স্পিরিট পানে মৃত্যু: চার মাস পর দুই লাশ উত্তোলন

নোয়াখালী প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২০ জানুয়ারি ২০২০, ১৭:২২

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় স্পিরিট পান করে ছয়জনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় দাফনের তিন মাস ২৪ দিন পর ময়নাতদন্ত ছাড়া দাফন করা চারজনের মধ্যে দুজনের লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। সোমবার দুপুর থেকে বিকাল পর্যন্ত মহিন উদ্দিন ও সবুজের লাশ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়। মঙ্গলবার আবদুল খালেক, ওমর ফারুক লিটনের লাশ মঙ্গলবার উত্তোলন করা হবে।

উত্তোলনের পর লাশ দুটি নির্বাহী হাকিম রোকনুজ্জামান খান ও দায়িত্বপ্রাপ্ত কোম্পানীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আনোয়ার হোসেনের উপস্থিতিতে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত; গত বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে বসুরহাট পৌরসভার ‘রফিক হোমিও হল’ থেকে রেকটিফায়েড স্পিরিট ক্রয় করে (নেশা হিসেবে) পান করে নূর নবী মানিক, ওমর ফারুক লিটন, রবি লাল দে, সবুজ, মহিন উদ্দিন ড্রাইভার ও মুক্তিযোদ্ধা আবদুল খালেকসহ ছয়জন মারা যান।

নূর নবী মানিক ও রবি লালের লাশের ময়নাতদন্ত শেষে দাফন ও সৎকার করা হয়েছিল। অন্য চারজনের লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই দাফন করায় আদালতের নির্দেশে তাদের লাশ উত্তোলন করার বিষয়ে নোয়াখালীর জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আদেশ দিয়েছেন। স্পিরিট পানে ছয়জনের মৃত্যুর ঘটনায় অভিযুক্ত রফিক হোমিও হলের মালিক কথিত হোমিও চিকিৎসক সৈয়দ জাহেদ উল্যাহ ও তার ছেলে সৈয়দ মিজানুর রহমান প্রিয়ম বর্তমানে নোয়াখালী কারাগারে রয়েছেন।

(ঢাকাটাইমস/২০জানুয়ারি/কেএম/এলএ)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :