উ. কোরিয়ার কর্মকর্তাদের ওপর জাপান, দ. কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা আরোপ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১৫:২৬

নজিরবিহীন ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার সঙ্গে যুক্ত উত্তর কোরিয়ার কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ওয়াশিংটন বলেছে, পিয়ংইয়ংয়ের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রগুলি ‘অঞ্চল এবং সমগ্র বিশ্বের জন্য গুরুতর ঝুঁকি সৃষ্টি করেছে। খবর আল-জাজিরার।

মার্কিন ট্রেজারি বিভাগ বৃহস্পতিবার নিষেধাজ্ঞাপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের নাম প্রকাশ করেছে। এদের মধ্যে রয়েছেন জন ইল হো, ইউ জিন এবং কিম সু গিল। এদের সবাইকে এপ্রিলে ইউরোপীয় ইউনিয়ন নিষেধাজ্ঞার জন্য মনোনীত করেছিল।

নিষেধাজ্ঞাপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা মার্কিন ভিত্তিক যেকোন সম্পদ জব্দ এবং তাদের সঙ্গে লেনদেন বাধাগ্রস্ত হবে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন এটি প্রতীকী বলে মনে হচ্ছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রলাণয় সিঙ্গাপুরের একজন এবং তাইওয়ানের একজন ব্যক্তি এবং আটটি সংস্থাসহ আরও সাতজনের ওপর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা করেছে। সবাই ইতিমধ্যেই ২০১৮ সালের জানুয়ারী থেকে অক্টোবর, ২০২২ এর মধ্যে আরোপিত মার্কিন নিষেধাজ্ঞার অধীনে রয়েছে বলে মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, জাপান নতুন নিষেধাজ্ঞার জন্য লাজারাস গ্রুপসহ তিনটি সত্ত্বা এবং একজন ব্যক্তিকে মনোনীত করেছে। সংস্থাটির ওপর সাইবার হামলা চালানোর সন্দেহ করা হচ্ছে।

চীন এবং রাশিয়া উত্তর কোরিয়ার ওপর জাতিসংঘের আরো নিষেধাজ্ঞা আরোপের সাম্প্রতিক প্রচেষ্টাকে অবরুদ্ধ করেছে। তারা বলেছে, নিষেধাজ্ঞার পরিবর্তে আলোচনা শুরু করতে এবং মানবিক ক্ষতি এড়াতে তা শিথিল করা উচিত। এছাড়াও তারা ওয়াশিংটনকে জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়ার পাশাপাশি ইউরোপীয় অংশীদারদের সঙ্গে ত্রিপক্ষীয় প্রচেষ্টার দিকে মনোনিবেশ করতে ছেড়ে দিয়েছে।

সর্বশেষ নিষেধাজ্ঞাগুলি উত্তর কোরিয়ার ১৮ নভেম্বরের আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা কারণে এসেছে। দেশটি চলতি বছর ৬০টিরও বেশি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের রেকর্ড করেছে। এছাড়াও ২০১৭ সালে স্থগিত করা পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষা শুরু করার উদ্বেগ রয়েছে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন বলেছেন, পরীক্ষাগুলি বিশ্বব্যাপী নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ফেলেছে এবং সর্বশেষ শাস্তিমূলক পদক্ষেপগুলি ‘পিয়ংইয়ংয়ের গতি, স্কেল এবং ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের সুযোগের প্রতিক্রিয়ায় জবাবদিহিতার প্রচারে আমাদের টেকসই সংকল্পের ওপর জোর দেয়’।

দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, সর্বশেষ পদক্ষেপটি উত্তর কোরিয়ার ক্রমবর্ধমান পারমাণবিক এবং ক্ষেপণাস্ত্র হুমকির কঠোরভাবে প্রতিক্রিয়া জানানোর প্রচেষ্টার অংশ।

মার্কিন নেতৃত্বাধীন কয়েক দশকের নিষেধাজ্ঞা উত্তর কোরিয়ার ক্রমবর্ধমান অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র ও পারমাণবিক অস্ত্র কর্মসূচি থামাতে ব্যর্থ হয়েছে।

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেক সুলিভান এর আগে বলেছিলেন, ওয়াশিংটন চাপ এবং কূটনীতি ব্যবহার করে উত্তর কোরিয়াকে তার পারমাণবিক অস্ত্রাগার ছেড়ে দিতে প্রলুব্ধ করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

হোয়াইট হাউস ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের একজন মুখপাত্র বলেছেন, নিষেধাজ্ঞাগুলি অস্ত্র কর্মসূচির উন্নয়নকে সফলভাবে ধীর করতে পেরেছে। পিয়ংইয়ং ‘ভার্চুয়াল কারেন্সি হিস্ট এবং অন্যান্য সাইবার অপরাধের মতো রাজস্ব উপার্জনের ক্রমবর্ধমান মরিয়া উপায়ে তার অস্ত্র কর্মসূচিতে অর্থায়নের জন্য পরিণত হয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/০২ডিসেম্বর/ এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :