আওয়ামী লীগের জন্য বিএনপি-জামায়াতের কাছে পুলিশ কর্মকর্তার দোয়া চাওয়ায় কী হবে?

হাসান শান্তনু
| আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪:২৭ | প্রকাশিত : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪:০৯

আওয়ামী লীগের সরকারের বিরুদ্ধে তখন 'নাস্তিক্যবাদ প্রশ্রয়' দেয়ার কড়া অভিযোগ। বিএনপি, জামায়াত, হেফাজতের। আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠকে বসেন দলটির নেতৃত্বের ১৪ দলীয় জোটসঙ্গী দলের নেতা রাশেদ খান মেনন, হাসানুল হক ইনু, দিলীপ বড়ুয়াসহ কয়েকজন। বামনেতারা 'নাস্তিক'- কথিত এ প্রচারণাও দেশে আছে। সরকারের বিরুদ্ধে 'নাস্তিকতাকে প্রশ্রয়ের' অভিযোগ দূর করতে ওই বৈঠকে মেনন, ইনু সিদ্ধান্ত জানান, তাঁরা হজ করতে শিগগিরই সৌদি যাবেন। বৌদ্ধ ধর্মের অনুসারী হওয়ায় দিলীপ বড়ুয়াকে বৈঠকে চুপ থাকতে হয়। ওয়ার্কার্স পার্টির মেনন, জাসদের ইনু হজ করতে যান। আওয়ামী লীগের জন্য দোয়া করেন।

ধর্ম পালন ব্যক্তিগত বিষয় হওয়ায় তাঁদের হজ নিয়ে কারো বক্তব্যের সুযোগ নেই। হজের আনুষ্ঠানিকতা পালনকালে তাঁদের ফটোসেশন, এমনকি এহরাম বাঁধা অবস্থায় ফটো তুলে প্রচারণার পেছনে সেই অংশকে খুশি করার বার্তা দেয়া ছিলো বিশেষ উদ্দেশ্য, যে অংশ সরকারের বিরুদ্ধে 'ধর্মনাশের' অভিযোগ করছিলো। এটা বলাই যায়। কোনো দেশের সরকারের বিরুদ্ধে মৌলবাদী গোষ্ঠী 'ধর্মবিরোধী' বলে অভিযোগ করলে সেই সরকারের মিত্র প্রগতিশীল নেতারা হজ পালন, ফটোসেশন করে এর জবাব দেয়ার ঘটনা মেনন, ইনু ছাড়া উপমহাদেশে কেউ ঘটাননি। উগ্রশ্রেণির অভিযোগের যুক্তিসঙ্গত জবাব আওয়ামী লীগের জোট মিত্ররা সেদিন দেননি।

এবার আওয়ামী লীগের সমর্থক এক সাংবাদিকের কথা জানা হোক। যিনি দলটির টানা তৃতীয় মেয়াদের সরকারের সময়ে অর্থনৈতিক, রাজনৈতিকভাবে কল্পনাতীত লাভবান। আওয়ামী লীগ, দলটির সরকার কোনো বিষয়ে রাজনৈতিক বিতর্কের মুখোমুখি হলে ওই নেতা নিজের ফেসবুক দেয়ালে 'আয়াতুল কুরসি' শেয়ার করেন, 'মুশকিল' থেকে মুক্তির জন্য, দলের জন্য দোয়াও করেন। আওয়ামী লীগের তৈরি করা 'সাংবাদিক, লেখকের' এই হচ্ছে বুদ্ধিবৃত্তিকভাবে দলটিকে সমর্থনের নমুনা। কাজটা ক্ষমতাসীন দলের কেন্দ্রীয় কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদের এক নেতাও করেন। তিনি ফেসবুকে ঘোষণা দিয়েছেন, 'মৃত্যুর পর তাঁর জানাজার নামাজে যেন বেশি মানুষ অংশ নেন, সেই লক্ষ্যে তিনি কাজ করছেন'। অর্থাৎ, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে নয়।

আওয়ামী লীগের জন্য 'দোয়া' চেয়ে সর্বশেষ 'রেকর্ডটা' গড়েছেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মমিনুর রহমান। এই 'মরদে মোমিন' আমলা বিএনপি ও জামায়াতেরও দোয়া চেয়েছেন আওয়ামী লীগের ক্ষমতায় থাকার জন্য। বিএনপি-জামায়াত কেন আওয়ামী লীগের জন্য দোয়া করবে, এর আমলাতান্ত্রিক ব্যাখ্যা হযরত মমিন দেননি। কোনো জেলা প্রশাসকের কাজ ক্ষমতাসীন দলের জন্য দোয়া-মাহফিলের আহবান করে বেড়ানো নয়। এমন বক্তব্যের জন্য তাঁকে জবাবদিহির আওতায় আনা উচিত। তাঁর দোয়া আহবানে আওয়ামী লীগেরও খুশিতে গদগদ হওয়ার কিছু নেই। যখন যে সরকার থাকে, মমিনরা সেই সরকারের জন্যই দোয়া-মাহফিলের কাজটা করে বেড়ান। বঙ্গবন্ধু, খালেদ মোশাররফ, জিয়াউর রহমান হত্যাকাণ্ডের পর যারা ক্ষমতা দখল করেছেন, তাদের প্রতিও আমলাশ্রেণির 'আনুগত্যের' সামান্য ঘাটতির নজির নেই।

লেখক: সাংবাদিক, লেখক

সংবাদটি শেয়ার করুন

মতামত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

মতামত এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :