বিদেশে পাঠানোর নামে প্রতারণা, আটক ২

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১১ আগস্ট ২০২২, ১৭:৪৬

সংঘবদ্ধ মানবপাচার ও প্রতারক চক্রের মূলহোতাসহ দুজনকে আটক করেছে র‌্যাব-৩। রাজধানীর পল্টন এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। এ সময়ে তাদের কাছ থেকে একটি সিপিইউ, পাঁচটি পাসপোর্ট, ২০টি খালি স্ট্যাম্প, ১০টি প্রশিক্ষণ সনদ, ভুয়া ওমান কনস্যুলেটর ও দূতাবাসের সিল, একটি মুঠেফোন, এক বক্স ভিজিটিং কার্ড, ভুয়া ভিসার ফটোকপি প্রায় শতাধিক, কোভিড-১৯-এর ৫০টি ভুয়া প্রতিবেদন এবং তিনটি চেকের পাতা জব্দ করা হয়।

আটক ব্যক্তিরা হলেন- মো. জাবেদ হোসেন রকি ও তার অন্যতম সহযোগী মো. আবির ওরফে শুভ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে র‌্যাব-৩ এর স্টাফ অফিসার (মিডিয়া) বীণা রানী দাস ঢাকাটাইমসকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

র‌্যাব জানায়, কিছু ভুক্তভোগী র‌্যাবের কার্যালয়ে অভিযোগ করেন, মতিঝিল এলাকায় একটি মানবপাচার ও প্রতারক চক্র মধ্যপ্রাচ্যে জনশক্তি রপ্তানির প্রলোভন দেখিয়ে ভুয়া ভিসা ও টিকেট সরবরাহ করে বিদেশ যেতে ইচ্ছুক বেকার যুবক যুবতীদের কাছ মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে তাদেরকে সর্বস্বান্ত করছে। সহজ সরল বিদেশ যেতে ইচ্ছুক ব্যক্তিরা ওই ভুয়া ভিসা ও টিকেট বিমানবন্দরে দেখানোর পর ইমেগ্রেশন তাদের ভিসা ও টিকেট জাল হওয়ায় বিমানবন্দর থেকে ফিরিয়ে দিয়েছে।

অভিযোগ পেয়ে র‌্যাব-৩ এর একটি দল বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে রাজধানীর পল্টন এলাকায় অভিযান চালায়। অভিযানে মো. জাবেদ হোসেন রকি এবং তার অন্যতম সহযোগী মো. আবির ওরফে শুভ নামের দুই মানবপাচার চক্রের মূলহোতাকে আটক করা হয়।

আটকদের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানায়, মো. জাবেদ হোসেন রকি এবং তার অন্যতম সহযোগী মো. আবির ওরফে শুভ সংঘবদ্ধ মানবপাচার ও প্রতারক চক্রের সদস্য। আটক জাবেদ হোসেন এই চক্রের মূলহোতা। আর অপর অভিযুক্ত আবির তার সহযোগী। আবিরের মা সেলিনা বেগম ওরফে রোকেয়াও এই চক্রের সঙ্গে জড়িত। তিনি ২০০৪ সাল থেকে ওমানে অবস্থান করছেন।

রোকেয়া ওমানের একটি রিক্রুটিং এজেন্সিতে কর্মী হিসেবে কাজ করেন। আর আবির ২০১৮ সাল থেকে ওমানে অবস্থান করে এই চক্রের সক্রিয় সদস্য হিসেবে চক্রটিকে সহযোগিতা করে আসছে। তাদের জনশক্তি রপ্তানির কোনো লাইসেন্স নেই। কিন্তু তারা দীর্ঘদিন ধরে জনশক্তি রপ্তানির নামে অবৈধভাবে মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে লোক পাঠিয়ে আসছে। এছাড়াও এই চক্র মধ্যপ্রাচ্যে উচ্চ বেতনে জনশক্তি পাঠানোর প্রলোভন দেখিয়ে বিদেশ যেতে ইচ্ছুক বেকার যুবক যুবতিদের কাছ থেকে তিন থেকে চার লাখ টাকা করে হাতিয়ে নেয়। পরে তাদেরকে ভুয়া ভিসা এবং ভূয়া টিকেট হাতে ধরিয়ে দেয়। ভুক্তভোগীরা ওই ভিসা এবং টিকেট নিয়ে বিমানবন্দরে গেলে ইমিগ্রেশন বিমানবন্দর থেকে ফিরিয়ে দেন।

র‌্যাব-৩ এর স্টাফ অফিসার (মিডিয়া) বীণা রানী দাস ঢাকাটাইমসকে বলেন, ২০১৮ সাল থেকে এই চক্রটি জনশক্তি রপ্তানির লাইসেন্স ছাড়া অবৈধভাবে অর্ধশতাধিক নারীকে মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে পাঠিয়েছে। তারা বিদেশ গিয়ে নির্যাতনের শিকার হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। অন্যদিকে এই চক্র শতাধিক লোককে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে পাঠানোর প্রলোভন দেখিয়ে জনপ্রতি তিন থেকে চার লাখ টাকা করে হাতিয়ে নিয়ে ভুয়া ভিসা এবং ভুয়া টিকেট সরবরাহ করে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়।

এই চক্রের মূলহোতা আটক মো. জাবেদ হোসেন অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন। ২০১১ সালে তিনি বিয়ে করেন। তার দুটি মেয়ে এবং একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। জাবেদের বাবা দীর্ঘদিন বাবুর্চি হিসেবে দুবাই কাজ করেন। বর্তমানে তার মতিঝিল এলাকায় একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোর রয়েছে। ২০১২ সালে জাবেদ হোটেলের ওয়েটার ভিসায় দুবাই গিয়ে সেখানে চার বছর অবস্থান করে।

দেশে ফেরার পর ২০১৮ সাল থেকে জাবেদ প্রতারণা এবং মানবপাচারকে তার পেশা হিসেবে বেছে নেয়। তার ট্রাভেল এজেন্সির কোনো লাইসেন্স নেই। কিন্তু তিনি জাবেদ ট্রাভেল এজেন্সি নামে তার অফিস পরিচালনা করে আসছে। গ্রাহকদের বিশ্বাস অর্জনের জন্য প্রথমে সে বিভিন্ন রিক্রুটিং এজেন্সির সঙ্গে যোগাযোগ করে নারী কর্মীদের মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে পাঠায়।

গ্রাহকদের বিশ্বাস অর্জনের পর জাবেদ পুরুষ কর্মীদের বিদেশ পাঠানোর জন্য পাসপোর্ট ও টাকা সংগ্রহ করে প্রতারণামূলকভাবে জনপ্রতি তিন থেকে চার লাখ করে টাকা হাতিয়ে নেন। তারপর তিনি তার অফিসের কম্পিউটার ব্যবহার করে মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশের ভুয়া ভিসা তৈরি করে।

ওই ভিসায় উদ্ধারকৃত মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশের নকল সিল ব্যবহার করে ভুয়া ভিসাটি আসল হিসেবে উপস্থাপনের চেষ্টা করে। অতপর ভুয়া ভিসা, নকল টিকেট ও নকল বিএমইটি ক্লিয়ারেন্স ভুক্তভোগীদের সরবরাহ করে। ভুক্তভোগীরা ওই ভিসা এবং টিকেট নিয়ে বিমানবন্দরে গেলে ইমিগ্রেশন তাদের বিমানবন্দর থেকে ফিরিয়ে দেয়। ভুক্তভোগী তার কাছে আবারও নতুন ভিসা ইস্যু করার জন্য সময় প্রার্থনা করে। ভুক্তভোগীদের কেউ কেউ তার কথায় আশ্বস্ত হয়ে আবারও নতুন ভিসা পাওয়ার অপেক্ষায় থাকে। অন্যদিকে ভুক্তভোগীদের মধ্যে কেউ টাকা ফেরত চাইলে তিনি তাদের ব্যাংক চেক দেন। কিন্তু ওই চেক নগদ করতে গেলে ভুক্তভোগীরা জানতে পারেন তার একাউন্টে কোন টাকা নেই।

আর এই চক্রের অন্যতম সহযোগী মো. আবির সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন। তিনি ২০১৮ সালে বিমানবন্দরে পরিচ্ছন্নকর্মী হিসেবে ওমান যায়। ২০১৯ সালে দেশে ফিরে আসার পর তিনি তার খালাত ভাই জাবেদের সঙ্গে প্রতারণা এবং মানবপাচারকে তার পেশা হিসেবে বেছে নেন।

আটক মো. জাবেদ হোসেন রকি নোয়াখালী জেলার সুধারাম থানার অশ্বদিয়া গ্রামের মো. খোকনের ছেলে আর মো. আবির ওরফে শুভ একই থানার লালানগর গ্রামের মো. বাকের ছেলে।

(ঢাকাটাইমস/১১ আগস্ট/এএ/কেএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অপরাধ ও দুর্নীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

অপরাধ ও দুর্নীতি এর সর্বশেষ

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ৫৯, মামলা ৩৯

কাঁঠালবাগানে কিশোর খুন, অভিযুক্ত কিশোর গ্রেপ্তার

অপহরণকাণ্ডে রহিমা-মরিয়মদের শাস্তি ও গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তি দাবি

চুরি হওয়া গাড়ি বিক্রি হচ্ছে অনলাইনে!

মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

এসএসসির প্রশ্নপত্র ফাঁসে সাতজন জড়িত: তদন্ত কমিটি

বঙ্গবন্ধুর খুনি শাহরিয়ার রশিদের জামাতার সাত বছরের কারাদণ্ড

নাইকো দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ শুনানি ৮ নভেম্বর

তিন কোটি টাকা আত্মসাৎ, ন্যাশনাল ব্যাংক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

ছুরিসহ মেয়র তাপসের পিছু নেওয়া সেই যুবকের বিরুদ্ধে মামলা

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :