ইরানে ‘নীতি পুলিশ’ বিরোধী আন্দোলন কী খোমেনিবিরোধী আন্দোলনে রূপ নেবে?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২১:২৩ | প্রকাশিত : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২১:১৯

গত ১৬ সেপ্টেম্বর নীতি পুলিশের হেফাজতে থাকা অবস্থায় মারা যান ২২ বছর বয়সী তরুণী মাহসা আমিনি। ইরানের নিয়ম মেনে হিজাব না পরে বাইরে আসায় মূলত নীতি পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হতে হয় মাহসা আমিনিকে। তার মৃত্যুর সংবাদ ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই বিক্ষোভ শুরু হয় দেশের বিভিন্ন স্থানে। ধীরে ধীরে তা ছড়িয়ে পড়ে ৩১টির বেশি প্রদেশে। সরকারি হিসাবে মৃত্যুর সংখ্যা শনিবারের ৪১ জন থেকে বেড়ে প্রায় ৬০ জনে দাঁড়িয়েছে। মানবাধিকার কর্মী, আইনজীবী ও সাংবাদিকসহ প্রায় ১,২০০ লোক গ্রেপ্তার হয়েছে।

অসলো-ভিত্তিক গ্রুপ ইরান হিউম্যান রাইটস (আইএইচআর) অনুসারে বিক্ষোভে কমপক্ষে ৭৬ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ইরানে ২০১৯ সালের পর সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। পুলিশি হেফাজতে আমিনির মৃত্যুর ঘটনা আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও নিন্দিত হয়েছে। ইরান বলছে, যুক্তরাষ্ট্র দাঙ্গাকারীদেরকে সমর্থন দিচ্ছে এবং ইরানকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি শনিবার দেশে অস্থিরতা উস্কে দেওয়ার জন্য ষড়যন্ত্রকরীদের দায়ী করেছেন। কিন্তু এবার মানুষ নিষ্ঠুর শাসকদের কোনওরকম ভয় না পেয়ে রাস্তায় বিক্ষোভে নেমেছে এবং বিক্ষোভ থামার কোনও লক্ষণ এখন পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে না।

এ পরিস্থিতির মধ্যেই বিক্ষোভ দমনে আরও কঠোর হওয়ার বার্তা দিয়েছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসি। তিনি বিক্ষোভকারীদের দাঙ্গা সৃষ্টিকারী আখ্যা দিয়েছেন এবং বলেছেন, দেশের নিরাপত্তা এবং স্থিতিশীলতার বিরুদ্ধে যারা কাজ করবে তাদের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দেশটির পুলিশ কমান্ড এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘আজকে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের শত্রুরা এবং কিছু দাঙ্গাবাজরা যে কোনো অজুহাত ব্যবহার করে জাতির শৃঙ্খলা, নিরাপত্তা ও স্বস্তি বিঘ্নিত করতে চাইছে।’

ফার্স বার্তা সংস্থার খবরে পুলিশের বক্তব্য উদ্ধৃত করে বলা হয়, ‘প্রতিবিপ্লবী এবং বৈরী মহল দেশের যে কোনো স্থানে জনশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা বিঘ্নিত করার চেষ্টা করলে পুলিশ কর্মকর্তারা সর্বশক্তি দিয়ে তাদের ষড়যন্ত্রের মোকাবেলা করবে।’

নীতি পুলিশ বিরোধি আন্দোলনে যেভাবে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ জানিয়ে রাস্তায় নেমেছে ইরানিরা তাতে আন্দোলন খোমেনি বিরোধী আন্দোলনের দিকে মোড় নেয় কিনা সে বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিশ্লেষকরা।

১৯৭৮ সালের ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে আনুমানিক ১০ থেকে ২০ লাখের মতো মানুষ তেহরান শহরে শান্তিপূর্ণ মিছিল করে মোহাম্মদ রেজা শাহ পাহলভিকে সিংহাসন ছাড়ার আহ্বান জানায়। খোমেনি তখন হাজার মাইল দূরে ফ্রান্সের একটি গ্রামে নির্বাসিত জীবন কাটাচ্ছেন। সেসময় ইরানে তার নামে পরিচালিত আন্দোলনের জন্য নির্দেশনা এবং সমর্থন প্রদান করেন। জনগণ তার ডাকে সাড়া দিয়ে ইরানের রাজবংশের পতন ঘটিয়ে ফেলে।

সম্প্রতি মাহসা আমিনির মৃত্যু এবং প্রতিবাদে মহিলার মাথার হিজাব খুলে আগুনে ফেলে দেওয়া, সেইসঙ্গে নীতি পুলিশ বিরোধি স্লোগানে উত্তাল ইরানের পরিস্থিতি। এত এত হত্যা আর গ্রেপ্তারের পরেও দমে নেই ইরানের জনগণ। শেষ পর্যন্ত কি এই স্ফুলিঙ্গ হতে পারে ইরানে ব্যাপক পরিবর্তনের দিকে নিয়ে যায়, যেমনটি অনেকের আশা? কেউ কেউ বিশ্বাস করেন একটি ফিউজ জ্বালানো হয়েছে। নারী নিপীড়ন শাসকগোষ্ঠীর জন্য একটি অস্তিত্বের সমস্যা, তবে সম্ভবত এটিও একটি মৌলিক দুর্বলতা।

ইতিহাসের কি পুনরাবৃত্তি হচ্ছে? অবশ্যই কিছু প্রতিবাদকারী ১৯৭৯ সালের ঘটনার সঙ্গে সমান্তরালভাবে আহ্বান জানিয়ে স্লোগান দিয়েছে, ‘নিপীড়কের মৃত্যু হোক, সে শাহ হোক বা সর্বোচ্চ নেতা!’

কিন্তু আমরা হয়তো আমাদের আশাকে বাস্তবের চেয়ে এগিয়ে যেতে দিচ্ছি। আমরা যা দেখছি তা ইভেন্টের সম্পূর্ণ চিত্র হওয়া থেকে অনেক দূরে। মিডিয়াতে হয়তো অনেক কিছু সত্য উঠে আসছে না। মিডিয়ার কল্যাণে আমরা শুধু এমন কিছুই দেখতে পাই যা কেবল ইরানের কোনো এক প্রদেশের রাস্তায় ঘটছে। কিন্তু এটি সর্বদা একটি বিশাল এবং জনবহুল দেশের ঘটনাগুলির প্রতিনিধিত্ব করে না। ইরানে এখন অস্থিরতা কতটা ব্যাপক তা বের করা কঠিন।

তেতাল্লিশ বছর আগে, শাহকে কেবল খোমেনি এবং তার উগ্রপন্থী আলেমদের চক্র দ্বারা ক্ষমতাচ্যুত করা হয়নি, বরং বিরোধী দলগুলির একটি বিস্তৃত জোট দ্বারা, যা বিভিন্ন নির্বাচনী এলাকাকে একত্রিত করেছিল; ধর্মনিরপেক্ষ শহুরে উদারপন্থী, পুরানো-স্কুল কমিউনিস্ট, নতুন বাম ফেদায়েন, ইসলাম- মার্কসবাদী গেরিলা এবং জাতীয়তাবাদীরা যারা ১৯৫৩ সালে মার্কিন এবং ব্রিটেনের সমর্থনে একটি অভ্যুত্থানে ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ মোসাদ্দেঘের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধাশীল, তাদের সম্মিলিত জোট।

১৯৭৮ এবং ১৯৭৯ সালে ইরানের বিপ্লবের সাক্ষীদের মধ্যে ছিলেন খ্যাতিমান পোলিশ সাংবাদিক রিসজার্ড কাপুসিঙ্কি। তার ভাষায়, তেহরানের বিশাল মিছিলটি ছিল, ‘ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রধান রাস্তার মধ্য দিয়ে গড়িয়ে যাওয়া একটি মানব নদী, প্রশস্ত এবং ফুটন্ত, অবিরাম প্রবাহিত। তারা ছিল প্রবল হিংস্র বন্যার মতো যা মুহূর্তের মধ্যে সবকিছুকে গ্রাস করবে এবং ডুবিয়ে দেবে।’

শহরের কেন্দ্রে যেতে ভিড় লেগেছিল আট ঘণ্টা। তেহরানে এখন কোনো কাপুসিঙ্কি নেই এবং আমরা মোটামুটি নিশ্চিত হতে পারি যে আট ঘণ্টার কোনো মিছিল নেই। রূঢ় সত্য হল যে যদিও এইগুলি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবাদ, তবুও শক্তিশালী শাসনের দ্বারা সেগুলিকে চূর্ণ করার সম্ভাবনা রয়েছে।

দূর-দূরান্তের ঘটনা ব্যাখ্যা করার সমস্যা স্পষ্টতই স্মার্টফোন এবং ইন্টারনেটের ফলাফল নয়। ১৯৭৯ সালের ইরানের বিপ্লব সারা বিশ্বের শত শত সাংবাদিক কভার করেছিল। তেহরানে প্রত্যাবর্তনের আগে খোমেনি প্যারিসে থাকা কয়েক মাসে তিনি ১৫০টি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। ক্ষমতা গ্রহণের দুই বছরের মধ্যে, খোমেনি নির্মমভাবে প্রায় সমস্ত বিরোধিতা দূর করেছিলেন, কারাগার ভরাট করেছিলেন এবং নারীদের ওপর হিজাব চাপিয়ে দেওয়ার আইন প্রবর্তন করেছিলেন।

(ঢাকাটাইমস/২৮সেপ্টেম্বর/এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

স্পেনে পাঁচটি চিঠি বোমা শনাক্ত, নিরাপত্তা জোরদার

গণবিক্ষোভের পর কোভিড বিধি শিথিল করার ইঙ্গিত দিয়েছে চীন

পূর্ব ইউক্রেনে চলছে তীব্র লড়াই, রাশিয়ার বিরুদ্ধে অবস্থান বজায় রাখতে চায় ন্যাটো

বিশ্বকে প্রকৃতির জন্য অর্থায়ন দ্বিগুণ করতে বলল জাতিসংঘ

জেনিন শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলের হামলায় দুই ফিলিস্তিনি নিহত

অভিশংসনের হুমকির মুখে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট

আন্তর্জাতিক প্রতিবেদন: বিশ্বের অর্ধেক দেশেই গণতন্ত্র দুর্বল হচ্ছে, কর্তৃত্ববাদীর কাতারে বাংলাদেশ

ইউক্রেনের আরও ২টি গ্রাম দখল করেছে রাশিয়া

আফগানিস্তানের মাদ্রাসায় বিস্ফোরণ, নিহত অন্তত ১৬, আহত ২৪

পাকিস্তানের কয়লা খনি ধসে নিহত অন্তত ৯ শ্রমিক

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :