বাজেট প্রত্যাখ্যান করে যা বললেন বিএনপির এমপিরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০১ জুলাই ২০২০, ১৫:৫৪ | প্রকাশিত : ০১ জুলাই ২০২০, ১৫:৩৯

করোনাকালে ভার্চুয়াল বাজেট আলোচনায় বিএনপি এমপিদের আলোচনা করার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা, তাদের দেয়া প্রস্তাবনা গ্রহণ না করার অভিযোগ এনে বাজেট প্রত্যাখ্যান করেছেন দলটির সংসদ সদস্যরা।

বুধবার বাজেট প্রতিক্রিয়া জানাতে সংসদ ভবনের সামনে হাতে প্ল্যাকার্ড হাতে অবস্থান নিয়ে বিএনপির সংসদ সদস্যরা এসব অভিযোগ করেন।

সদ্য পাস হওয়া ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বাজেট প্রতিক্রিয়া জানাতে সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন।

এরপর বিএনপির সংসদ সদস্য হারুন-অর-রশিদ তার বক্তব্যে বলেন, ভার্চুয়াল মাধ্যমে বাজেট আলোচনায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ দিলে তাতে আলোচনা করার সুযোগ ছিল কিন্তু সে সুযোগ থেকে আমাদেরকে বঞ্চিত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এই সরকার প্রশ্নবিদ্ধ একটি নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে সংসদ গঠিত হয়েছে। এখানে যারা মহাজোটের শরিক তারাই সরকারে আবার তারাই বিরোধী দলে অবস্থান করছে। যে কারণে সত্যিকার অর্থে জনগণের যে সংসদ আজকের সঠিকভাবে প্রতিফলিত হচ্ছে না। আমরা কয়েকজন সংসদ সদস্য বলার চেষ্টা করি কিন্তু তাদেরকে কথা বলার সুযোগ দেয়া হয় না।

হারুন বলেন, গোটা জাতি সংকটের মুখে। বিশেষজ্ঞ এই সংকটকালে পরামর্শ দিতে চায় সরকার তাদেরকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করছে। বর্তমান স্বাস্থ্য অবস্থা বেহাল দশা। আমি সংসদে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ চেয়েছি এবং গোটা স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সংস্কার চেয়েছি। কিন্তু সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী কোন ধরনের প্রতিক্রিয়া বলে নাই।

তিনি বলেন, তথাকথিত বিরোধী দল তারাও দাবি করেছে। আপনারা দেখেছেন কিছুদিন আগে সরকার মন্ত্রী পরিষদের রদবদল করেছিল। পূর্ত মন্ত্রীকে সরিয়ে বস্ত্র মন্ত্রণালয়ে এবং বস্ত্র মন্ত্রীকে সরিয়ে পূর্ত মন্ত্রণালয়ে নিয়ে এসেছিল। একটি কারণ, শ ম রেজাউল করিম ওই সময় পূর্ত মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করছিলেন। যে কারণে গোটা পূর্ত মন্ত্রণালয়ে অচলাবস্থা তৈরি হয়েছিল । সরকার দুর্নীতির কাছে আত্মসমর্পণ করে তাকে সেখান থেকে সরিয়ে বস্ত্রমন্ত্রীকে সেখানে নেওয়া হয়েছে।

হারুন বলেন, সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে প্রতিনিয়ত বলা হচ্ছে দুর্নীতির ব্যাপারে জিরো টলারেন্স। কিন্তু বাস্তবে কি দেখছি? এই সংসদে রয়েছে চিহ্নিত মাদক সম্রাট, মানব পাচারকারীরা, চিহ্নিত সরকারি লুটপাটকারী, চিহ্নিত ব্যাংক লুটপাটকারী। তারাই এখন ক্ষমতাধর। এখন তারাই রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পালন করছে। সুতরাং সৎ ও অসৎ পাশাপাশি বাস করতে পারে না।

বিএনপির এই এমপি বলেন, করোনা নিয়ন্ত্রণে অতিসত্বর রোডম্যাপ ঘোষণা করতে হবে। করোনার গতি ও সংক্রমণের সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে সেখান থেকে আমাদের বাঁচার লক্ষ্যে এবং কেউ যেন বিনা চিকিৎসায় মারা না যায় তার জন্য সুনির্দিষ্টভাবে সরকারের পরিকল্পনা জাতির উদ্দেশ্যে ঘোষণা করতে হবে।

(ঢাকাটাইমস/০১জুলাই/বিইউ/ইএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :