প্রবল বিক্রমে ভারতে আবার ক্ষমতায় মোদি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৩ মে ২০১৯, ২২:৩৫ | প্রকাশিত : ২৩ মে ২০১৯, ২২:০৬

প্রবল বিক্রমে ভারতে আবার ক্ষমতায় এলো নরেন্দ্র মোদির দল ভারতীয় জনতা পার্টি বিজেপি। পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে শাসক দল বিজেপির জোট এনডিএ। তবে জোট ছাড়াই গেরুয়া শাসনের ছরি হাতে পাওয়ার মতো আসনে জিতেছে বিজেপি এককভাবে।  জয় নিশ্চিত হওয়ার পর সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে দেশ গড়ার অঙ্গীকার করেছেন মোদি।

বিরোধী দল কংগ্রেস, পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূলসহ বিভিন্ন দলের নেতারা মোদির বিজয়ে অভিনন্দন জানিয়েছেন। বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের অভিনন্দনও পাচ্ছেন মোদি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলিফোন করে মোদিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন তার বিপুল বিজয়ে।  

বৃহস্পতিবার সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের ভোট গণনায় দলটি এককভাবে ৩০২ টি আসনে জিতেছে। যা গতবারের চেয়ে ২০টি বেশি। সরকার গঠন করার জন্য ৫৪৩ আসনের লোকসভায় দরকার ২৭২ আসনে জয়। ফলে বিজেপি জোট ছাড়াই এককভাবে সরকার গঠন করতে পারছে।  বিজেপি জোট এনডিএ মোট ৩৫৪ আসনে জিতেছে। গতবার এর সংখ্যা ছিল ৩৩৫।

অন্যদিকে কংগ্রেস জোট ইউপিএ গতবারের চেয়ে ২৯টি আসন বেশি পেয়ে মোট ৮৮টি আসনে জিতেছে। তাদের মোট আসনসংখ্যা ৯৫। এই জোটের প্রধান দল কংগ্রেস পেয়েছে ৫৬টি আসন, যা গতবারের চেয়ে ৬টি বেশি।

এবারের নির্বাচনে গেরুয়া ঝড়ে বেসামাল হিন্দি বলয় থেকে শুরু করে পশ্চিমবঙ্গ, বিহার-ওড়িশা, এমনকি উত্তর-পূর্ব ভারত। চন্দ্রবাবু নায়ডু, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, মায়বতী-অখিলেশরা যে জোট গড়ার চেষ্টায় ছিলেন, নিজেদের রাজ্যেই শোচনীয় ফল তাদের। পশ্চিমবঙ্গে এক ধাক্কায় বিজেপির আসন বেড়েছে ১৬টি। গতবারের যেখানে সাকল্যে দুটি আসন ছিল বিজেপির, এবার তারা দখল করল ১৮টি। আর মুখ্যমন্ত্রী মমতার আসন কমেছে ৯টি। এবার মোট ২৫ আসন পেল তার দল তৃণমূল কংগ্রেস।

কয়েক মাস আগে মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান ও ছত্তিসগড়ের বিধানসভা ভোটে বিজেপিকে সরিয়ে ক্ষমতায় এসেছে কংগ্রেস। বিরোধী শিবিরের আশা ছিল, এই তিন রাজ্যে বিজেপির ফল ব্যাপক খারাপ হবে। কিন্তু তিন রাজ্যেও বিপুল সাফল্য পেয়েছে বিজেপি। কার্যত ২০১৪ সালের ফলের চেয়ে খুব একটা হেরফের হয়নি মোদির দলের।

অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে বিহারে বিজেপি-জেডিইউ-আরএলএসপির জোট কার্যত বিরোধীদের সাফ করে দিয়েছে। ঝাড়খণ্ডেও একই অবস্থা। উত্তর-পূর্বে বিজেপির ভালো ফল এবারও বজায় রয়েছে।

এদিকে বিপুল জয় নিশ্চিত হওয়ার পর সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে একসঙ্গে দেশ গড়ার অঙ্গীকার করেছেন মোদি। এক টুইটে মোদি বলেন, ফের ভারতের জয় হল।! সকলকে নিয়েই আমরা শক্তিশালী দেশ গড়ে তুলব।  সকলকে সঙ্গে নিয়ে, সকলের বিশ্বাস অর্জন করে সকলের বিকাশ ঘটিয়েই ভারত বিজয়ী হয়েছে। আমরা সকলে এক সঙ্গে থেকেছি। একই সঙ্গে বেড়ে উঠেছি। সকলে একজোট হয়েই আমরা শক্তিশালী দেশ গড়ে তুলব।’

ভোটারদের ধন্যবাদ জানাতে গিয়ে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ এ দিন তার টুইটে লেখেন, ‘‘বিরোধীদের অপপ্রচার, মিথ্যাচার, ব্যক্তিগত আক্ষেপ এবং ভিত্তিহীন রাজনীতির বিরুদ্ধে রায় দিয়েছেন সাধারণ মানুষ। আজকের এই ফলাফলে এও প্রমাণিত হয়েছে যে, ভারতবাসী জাতিবাদ, পরিবারতন্ত্র এবং তুষ্টিকরণের রাজনীতি উপড়ে ফেলে দিয়ে উন্নয়ন এবং রাষ্ট্রবাদকেই বেছে নিয়েছেন।’

বিজেপির এ বিশাল উত্থানকে জনতার রায় বলে মেনে নিয়েছেন বিরোধীরা। কংগ্রেস সহ সভাপতি রাহুল গান্ধি মোদি ও বিজেপিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। রাহুল বলেন, ‘জনতার রায় শিরোধার্য, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও বিজেপিকে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ। কংগ্রেসের একনিষ্ঠ যে কর্মীরা ভোটের সময় দলের জন্য প্রাণ দিয়ে কাজ করেছেন, তাঁদের শুভেচ্ছা জানাই। আম জনতা স্পষ্ট মতামত জানিয়েছে, সেই রায়কে স্বাগত। প্রচারেই বলেছিলাম, জনসাধারণই মালিক।’

বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের অভিনন্দন

মোদিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ, চীন, পাকিস্তান, জাপান, রাশিয়া, ইসরায়েলসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা।  ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু মোদীকে শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি ভারত-ইসরায়ের বন্ধুত্বের সম্পর্ক আরও মজবুত হওয়ার আশা প্রকাশ করেন।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট টেলিগ্রামের মাধ্যমে মোদিকে অভিনন্দন জানান। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অভিনন্দন জানিয়ে দু-দেশের সম্পর্ক আরো দৃঢ় হবে বলে আশা প্রকাশ করেন। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় শান্তি ও সমৃদ্ধি রাখার জন্য একসঙ্গে কাজ করার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছেন। নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি অলি, ভুটানের রাষ্ট্রপ্রধান রাজা জিগমে খেসার নামগেল, আফগান প্রেসিডেন্ট আশরফ ঘানিও মোদিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

মোদির সাংবাদিক বৈঠক:

এদিকে জয় নিশ্চিত হওয়ার পর সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন মোদি। সেখানে তিনি বলেন,

‘আপনারা এই ভিখারির ঝুলি তো ভর্তি করে দিয়েছেন, কিন্তু আপনাদের আশা-আকাঙ্খার সঙ্গে আমি সব সময় থাকব। দ্বিতীয়ত, দেশবাসী, আপনারা আমাকে যে বিরাট দায়িত্ব দিয়েছেন, তার জন্য আমি বলব, আমার জন্য আমি কিছুই করব না।

কাজ করতে করতে ভুল হতে পারে, কিন্তু খারাপ উদ্দেশ্য নিয়ে কোনও কাজ করব না। কখনও কোনও ভুল হলে আমাকে ধরিয়ে দেবেন।’

ঢাকাটাইমস/২৩মে/ ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর