যেমন আছেন হাজী সেলিম

আশিক আহমেদ, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২১ জুন ২০২২, ০৭:৪৬

অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় দশ বছরের সাজাপ্রাপ্ত সংসদ সদস্য হাজী সেলিম কেমন আছেন কারা হেফাজতে? কেমন কাটছে তাঁর দিন? ২০২১ সালের ৯ মার্চ নিম্ন আদালতের সাজা বহাল রেখে হাইকোর্ট হাজী মোহাম্মদ সেলিমকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়ে রায় দেন হাইকোর্ট।

রায়ের পর গত ২২ মে তিনি আত্মসমর্পণ করলে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। অসু্স্থ থাকায় তাকে ওই রাতেই কারা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরদিন সকালে তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে আনা হয়। আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে এই হাসপাতালেরর কেবিন ব্লকে চিকিৎসা চলছে।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের একটি সূত্র জানিয়েছে, দুদকের মামলায় দণ্ডিত হাজী সেলিম হৃদরোগ ও ডায়াবেটিসসহ শারীরিক নানা জটিলতায় ভুগছিলেন। তিনি কথাও বলতে পারছিলেন না। পরে তাকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয়।

এদিকে বিএসএমএমইউর সূত্র বলছে, হাজী সেলিমের অবস্থার খুব একটা পরিবতর্ন হয়নি।

হাজী সেলিমের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে বিএসএমএমইউর পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো. নজরুল ইসলাম খান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘হাজী সেলিম হৃদরোগে আক্রান্ত। তার নানা ধরনের শারীরিক জটিলতা রয়েছে। তার চিকিৎসা চলছে।’

২২ মে হাজী সেলিমের আইনজীবী তাঁর পক্ষে আদালতে তিনটি আবেদন করেন। এর একটিতে আপিলের শর্তে জামিন আবেদন করা হয়। আরেকটি আবেদনে বলা হয়, তাকে যদি কারাগারে পাঠানো হয়, তাহলে যেন প্রথম শ্রেণির মর্যাদা দেয়া হয়। আর তৃতীয় আবেদনে তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসার সুযোগ চাওয়া হয়।

আত্মসমর্পনের পর ওইদিন বিকাল পাঁচটার পর হাজী সেলিমকে নিয়ে পুলিশের পিকআপ ভ্যানটি কারাগারের উদ্দেশে রওনা হয়। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে তাকে বহনকারী পুলিশ ভ্যান কারাগারে প্রবেশ করে।

আদালতে আত্মসমর্পণের আগে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হওয়ার পরেও গত ২ মে বিদেশে গিয়ে আলোচনার জন্ম দেন পুরান ঢাকার এই সংসদ সদস্য। আলোচনার মধ্যে চার দিন পরে তিনি দেশে ফেরেন।

২০২১ সালের ৯ মার্চ হাইকোর্ট হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ১০ বছরের সাজা বহাল রাখে ও অন্য ধারায় তিন বছরের দণ্ড থেকে অব্যাহতি দেয়। ২০০৭ সালে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তার বিরুদ্ধে মামলাটি করে দুদক।

ওই মামলায় ২০০৮ সালের এপ্রিল মাসে তাকে মোট ১৩ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছিলো আদালত। ওই মামলায় সাজা হয়েছিলো তাঁর স্ত্রীর গুলশান আরা সেলিমেরও। পরে তারা আপিল করলে আদালত ২০১১ সালে ওই সাজা বাতিল করে।

পরে দুদক আবার উচ্চ আদালতে আপিল করে। এই আপিলের শুনানি শেষে ২০১৫ সালে হাইকোর্টের রায় বাতিল করে আপিল বিভাগ আবারো হাইকোর্টে শুনানির নির্দেশ দেয়। শুনানি শেষে ২০২১ সালের ৯ মার্চ হাইকোর্ট দশ বছরের সাজা বহাল রাখে ও অন্য ধারায় তিন বছরের দণ্ড থেকে অব্যাহতি দেয়। আর আপিল চলাকালে ২০২০ সালের ৩০ নভেম্বর হাজী সেলিমের স্ত্রী গুলশান আরা মারা যাওয়ায় তাঁর আপিল বাতিল করা হয়।

(ঢাকাটাইমস/২১জুন/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিশেষ প্রতিবেদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন এর সর্বশেষ

স্বাধীনতার জন্য আমাদের আন্দোলনের স্বীকৃতি এখনো পাইনি

সংসার চালাতে হিমশিম খেয়ে ছিনতাইয়ের পথ বেছে নেন সামাদ

পাঁচ খুনিকে ফেরানোর চেষ্টা থাকলেও সাড়া কম

স্মৃতিজড়িত এই বাড়ি থেকেই বাঙালি জাতি পেয়েছিল মুক্তির নির্দেশনা-স্বাধীনতার ঘোষণা

মতিঝিল নিয়ন্ত্রণে সক্রিয় একাধিক গ্রুপ

চিরিরবন্দরে উদ্বোধনের আগেই ফেটে গেল চার কোটি টাকার সড়ক

দেশ থেকে ৩৮০ কোটি টাকা পাচার রিং আইডির

দায়িত্বহীন বক্তব্য নয়, বাজারে গিয়ে প্রমাণ করুন: মন্ত্রীদের বিশিষ্টজনেরা

নেপথ্যে কী? ঢাকা, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জের মেয়রদের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী মর্যাদার গেজেট আটকে আছে কেন?

চার দেয়ালে আটকা তিন পরিবার, মানবেতর জীবনযাপন

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :