্ভব উত্তেজনা কমিয়ে আনতে এবং ইসরায়েল তাদের জবাব ঠিক করার সময়ও দেশটি ভূমিকা রাখতে চাইবে।

যুক্তরাষ্ট্র ও তার সহযোগীদের জন্য এমন এক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে যে উত্তেজনা আরও বাড়লে সেটি বড় ধরনের আঞ্চলিক যুদ্ধের দিকে যেতে পারে।

তবে ইরান ইসরায়েলকে সতর্ক করে বলেছে, ইহুদিবাদী দেশটি যদি ইরানের হামলার কোন জবাব দেয়ার চেষ্টা করে তাহলে পরবর্তীতে আরও বড় পদক্ষেপ নেবে তারা।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবর অনুযায়ী ইরানের সামরিক বাহিনীর চীফ অফ স্টাফ মেজর জেনারেল মোহাম্মদ বাঘেরি রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলেছেন ইসরায়েল পাল্টা কিছু করার চেষ্টা করলে রাতভর বোমাবর্ষণের চেয়েও বড় কিছু হবে ইরানের প্রতিক্রিয়া।

দেশটি যুক্তরাষ্ট্রকেও সতর্ক করে বলেছে, ইসরায়েলি প্রতিশোধকে সমর্থন দিলে সেটি যুক্তরাষ্ট্রের ঘাঁটিগুলোকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করবে।

এদিকে জাতিসংঘে ইরানি মিশন জাতিসংঘ সনদে আত্মরক্ষার যে ধারা আর্টিক্যাল ৫১ সেটি উল্লেখ করে বলেছে, দেশটি মনে করেছে 'বিষয়টি ..শেষ হয়েছে'। একই সাথে দেশটি ইসরায়েলকে আর কোন ভুল না করার জন্য সতর্ক করেছে।

সুতরাং আগের তুলনায় এই মুহূর্তে সারা বিশ্ব উত্তেজনার একটা বিপজ্জনক সন্ধিক্ষণে রয়েছে। মধ্যপ্রাচ্যের সরকারগুলোও অপেক্ষা করে আছে ইসরায়েল কী করে সেটা দেখার জন্য, যার ওপর অনেক কিছু নির্ভর করছে।

সূত্র; বিবিসি, রয়টার্স

(ঢাকাটাইমস/১৪এপ্রিল/এমআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :