হজযাত্রীদের সৌদির ইমিগ্রেশনও হবে ঢাকায়

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১২ এপ্রিল ২০১৯, ১৪:১৮ | প্রকাশিত : ১২ এপ্রিল ২০১৯, ১৪:১৭

বাংলাদেশ থেকে এবার যারা হজে যাবেন তাদের সৌদি আরবে গিয়ে ইমিগ্রেশনের ঝামেলা পোহাতে হবে না। ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরেই সেই আনুষ্ঠানিকতা সেরে ফেলা হবে বলে জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ।

শুক্রবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান প্রতিমন্ত্রী। বলেন, এখন থেকে ঢাকার শাহজালাল বিমানবন্দরে বাংলাদেশের হজযাত্রীদের সৌদির ইমিগ্রেশন হবে।

২০১৭ সাল থেকে মালয়েশিয়া এবং ২০১৮ সাল থেকে ইন্দোনেশিয়ার হজযাত্রীরা আগাম ইমিগ্রেশনের সুবিধা পাচ্ছেন। এখন বাংলাদেশ হচ্ছে এমন সুবিধাপ্রাপ্ত তৃতীয় দেশ।

প্রতি বছর হজ পালন করতে গিয়ে জেদ্দা বিমানবন্দরে নেমে ইমিগ্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন করতে বাংলাদেশি হজযাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হতো। কয়েক ঘণ্টা বিমান ভ্রমণের পর ক্লান্ত হজযাত্রীরা ইমিগ্রেশনের জন্যও কয়েক ঘণ্টা অপেক্ষা করে অসুস্থ হয়ে পড়তেন।

হজযাত্রীদের অবস্থা বিবেচনা করে সম্প্রতি ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধি দল সৌদি সরকারের আমন্ত্রণে দেশটি সফর যান। সফরকালে সৌদি ইমিগ্রেশনের পরিবর্তে বাংলাদেশের বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশনের ব্যবস্থা করতে সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানানো হয়। ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর ওই অনুরোধে সাড়া দেয় সৌদি সরকার।

এ লক্ষ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে বাংলাদেশ সফররত সৌদি আরবের ইমিগ্রেশন প্রতিনিধি দলের সঙ্গে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর সাক্ষাৎ হয়। সেখানে বিষয়টি ফয়সালা হয়। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের এই পদক্ষেপ নেয়ায় জেদ্দা বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশনের জন্য হজযাত্রীদের আর অপেক্ষার ভোগান্তি থাকবে না।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, বর্তমান নিয়মানুযায়ী বাংলাদেশ বিমানের হজযাত্রীরা আশকোনা হজ ক্যাম্পে এবং সৌদি এয়ারলাইন্সের যাত্রীরা শাহজালাল বিমানবন্দরে বাংলাদেশ অংশের ইমেগ্রেশন করেন। আসন্ন হজেও একই নিয়মে তারা হজ ক্যাম্প ও শাহজালালে বাংলাদেশের ইমিগ্রেশনের আনুষ্ঠানিকতা সারবেন। তাদের সৌদিতে গিয়ে আর ইমিগ্রেশন ফেস করতে হবে না। উভয় বিমানের হজযাত্রীদের শাহজালাল বিমানবন্দরের একটি এক্সক্লুসিভ জোনে নিয়ে গিয়ে সৌদি আরবের জেদ্দায় যে ইমিগ্রেশন করা হত, তা করা হবে।

শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ জানান, ওই বিশেষ এলাকার সব কার্যক্রম থাকবে সৌদি আরবের নিয়োজিত টেকনিক্যাল টিমের হাতে। দুই ধাপের ইমিগ্রেশন শেষ করে হজযাত্রীরা ফ্লাইটে উঠবেন। সৌদি আরবে পৌঁছে আর ইমিগ্রেশনের ঝামেলা থাকবে না।

সংবাদ সম্মেলনে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব আনিছুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকাটাইমস/১২এপ্রিল/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :