ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বাইরেও

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২২ জানুয়ারি ২০১৭, ০৯:০৩

যুক্তরাষ্ট্রে নতুন প্রেসিডেন্ট হিসাবে শপথ নেয়ার পরদিনই দেশটির একাধিক শহরে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে অংশ নিয়েছেন কয়েক লাখ মানুষ। নারীদের বিষয়ে ট্রাম্পের বক্তব্যের প্রতিবাদে প্রথমে ওয়াশিংটনে ওই বিক্ষোভ মিছিল হওয়ার কথা থাকলেও, পরে দেশটির আরো অনেক শহরে তা ছড়িয়ে পড়ে। মেক্সিকো সিটি, প্যারিস, বার্লিন, লন্ডন আর সিডনিতেও হয়েছে ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভ।

প্রধানত নারী সংগঠনগুলোর আয়োজনে ওয়াশিংটনে ওই বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করা হলেও, পরে এতে নেক পুরুষও অংশ নেয়। নারীদের বিষয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কথিত 'পুরুষতান্ত্রিক আচরণের' প্রতিবাদ জানাতে এ বিক্ষোভ ডাকা হয়েছে। নারী অধিকার কর্মীদের আশংকা ট্রাম্প প্রশাসনে তাদের অধিকার ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে।

সারা বিশ্ব জুড়ে অন্তত ৬০০ বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে বলে জানা যায়। সবচেয়ে বড় সমাবেশ হয়েছে ওয়াশিংটনে। সেখানে পাচঁ লাখের বেশি বিক্ষোভকারী অংশ নেয়। হোয়াইট হাউজের সামনে মিছিল নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু মিছিলের পথ লাখ লাখ বিক্ষোভকারী অবস্থান নেয়ায় তা কার্যত অসম্ভব হয়ে পড়ে। ট্রাম্প বিরোধী এই বিক্ষোভ শুধু সমাবেশের কথা থাকলেও পরে সেটা সহিংসতায় রূপ নেয়। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ এবং গাড়ি পোড়ানোর মতো ঘটনাও ঘটেছে।

এই বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিতি ছিল শুক্রবার ট্রাম্পের অভিষেক অনুষ্ঠানের চেয়েও বেশি। যাদের মধ্যে রয়েছেন অনেক তারকা শিল্পীও। বিক্ষোভে অংশ নেন সদ্য সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি, সংগীতশিল্পী ম্যাডোনা, গায়িকা কেটি পেরি, সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেন, অভিনেত্রী জুলিয়ান মোর ও স্কারলেট ইয়োহানসন, নারী অধিকারকর্মী গ্লোরিয়া স্টাইনহ্যাম।

সমাবেশে মার্কিন সংগীতশিল্পী ম্যাডোনা বলেন, এই দিন আমাদের জীবন শুরু করার দিন। বিপ্লব এখান থেকেই শুরু হচ্ছে। এটা আমাদের স্বাধীনতা, আমাদের পরিচয়, আমাদের সম অধিকারের লড়াই। এই অন্ধকারের বিরুদ্ধে চলুন সবাই একসঙ্গে লড়াই করে জানিয়ে দেই যে আমরা ভীত নই, আমরা একা নই এবং আমরা পিছনে ফিরবো না।’ এরপর তিনি নিজেকে তুলে ধরার বক্তব্য সম্বলিত একটি গানও গেয়ে শোনান।

ট্রাম্পের উদ্দেশ্যে অনেকেই শ্লোগান দেন, 'তুমি আমার প্রেসিডেন্ট নও'। বিভিন্ন প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল 'ঘৃণা নয় ভালোবাসা', 'দেয়াল নয়, সেতু' ইত্যাদি।

বিশ্লেষকরা জানান, এই সমাবেশ এটাই প্রমাণ করে যে, যুক্তরাষ্ট্রের সমাজে গভীর বিভক্তি। আর ট্রাম্পের ভবিষ্যৎ কর্মকাণ্ড নিয়ে ভীতি তৈরি হয়েছে।

ওয়াশিংটনের এই বিক্ষোভ পরে যুক্তরাষ্ট্রের আরো কয়েকটি বড় শহরে ছড়িয়ে পড়ে। যুক্তরাষ্ট্রে সব মিলিয়ে দশলাখের বেশি মানুষ বিক্ষোভে অংশ নিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিক্ষোভ হয়েছে মেক্সিকো সিটি, প্যারিস, বার্লিন, লন্ডন আর সিডনিতেও। ট্রাম্পের ক্ষমতা গ্রহণের প্রথম দিনে অস্ট্রেলিয়া, নেদারল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড এবং জাপানেও তার বিরোধীরা বিক্ষোভ করেছেন।

এদিকে ট্রাম্পের অভিষেক অনুষ্ঠান নিয়ে মার্কিন গণমাধ্যমগুলো মিথ্যাচার করছে বলে অভিযোগ তুলেছেন হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র শেন স্পাইসার। তিনি বলেন, অভিষেক অনুষ্ঠানে সর্ব্বোচ্চ মানুষের উপস্থিতি থাকলেও, সেটি বিকৃতভাবে উপস্থাপন করছে গণমাধ্যম এবং এজন্য তাদের জবাবদিহি করতে বাধ্য করবে হোয়াইট হাউজ। এর আগে একই ধরণের অভিযোগ তোলেন ট্রাম্পও।

(ঢাকাটাইমস/২২জানুয়ারি/জেএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত